আপডেট : ১০ মে, ২০২০ ২০:১০

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্যে করে যা বললেন ডা. জ‌াফরুল্লাহ

অনলাইন ডেস্ক
প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্যে করে যা বললেন ডা. জ‌াফরুল্লাহ

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডাক্তার জাফরুল্লাহ চৌধুরী প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলেছেন, সকল সাংবাদিকদের প্রণোদনা দেয়ার দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলেন, ‘প্রতিটি সাংবাদিককে অন্তত ২০ হাজার করে টাকা দিন, তাহলে তারা শক্তি পাবে, সত্য বলার জন্য বেঁচে থাকবে। আপনি নিজেও সত্য শোনার অভ্যাস করুন। তাহলে আপনি জয়যুক্ত হবেন। দেশ জয়যুক্ত হবে। আমরা আরও গভীরভাবে আপনাকে ভালবাসবো।’

র‌বিবার (১০ মে) জাতীয় প্রেসক্লা‌বের সাম‌নে, এশিয়ার জার্না‌লিস্ট সোসাইটির উদ্যো‌গে সাংবা‌দিক গ্রেফতার, নিপীড়ন, গণচাকু‌রিচ‌্যুতির প্রতিবা‌দে ও বেতন ভাতা প‌রি‌শো‌ধের দা‌বি‌তে এক বি‌ক্ষোভ সমা‌বে‌শে ‌তি‌নি এসব‌ কথা ব‌লেন।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘রাজনীতিবিদরা আপনাকে প্রবৃত্ত করে রাখে নাই। আপনাকে প্রবৃত্ত করে রেখেছে তিন শ্রেণির গোয়েন্দা বাহিনী। তারা হলো আমাদের নি‌জেস্ব গোয়েন্দা বাহিনী, ভারতের রো, আর মোসায়েদ, তাদের চারপাশে আছে আমলারা। আমলারা হচ্ছে সেই সকল প্রাণী আপনি যা শুনতে চান তারা তাই শোনায়। আপনি ডিসিদের সাথে যে ডিজিটাল কনফারেন্স করেন তাতে সেই কর্মকর্তারা প্রথম দুই মিনিট আপনার প্রশংসা করে পরে তারা কি করেছে সেটা বলে।’

তিনি বলেন, ‘দেশের এই পরিস্থিতির মধ্যে যারা আপনাকে সঠিক তথ্য দিতে চায় তারা হলেন সাংবাদিক। গোয়েন্দারা তথ্য দেয়, কিন্তু মনগড়া। বঙ্গবন্ধুর সাথে গোয়েন্দারা কি কি আচরণ করেছে সেগুলো থেকে আপনার শিক্ষা নেয়া উচিত। আমি বিশ্বাস করি আপনি দেশের ভাল চান। আর সেজন্য সাংবাদিকদের কথা বলতে দেন। কথা শোনার অভ্যাস করুন।’

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে তিনি আরও বলেন, ‘সাংবা‌দিকরা কার্টুন করে কাদের, যাদেরকে ভালোবাসে তাদের। সুতরাং আপনারা এই ব্যঙ্গ‌কে ভয় পান কেন? তবে আপনি কয়েকটি ভালো কাজের চেষ্টা করেছেন। তার মধ্যে একটি প্রণোদনা, তবে এই প্রণোদনা সত্যিকার অর্থে যারা বড়লোক তারাই পাচ্ছে। কৃষকের ধান কিনে নেবেন বলছেন। কিছুটা কিনে নেবেন। এই কিছুটা কেনায় দুর্নীতি প্রশ্রয় দেয়া হয়। অনুগ্রহ করে প্রতিটি কৃষকের কাছ থেকেই আপনি ধান কিনে নে‌বেন এবং ২৬ টাকার জায়গায় দুই টাকা বেশি দিয়ে কিনবেন।’

সরকারের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের দু’কোটি পরিবার এক কোটি একেবারে নিরন্ন আর এক কোটি অর্ধ অনাহারে থাকে তাদের সবাইকে মাসিক রেশন দেন। সাপ্তাহিক নয়, কারণ সাপ্তাহিক দিলে তাদের বারবার রাস্তায় আসতে হবে তাই মাসিক দিতে হবে। মনে রাখবেন বাঘ যখন বনে খাবার না পায় তখন লোকালয়ের আসে। মানুষ ঘর থেকে বের হয়েছে আপনার নিয়ম ভঙ্গ করেছে একমাত্র পেটের ক্ষুধার জ্বালায় আর এই দুই কোটি মানুষের খাবার দেওয়ার সামর্থ্য তো আমাদের আছে প্রধানমন্ত্রী বলেছে ১৬ লক্ষ্য টন চাউল মজুদ আছে। তাহলে তাদের সাহায্য করতে প্রব‌লেম কি?’

এসময় তিনি সাংবাদিকদের জন্য ২০০ প্যাকেট ত্রাণের সাহায্য ঘোষণা দেন। বিক্ষোভ সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র সাংবাদিক শওকত মাহমুদ, এম আবদুল্লাহ ও ইলিয়াস খান প্রমুখ।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/রাসেল

উপরে