আপডেট : ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২১:২৩

‘কবরে জিয়াউর রহমানের দেহ থাকলে নাকে খত দিব’- আ ক ম মোজাম্মেল

অনলাইন ডেস্ক
‘কবরে জিয়াউর রহমানের দেহ থাকলে নাকে খত দিব’- আ ক ম মোজাম্মেল

‘এই কবরে জিয়াউর রহমানের দেহ নেই। আমি চ্যালেঞ্জ করছি। ডিএনএ টেস্ট করান। যদি সেখানে জিয়ার দেহ থাকে, তাহলে নাকে খত দিয়ে জাতির কাছে ক্ষমা চাইব’ এমনই দাবি করেছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

‘৭১-এর গণহত্যা থেকে গুলশান হত্যাকাণ্ড বিচার বিঘ্নিতকরণের চক্রান্ত’ শীর্ষক এই আলোচনা সভায় মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এসব কথা বলেন। ৮ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার বেলা তিনটায় রাজধানীর ধানমন্ডির ডব্লিউভিএ মিলনায়তনে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি এ সভার আয়োজন করে।

সংসদ ভবন এলাকা থেকে জিয়ার কবর সরানোর বিষয়ে মন্ত্রী  বলেন, ‘এ বিষয়ে স্পিকারকে আগেও চিঠি দিয়েছি। আবারও লিখেছি। লুই আই কানের নকশা ভঙ্গ করে সেখানে জিয়ার কবর বসানো হয়েছে।’

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী বলেন, জিয়াউর রহমানের নামে শহীদ জিয়া শিশুপার্কটি থাকবে না। সেখানে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকেন্দ্র হবে। প্রধানমন্ত্রী অর্থ বরাদ্দ দিয়েছেন। অল্প সময়ের মধ্যে কর্মযজ্ঞ শুরু হবে।

যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানেরা এ দেশে প্রথম শ্রেণির নাগরিক হতে পারবে না বলে মন্তব্য করেন মোজাম্মেল হক। তিনি বলেন, তারা হবে দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক। তারা কখনো রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পালন করতে পারবে না।

একই সঙ্গে পাকিস্তানের ১৯৫ যুদ্ধাপরাধীর বিচার করতে আর কোনো বাধা নেই বলে উল্লেখ করেন মন্ত্রী। বলেন, ‘আমরা তাদের বিচার করার জন্য আন্তর্জাতিক সমর্থন চাইব।’

ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির উপদেষ্টা সাবেক বিচারপতি সৈয়দ আমিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি মফিদুল হক, শহীদজায়া শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী, পান্না কায়সার, প্রজন্ম ’৭১-এর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা শহীদপুত্র তানভীর হায়দার চৌধুরী। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন কমিটির নির্বাহী সভাপতি শাহরিয়ার কবির।

উপরে