বিশ্বের সেরা ১০টি নাইন এমএম পিস্তল ও সেগুলোর দরদাম

আজ গুলি করে আপনাদের বুক ঝাঁঝরা করে দেবো, আমার কাছে আছে পিস্তল! কি ভয় পেলেন? ভয় পাওয়ার কিছু নেই। পিস্তল শুধু খারাপ মানুষের কাছেই থাকে না, ভালো মানুষদের কাছেও থাকে। অনেক সময় নিজের আত্মরক্ষার জন্য পিস্তলের দরকার হয়। তাই পিস্তল সম্পর্ক যদি আপনার আগ্রহ থাকে, কোন পিস্তলগুলো বিশ্বের সেরা যদি তা জানতে চান তাহলে পড়ে ফেলুন আমাদের এই প্রতিবেদনটি। আজ আপনাদের জানাবো বিশ্বের সেরা দশটি নাইন এমএম পিস্তল ও সেগুলোর দরদাম নিয়ে। তো চলুন শুরু করা যাক_

১০) দ্য এফএন হাস্টেল FNX-9

এই পিস্তটি দীর্ঘমেয়াদী টেকসই। মানে আপনি যদি বেশি দিন টিকিয়ে রাখার জন্য পিস্তল কেনেন তাহলে এটা হতে পারে আপনার প্রথম চয়েস। এটি ব্যবহার করাও খুব সহজ। আর এই পিস্তলটির টার্গেট খুবই পারফেক্ট। গুলি ছুড়লে টার্গেট থেকে এক চুলও এদিক ওদিক হবে না। পিস্তটির বর্তমান বাজার মূল্য ৫০০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৪০ হাজার টাকা)।

৯) দ্য গ্লক 17 Gen 4

জেনারেশন ৪ হলো গ্লকের একদম লেটেস্ট পিস্তল। পিস্তলের মার্কেটে গ্লক একটি নামি প্রতিষ্ঠান, তাই তাদের লেটেস্ট এই পিস্তলের ওপর আপনি আস্থা রাখতেই পারেন। খুবই ভালো মানের পিস্তল এটি, ওজন ২২ আউন্স আর লম্বায় সাড়ে সাত ইঞ্চি। তাই বহন করা খুবই সহজ, গুলি করেও খুব আরাম পাবেন, কারণ এর হাতলটি খুবই আক্রমণাত্মক ভাবে তৈরি। এই পিস্তটি কিনতে চাইলে আপনাকে খরচ করতে হবে ৫৫০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৪৪ হাজার টাকা)।

৮) দ্য ওয়াল্টার P99 AS610

পিস্তলের মধ্যে বর্তমানে এটা অনেক জনপ্রিয়। কারণ খুব বেশি হাতের নিয়ন্ত্রণ ছাড়াই এটা দিয়ে সঠিক টার্গেটে গুলি ছোড়া যায়। সহজেই ম্যাগজিন চেঞ্জ করা যায়। তাছাড়া এটার গ্রিপ খুব ভালো কাজ করে, তাই তাড়াহুড়ো করে গোলাগুলি করলেও হাত থেকে পড়বে না সহজে। বডিও খুব স্ট্রং। এই পিস্তটি কিনতে চাইলে আপানাকে খরচ করতে হবে ৬০০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৪৮ হাজার টাকা)।

৭) দ্য টাউরাস-PT92

গ্লামার্স পিস্তল নিয়ে যারা স্বপ্ন দেখেন, তাদের সেই স্বপ্ন পূরণের জন্য দ্য টারাস-PT92 পিস্তল। ব্রাজিলের তৈরি এই পিস্তলটি দিয়ে শুধু সিঙ্গেল নয়, চাইলৈই আপনি ডবল গুলিও ছুড়তে পারবেন। মানে প্রতি ট্রিগারে দুটি করে গুলি লক্ষের দিকে ছুটে যাবে। অত্যন্ত পারফেক্ট, সুন্দর ও আরামদায়ক ডিজাইনের এই পিস্তটির মূল্যও কম। মাত্র ৫০০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৪০ হাজার টাকা)।

৬) দ্য বেরেট্টা-92FS

এই পিস্তলটি ক্লকের হার্ড কম্পিটিটর। কারণ এটিও অনেক টেকসই। তবে গ্লকের সঙ্গে এর মূল পার্থক্য হল চাইলে এটি দিয়েও ডবল গুলি ছোড়া যায়। অত্যন্ত আকর্ষণীয় ব্লাক কালারের গ্লামা্র এই পিস্তটির পেতে চাইলে আপনাকে খরচ করতে হবে ৭০০ মার্কিন ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৫৬ হাজার টাকা)।

৫) দ্য সিগ সুয়ার-P226

226-BLK-45-Left

আপনি যদি একসঙ্গে অনেক সুবিধা চান তাহলে এই পিস্তটি আপনার জন্য। বেরেটা এবং গ্লকের ফিচারগুলো একসঙ্গে পাবেন আপনি এই পিস্তলটিতে। তাই ওজনও একটু বেশি। আকর্ষনীয় এই পিস্তলটি কিনতে হলে আপনাকে গুনতে হবে ৯০০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৭২ হাজার টাকা)।

৪) দ্য বেবি ঈগল টু

আপনি কি জেমস কুপারের ফ্যান? যদি তার ফ্যান হয়ে থাকেন তাহলে এই পিস্তলটি আপনার জন্য। পিস্তলটি বহন করা খুবই সহজ, এটির ওজন মাত্র ৪১ আউন্স। লম্বায় ৫.৭৫ ইঞ্চি। দারুণ এই পিস্তলটি আপনি পাবেন মাত্র ৬৩০ ডলারে (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৫১ হাজার টাকা)।

৩) দ্য স্প্রিংফিল্ড XD-9

বিশ্বের সেরা পিস্তলের র‍্যাংকিংয়ে তিন নম্বরে আছে পিস্তটি। তো বুঝতেই পারছেন কেমন হবে এর ফিচার। এটা বিশ্বের অন্যতম সেরা পিস্তল। খুবই ছোট সাইজের পিস্তল এটি, কিন্তু ফিচার কোন পিস্তলের থেকে কম নয়। ১৯ রাউন্ডের ম্যগজিন রয়েছে এতে। পিস্তলটি দেখতে খুবই সুন্দর। পিস্তলটি কিনতে হলে আপনাকে খরচ করতে হবে ৫৫০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৪৪ হাজার টাকা)।

২) দ্য ইএএ উইটনেস এলিট ম্যাচ

যদি আপনি পিস্তল চালানোতে নতুন হয়ে থাকেন তবে এটি আপনার জন্য পারফেক্ট। কারণ এটি অপারেট করা খুবই সহজ। কিন্তু সব ধরণের ফিচার রয়েছে এতে। এটার ম্যাগজিনের ক্যাপাসিটি অনেক বেশি। একসঙ্গে প্রায় ১৮ রাউন্ড গুলি এটার ম্যাগজিনে থাকে। পিস্তটি কিনতে হলে আপনাকে খরচ করতে হবে ১০৫৬ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৮৫ হাজার টাকা)।

১) দ্য CZ-75 SP-01

বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে আধুনিক ও আকর্ষনীয় পিস্তল এটি। একেবারে আর্মি কোয়ালিটি পিস্তল। অনেক দিন যেমন টিকে তেমনি সব ধরণের ফিচার রয়েছে পিস্তলটিতে। ব্যবহার করাও অত্যন্ত সহজ। আমাদের র‍্যাংকিংয়ে পিস্তলটি প্রথম অবস্থানে আছে। যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি দুর্দান্ত ডিজাইনের এই বিশ্বসেরা পিস্তলটির গর্বিত মালিক হতে চাইলে আপনাকে খরচ করতে হবে মাত্র ১৭০০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ১ লাখ ৩৬ হাজার টাকা)।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

One thought on “বিশ্বের সেরা ১০টি নাইন এমএম পিস্তল ও সেগুলোর দরদাম

মন্তব্য