আপডেট : ২১ এপ্রিল, ২০২০ ২১:২৯

করোনাকালে হ্যান্ডশেকের দিন শেষ; আসছে লেগশেক

তাহমিনা ইসলাম
অনলাইন ডেস্ক
করোনাকালে হ্যান্ডশেকের দিন শেষ; আসছে লেগশেক
তাঞ্জানিয়ার প্রেসিডেন্ট লেগশেক করছেন বিরোধীদলীয় নেতার সঙ্গে

হ্যান্ডশেকের দিন বুঝি আর থাকলো না। পশ্চিমা দেশগুলো শুভেচ্ছা বিনিময়ের এই প্রথার বিরুদ্ধে ইতমধ্যে প্রচারণা শুরু করেছে বেশ জোড়েশোরেই। করোনা থেকে মুক্তি পেতেই হ্যান্ডশেকের বিরুদ্ধে এই প্রচার। তবে তাই বলে তো আর শুভেচ্ছা বিনিময় থেমে থাকছে না। শুভেচ্ছা বিনিময়ের নতুন প্রথা ইতিমধ্যে আবিস্কারও হয়েছে। তা হচ্ছে পায়ে পা মিলিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময়। যাকে বলা যায় ‘লেগশেক’। পশ্চিমা বিশ্বে করোনাকালে লেগশেক বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। তবে ব্যঙ্গ করে লেগশেকের তারা নাম দিয়েছে উহান শেক। এই উহানশেকই দখল করছে গ্রীক পৈারানিক সময়ে আবিস্কার হওয়া হ্যান্ডশেকের জায়গা। একদিক দিয়ে বিচার করলে ‘উহানশেক’ চায়নিজদের সাংস্কৃতিক বিজয় বললে ভুল হবে না। 

উহান শেক আসলে হ্যান্ড শেকের মতই দুজন দুজনকে পা দিয়ে স্পর্শ করা। প্রথমে এই লেগশেকের সূত্রপাত চায়নাতে। একটি ফান ভিডিওতে দেখা গেছে দুই চায়নিজ একে অপরের দিকে এগীয়ে আসছে । একজন হাত বাড়িয়ে হ্যান্ডশেক করতে এলে অপরজন তাকে নো’ বলে থামিয়ে দিয়ে দুজন দুজনকে পা দিয়ে স্পর্শ করে। ভিডিওটি ইতিমধ্যে কয়েক মিলিয়ন শেয়ার হয়েছে। আর শুরুতে ফান হিসেবে থাকলেও করোনাকালে হাতের পরিবর্তে পা দিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময়ের প্রথাটি গ্রহণ করেছে পশ্চিমা বিশ্ব। সম্প্রতি একটি ছবিতে দেখা গেছে তাঞ্জিনিয়ার প্রেসিডেন্ট পা দিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করছেন বিরোধী দলের এক নেতার সঙ্গে।

কয়েক দিন আগে তেল উৎপাদনকারী দেশগুলোর (ওপেক) সেক্রেটারি জেনারেল মোহাম্মদ বারকিন্ডোকে দেখা গেছে রাশিয়ার জ্বালানীমন্ত্রী আলেকজান্ডার নোভাকের সাথে ফুটশেক করছেন ।

বৃটেনের স্বাস্থ্য আধিকারিকরা পরামর্শ দিয়েছেন, "সামাজিক দূরত্ব" কৌশলটির অংশ হিসাবে আনুষ্ঠানিকভাবে হ্যান্ডশেকিংকে নিরুৎসাহিত করে লেগশেককে শুভেচ্ছা বিনিময়ের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করা। বৃটেন ইতিমধ্যে হ্যান্ডশেক বন্ধ করতে প্রচারে নেমেছে।

ইতালির করোনাভাইরাস সম্পর্কিত বিশেষ কমিশনার অ্যাঞ্জেলো বোরেলি ইতিমধ্যে ইতালীয়দের হ্যান্ডশেক না করতে পরামর্শ দিয়েছেন, একই সময়ে  ফ্রান্সের স্বাস্থ্যমন্ত্রী অলিভিয়ার ভেরান তাঁর দেশবাসীকে দেশটির ঐতিহ্যবাহী ফ্রেন্সকিস ত্যাগ করতে বলেছিলেন।

করোনাভাইরাস নিয়ে সচেতন ও ভাইরাস রোধে সফল দেশগুলো তাদের ঐতিহ্যবাহী শুভেচ্ছা বিনিময়ের প্রথাগুলো বাদ দিতে নাগরিকদের নোটিশ দিয়েছেন।  ইতিমধ্যে নিউজিল্যান্ডের মাউরী অধিবাসীদের প্রথাগত হঙ্গি অভিবাদন না করতে সতর্ক করা হয়েছে।হঙ্গি হচ্ছে দুজন একে অন্যের নাকে  নাক চেপে কপাল স্পর্শ করা। আরব আমিরাতেও নাকে নাক ঘষে অভিবাদন জানানোর প্রথা রয়েছে। সেটাও রাষ্ট্রিয় ঘোষনায় বন্ধ হয়েছে। বন্ধ হয়েছে আরব দেশগুলোর গালে গাল ঘষাও। আবার কনুইশেকটিও জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। তবে সব কিছুর উপরে রয়েছে লেগশেক বা উহান শেক

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

উপরে