পবিত্র কোরআনে সংশোধন আনবে চীন, কমিটি গঠন!

উইঘুর মুসলিমদের ওপরে নানা ধরণের নির্যাতন, ডিটেনশন ক্যাম্পে বন্দি করে রাখা এগুলো দীর্ঘদিন ধরে করে আসছে কমিউনিস্ট রাষ্ট্র চীন। এবার মুসলমানদের ধর্মীয়গ্রন্থ পবিত্র কোরআনে সংশোধনী আনার ঘোষণা দিয়েছে দেশটি।

কোরআন, বাইবেলসহ সব ধর্মীয় গ্রন্থ নতুন করে লেখার একটি পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে চীন। দেশটির সমাজতান্তিক মতাদর্শের আদলে ধর্মগ্রস্থগুলো পুনর্লিখনের বিষয়ে গত নভেম্বরে দেশটির জাতিতত্ত্ব বিষয়ক কমিটির এক সভায় এই পরিকল্পনা নেওয়া হয় বলে ডেইলি মেইলের খবরে বলা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, কোরআন, বাইবেলের নাম সরাসরি উল্লেখ না করলেও চীনের ওই কমিটি সব ধর্মীয়গ্রন্থ পুনর্লিখনের জন্য বিস্তৃত পর্যালোচনার পরিকল্পনা করছে।

বর্তমান বিশ্ব প্রেক্ষাপটে ধর্মগ্রন্থগুলোর যেসব উপাদান সমাজতান্তিক মতাদর্শের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ন নয়, সেসব বিষয়ে পরিবর্তন আনা হবে। ধর্মগ্রন্থগুলোতে সমাজতন্ত্রের সঙ্গে সাংঘর্ষিক কোন তথ্য থাকবে না। দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এর শাসনামলের সঙ্গে এসব ধর্মগ্রন্থগুলোকে সামঞ্জস্যপূর্ণ করা দরকার বলে মত দিয়েছে ওই কমিটি। পুনর্লিখিত সংস্করণে সমাজতন্ত্রের ভাবাদর্শের সঙ্গে সাংঘর্ষিক কোন ধরণের উপাদান থাকলে সেসব সেন্সর বোর্ড সংশোধন করবে।

চীনের সরকারি সংবাদ সংস্থা সিনহুয়ার এক প্রতিবেদনে বলঅ হয়েছে, গত নভেম্বরের ওই বৈঠকে বিশেষজ্ঞ এবং কমিটির প্রতিনিধিদের বলা হয়েছে-সমাজতন্ত্রের মৌলিক মূল্যবোধের সঙ্গে মিল রেখে তাদের বিশ্বাসকে ব্যাখ্যা করার জন্য ধর্মগ্রন্থের পুনর্লিথিত সংস্করণে প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এর আদেশ অনুসরণ করতে হবে।

চীনের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থার প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, গত মাসে কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সঙ্গে বিভিন্ন ধর্মের প্রতিনিধি, ধর্মবিশ্বাসী ও বিশেষজ্ঞদের ১৬ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দলের বৈঠক হয়। চীন সরকারের পলিটিক্যাল কনস্যুলেটিভ কনফারেন্সের চেয়ারম্যান ওয়াং ইয়াংয়ের তত্ত্বাবধানে ওই বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। ডিসেম্বরের শুরুর দিকে ম্যাকাওয়ের এক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে বিষয়টির প্রতি ইঙ্গিত করেন দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং।

চীনের বিরুদ্ধে সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলিমদের বন্দি শিবিরে আটকে রেখে যখন মৌলিক মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং নিপীড়নের অভিযোগে বিশ্বের বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন ও দেশ সমালোনায় মুখর তখন সব ধর্মীয়গ্রন্থ পুনর্লিখনের এই পরিকল্পনার তথ্য এলো।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

35 thoughts on “পবিত্র কোরআনে সংশোধন আনবে চীন, কমিটি গঠন!

  1. গোলাম মোস্তাফা

    - Edit

    Reply

    পবিত্র আল কোরআন পরিবর্তন করে কোন লাভ নেই, কারণ মুসলমানরা সেটা কখনো গ্রহণ করবে না। কেউ যদি পবিত্র কোরআন বিকৃত করে রচনা করতে চায়’ সেটা পৃথিবী থেকে বিলুপ্ত হয়ে যাবে। ওরজিনাল পবিত্র আল-কোরআন মহান আল্লাহ যেভাবে নাযিল করেছেন ঠিক সেভাবেই কেয়ামত পর্যন্ত আল্লাহ তাআলা সংরক্ষণ করবেন।

    1. শায়েক ইসলাম চৌধুরী

      - Edit

      Reply

      পবিত্র কুরআন সর্বশ্রেষ্ঠ আসমানী কিতাম। এই মহা গ্রন্থ নতুন করে লেখলে তা আমরা গ্রহণ করবনা কারণ এটি আসমানী কিতাব যা মানুষের তৈরী কোনো গ্রন্থ নয় এটি সৃষ্টিকর্তার তৈরী।

    2. Commentসমাজতন্ত্র ধংসের শুরু হতে যাচ্ছে চিনে।প্রেসডেন্ট মনে হয় এত বড় ভুল করবেনা।এটা চিন্তার উর্ধে।Truth not be proved

  2. Comment Trying to bring any sort of amendment to the holy Quran would be the biggest political mistake of China and probably the beginning of it’s end. The strongest force in the world is the unity of Muslims and this will undoubtedly bring every Muslim united against China.

  3. যারা কোরআন কে সংশোধন করতে চাচ্ছে শেষ পর্যন্ত তারাই সংশোধন হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহন করবে।।।।।। ইনশাআল্লাহ।।।।

  4. Commentশেষ পর্যন্ত দেখুন কি হয়।
    কারণ, পবিত্র কোরআনকে যারা সংশোধন করতে গেছে তারাই সংশোধন হয়ে ইসলাম গ্রহণ করেছে।
    যদি চীন ও সংশোধন করতে যায়,, তারাও সংশোধন হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করবে। ইনশাল্লাহ্ 💟
    মানবতার বিরুদ্ধে যায় এমন একটি কথাও ইসলাম ধর্মে নেই।
    কারণ, পবিত্র কোরআন মানব রচিত নয়।
    মহান আল্লাহ তায়ালা যুগপোযোগী করে কোরঅান নাযিল করেছেন।।।

  5. Commentশেষ পর্যন্ত দেখুন কি হয়।
    কারণ, পবিত্র কোরআনকে যারা সংশোধন করতে গেছে তারাই সংশোধন হয়ে ইসলাম গ্রহণ করেছে।
    যদি চীন ও সংশোধন করতে যায়,, তারাও সংশোধন হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করবে। ইনশাল্লাহ্ 💟
    মানবতার বিরুদ্ধে যায় এমন একটি কথাও ইসলাম ধর্মে নেই।
    কারণ, পবিত্র কোরআন মানব রচিত নয়।
    মহান আল্লাহ তায়ালা যুগপোযোগী করে কোরঅান নাযিল করেছেন।।।

  6. কুরআন হচ্ছে মুসলিম জাতির প্রাণ । ইহা নতুন করে তৈরি করে লাভ নেই। কেননা, মুসলিমরা ইহা কখনো গ্রহণ করবে না। তাছাড়া ইহা তো আল্লাহ্ তায়ালা রক্ষা করবেন। ইহা চীনের একটি বড় ষড়যন্ত্র । যাই হোক মুসলিমরা ইহা মেনে নেবে না ।
    আর চীন যেহেতু ধমীর্য় বিষয়ে বাড়াবাড়ি করছে, তাই চীনাদের ধ্বংস অনিবার্য । ইহা আমরা আমাদের পূর্ববর্তী জাতি থেকে জানতে পারি ।যারা ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করছিল, তাই তাদের ও ধ্বংস হয়েছিল।।।

    1. চিনের বলদে, কি কয়?আরে ধর্ম হলো বিশ্বাস, বিশ্বাসকে কি সংশোধন করা যায়।।।।

  7. মোঃ সেলিম

    - Edit

    Reply

    পবিত্র কোরআনের সংশোধনের অধিকার আল্লাহ রাব্বুল ইজ্জত কাউকে দেয়নি। তিনি পবিত্র কোরআনের হেফাজত নিজেই করবেন। কেয়ামত পর্যন্ত পবিত্র কোরআনের জের জবর নোক্তা কেউ-ই পরিবর্তন করতে পারবে না। যেই এ কাজটা করতে চেয়েছে সে-ই ধ্বংস হয়েছে। এটা আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের চেলেঞ্জ। বিগত ১৪০০ বৎসরে পবিত্র কোরআনের ৬৬৬৬ (ছয় হাজার ছয়শত ছেষট্টি) খানা আয়াতের কোন ব্যক্তি, রাজা, বাদ্শা কেউই কোন পরিবর্তন পরিবর্ধন করতে পারেনি। বরঞ্চ উল্টো পবিত্র কোরআনের কাছে আত্ম সমর্পণ করতে হয়েছে।

  8. চীনের ঘোষনাই প্রমান করে দিলো, উইঘুর মুসলিমদের অমানবিক নির্যাতনের পরও ওদের ধর্মচ্যুত করতে না পেরে ভিতরে ওরা দুর্বল হয়ে পড়ছে……
    মহান আল্লাহ নিজে কোরআন শরীফ রক্ষা করবেন ইনশাআল্লাহ, রাজা ফার্ডিন্যান্ড স্পেন এ, রাশিয়া উজবেক,তুর্কি তেও কোরআন পুরিয়ে ও নিষিদ্ধ করেছিলো কিন্তু পরিনাম ছিলো ভয়াবহ, তবে সবথেকে খারাপ দিক আমরা মুসলিমরা আজ এদের বিরুদ্ধে দারাতে ভয় পাই, আর আমোদে মেতে থাকতে চাই…….

  9. আল্লাহ পবিত্র কুরআনে বলেন,
    “আমি এই কুরআান নাজিল করেছি আমিই একে রক্ষা করব।”
    তাই চীন কেন সারা পৃথিবী একসাথে হলেও এর একটি আয়াত তো দূরের কথা এর একটা
    যের, যবর, কিংবা নোকতাও পরিবর্তন করতে পারবে না। চাইলে চেষ্টা করে দেখতে পারে।

  10. কিয়ামত খুব সন্নিকটে কিয়ামত হওয়ার পূরবে সর্বপ্রথম আল্লাহ কোরআন করে তোলে নিবেন। আমাদের সবার উচিত এটার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো।

  11. Comment যতই ক্ষমতাধর হোক না কেন চীন কোরআনের পরিবর্তন কেউ করতে পারবে না চ্যালেঞ্জ দিলাম চীনকে চীন এরকম আরও 1000 গুণ শক্তিশালী হলেও কোরআনকে কিছুই করতে পারবেনা কারণ সবকিছুর উঠতে হলো কোরআন আর এই কোরআনের জন্য প্রয়োজনে মৃত্যুদন্ড পর্যন্ত মেনে নিতে রাজি কেউ কোরআন কে নিয়ে খারাপ মন্তব্য করলে বা খারাপ কিছু লিখার চেষ্টা করলে তার পরিণতি সবচাইতে খারাপ হবে ভয়াবহ হবে

  12. Comment 3 নিজেকে নিজে অনেক ক্ষমতাধর মনে করতেছো তো চীনের ধ্বংস অনিবার্য এজন্যই তারা এটা করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে আল্লাহ মানুষকে উপরে উঠে আমার শশুর করে নিচে নামিয়ে দে এখন চীনকে আল্লাহতালা ওরকমই করবে আল্লাহর উপরে কেউ নেই একাই আমাদের মালিক উনার সাথে বেয়াদবি করা মানে ধ্বংস এখন চীনের ধ্বংস হওয়ার সময় এসে গেছে আল্লাহ এক এবং অদ্বিতীয় তার কোন শরীক নেই হযরত মুহাম্মদ সাঃ আল্লাহর প্রেরিত রাসুল

  13. Commentমক্বার বড় পন্ডিত কাফেররা পবিত্র কুরআনের একটা অক্ষর ও লাড়তে পারে নি, আর তোমাদের মত চিনা`রা কতটুকু কি করতে পারবে আমরা মুসলমানরা জানি,,তোমাদের মতের মত বানানো করআন মুসলমানের সন্তান কখনো গ্রহন করবে না,,

  14. মোঃ উজ্জল হোসন

    - Edit

    Reply

    আল কোরআনেকে সংশোদন করা যায় না। এটা মহান আল্লাহ্ তাআলা নাজীল করেছেন । এটায় কোন ভুল নাই।এটায় ভুল ধরতে গেলে তারা নিজেরাই সংশোধন হয়ে যাবে পবিএ কোরআন হেফাজত মহান আল্লাহ্ নিজেই করবেন। ইন্নশা আল্লাহ্

  15. জান্নাত

    - Edit

    Reply

    Comment তোমাকে যে লালনপালন করছেন এটা তারই কথা। মগা,এটা তোর চলার ম্যানুয়েল। এটা কখনও পরিবর্তন হয় না।এটার বিন্দু পরিমান পরিবর্তন আনার চেষ্টা করলে, তাহার নিজের পরিবর্তন /ধ্বংস হয়ে যাবে

  16. Comment ওরা মূর্খের দল। ওদের ধংস এগিয়ে আসতেছে। আল্লাহ ওদের হেদায়াত দিক। আমিন।

  17. কোরআন সংশোধন করতে এসে আশা কনি ওরা সংশোধিত হয়ে কোরআনের মানুষ হবে ইনশাআল্লা। আর তা না হলে ধ্বংস অনিবা।

  18. যারা কোরআন কে সংশোধন করতে চাচ্ছে শেষ পর্যন্ত তারাই সংশোধন হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহন করবে।।।।।। ইনশাআল্লাহ।।।।

  19. ইমানদার আলেমগন যতদিন পৃথিবীতে আছে ততদিন কোরঅান বিলুপ্ত হবে না (উদ্ধৃত ঃ মুসলিম শরীফ)

মন্তব্য