আপডেট : ৪ জুন, ২০১৬ ১৯:২৫

মুহাম্মদ আলীর কিছু স্মরণীয় বাণী

বিডিটাইমস ডেস্ক
মুহাম্মদ আলীর কিছু স্মরণীয় বাণী

শতাব্দীর সেরা ক্রীড়াবিদ বক্সার ‘দ্য গ্রেটেস্ট’ মুহাম্মদ আলী শনিবার (০৪ জুন) বাংলাদেশ সময় সকালে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা অঙ্গরাজ্যের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় না ফেরার দেশে চলে গেছেন।

এই কিংবদন্তি ১৯৭৮ সালে বাংলাদেশ সফর করেন। সারাবিশ্বের মতো এদেশেও রয়েছে তার লাখো-কোটি ভক্ত। সবুজ-শ্যামল ও শান্তিকামী বাংলাদেশ ভ্রমণে এসে মুগ্ধ হয়ে তিনি বলেছিলেন, ‘স্বর্গে যেতে চাইলে বাংলাদেশে যাও।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমেরিকা যদি কখনও আমাকে তাড়িয়েও দেয়, তা হলে আমার আর একটা দেশ রইল। বাংলাদেশ আমি তোমাকে ভালোবাসি।’

মুষ্টিযোদ্ধা মুহাম্মদ আলী’র আগের নাম ছিলো ‘ক্যাসিয়াস ক্লে’। ১৯৬৪ সালে ইসলামী সংগঠন নেশন অব ইসলামে যুক্ত হয়ে ১৯৭৫ সালে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে তিনি নাম ধারণ করেন ‘মুহাম্মদ আলী’।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ক্যাসিয়াস ক্লে ক্রীতদাসের নাম। এই নাম আমি পছন্দ করি না, এই নাম আমি চাইনি। আমি মোহাম্মদ আলী। এটি একটি স্বাধীন নাম। এর মানে হচ্ছে স্রষ্টার বন্ধু। মানুষ যখন আমার সঙ্গে কথা বলবে এবং আমার সম্পর্কে বলবে তাদেরকে মুহাম্মদ আলী নামটি ব্যবহারের জন্য জোড় দাবি জানাচ্ছি।

এছাড়া, মুহাম্মদ আলী তার জীবদ্দশায় বিভিন্ন সময়ে বিশ্বের সাধারণ মানুষের উদ্দেশে দেওয়া সাক্ষাৎকার, মন্তব্য, কথা বা বাণী আজও স্মরণীয় হয়ে আছে। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম অবলম্বনে তারই চম্বুকাংশ পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-

‘আমার জীবনের সবচেয়ে কঠিন লড়াই ছিল, আমারই প্রথম জীবনের সঙ্গে।’

‘বক্সিংয়ে আমি হচ্ছি নভোচারী। জু লুইস ও ডেম্পসি ছিল কেবল জেট পাইলট। আমিই আমার বিশ্ব’

‘যদি তুমি কখনও স্বপ্নে দেখো আমাকে মারছো, তাহলে তোমার উচিত জেগেই ক্ষমা প্রার্থনা করা।’

‘আমি জানি, আমি কোথায় যাচ্ছি এবং আমি জানি সত্যটা কী। তুমি আমাকে যা হতে দেখতে চাও, আমি তা হতে পারি না। বরং আমি যা চাই, তা-ই হতে পারি।

‘আমি চাই মানুষ সবাই সবাইকে ভালোবাসবে, একইভাবে আমাকেও ভালোবাসবে। এভাবেই সুন্দর পৃথিবী গড়ে উঠবে।’

‘মৃত্যুর চেয়ে আমি বরং এই জীবনের শাস্তি ভোগ করতে চাই।’

জেডএম

উপরে