আপডেট : ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:৩১

বাঁশের চালের ভাত খেয়েছেন কখনো? জেনে নিন উপকারিতা!

অনলাইন ডেস্ক
বাঁশের চালের ভাত খেয়েছেন কখনো? জেনে নিন উপকারিতা!

বাঁশের চাল, এটা মুয়ালারি নামেও পরিচতি। এটি মরা বাঁশের অঙ্কুরিত বীজ, যা একটি বাঁশের জীবনকালের শেষ দিকে হয়। গবেষণা মতে, এটা বনাঞ্চলে বসবাসরত আদিবাসীদের আয়ের গুরুত্বপূর্ণ ও প্রধান উৎস। এই চাল সহজলভ্য নয়। কারণ, যেখান থেকে এই চাল সংগ্রহ করা হয় সেই বয়স্ক গাছে ফুল ধরতে অনেক বছর লাগে।

রান্নার ক্ষেত্রে এটা অন্য চালের মতোই এবং এর স্বাদ খুবই মিষ্টি। রান্না করার পর যে গঠনগত উৎকর্ষতা পাওয়া যায় সেখানেই এর ভিন্নতা রয়েছে। এটা বেশি চিবাতে হয় ও ভেজাভেজা ভাব রয়েছে এবং এই চাল প্রায় খিচুড়ি রান্নার কাজে ব্যবহৃত হয়।

বাঁশের চাল নিয়ে করা এক গবেষণায় বলা হয়, এতে যে কোনো ধরনের চাল ও গমের চেয়েও উচ্চমাত্রায় প্রোটিন রয়েছে। একই সাথে এটি হাড়ের বিভিন্ন জয়েন্টে ব্যথা, পিঠের ব্যথা ও বাতজনিত ব্যথার জন্য খুবই উপকারী। যাদের কোলেস্টেরলের সমস্যা রয়েছে তারা বাঁশের চাল নিয়মিত খেলে এটি কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে ভূমিকা রাখবে। এছাড়াও এটার ডায়বেটিস প্রতিরোধের গুণ আছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, যারা স্বাস্থ্যগত সমস্যায় ভুগছেন ওষুধি গুণ থাকার কারণে বাঁশের চাল তাদের কাছে স্মার্ট পছন্দ হতে পারে। আর এই কারণে তারা আশা করছেন আগামী পাঁচ বছরে বাঁশের চাল ভারতের মুদি দোকানের বাজারের বড় একটা অংশ দখল করবে।

 

এটা গর্ভবতী মায়ের জন্য ভিটামিনের অভাব পূরণে খুবেই উপকারী এবং কফ, পিত্ত ও দোষের মতো সমস্যাগুলো নিরাময়ের জন্যও খুব পরিচিত।

 

এটি খাবারের জগতে নতুন, যা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারে ভরপুর। যদিও গবেষকরা এর ব্যাপক সম্ভবনার বিষয়টি অনুভব করলেও ব্যবসায়ীরা ভাবছেন- সময়ই বলে দেবে ভারতের মানুষ এটা পছন্দ করবে কিনা।

সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া

উপরে