আপডেট : ১৮ জুলাই, ২০১৭ ১৮:৪৪

অপহরণ নাটক: ফেঁসে যাচ্ছেন ফরহাদ মজহার

অনলাইন ডেস্ক
অপহরণ নাটক: ফেঁসে যাচ্ছেন ফরহাদ মজহার

অপহরণ নাটক সাজিয়ে ফেঁসে যাচ্ছেন ফরহাদ মজহার। নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় মিথ্যা তথ্য দেয়ার অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের কথা ভাবছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৮ জুলাই) ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কার্যালয়ে ফরহাদ মজহারকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ আভাস দেন ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার আব্দুল বাতেন।

তিনি বলেন, ‘আমাদের হাতে যে তথ্য এসেছে, তাতে মনে হচ্ছে তিনি অপহৃত হননি। ফরহাদ মজহার আদালতে ও পুলিশের কাছে যে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন, তার সঙ্গে পুলিশি তদন্তে পাওয়া তথ্যের যথেষ্ট বৈসাদৃশ্য বা গরমিল রয়েছে। বিষয়টি উনার মাধ্যমে যাচাই করা হবে।’

আব্দুল বাতেন বলেন, ‘তিনি যদি মিথ্যা তথ্য দিয়ে থাকেন, তাহলে তার বিরুদ্ধে কীভাবে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া যায়, তা ভেবে দেখা হচ্ছে।’

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ফরহাদ মজহারকে রাজধানীর শ্যামলীর হক গার্ডেনের বাসা থেকে ডিবি কার্যালয়ে এনে প্রায় আড়াই ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ।

পুলিশ বলছে, নিজের নিখোঁজের বিষয়ে ফরহাদ মজহার আদালতে যে জবানবন্দি দিয়েছেন পুলিশি তদন্তে তার সত্যতা মেলেনি। যে কারণে মিথ্যা তথ্য দেয়ার অভিযোগে ফরহাদ মজহারের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ২১১ ধারায় মামলা হতে পারে। আব্দুল বাতেন বলেন, ‘কেউ মিথ্যা তথ্য দিলে, মিথ্যা অভিযোগে মামলা করলে পেনাল কোডের (দণ্ডবিধি) ২১১ ধারায় তার বিরুদ্ধে মামলা করার বিধান রয়েছে।’

এর আগে ১৩ জুলাই এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে ফরহাদ মজহার নিখোঁজের ঘটনাকে নাটক মনে হয় বলে মন্তব্য করেন আইজিপি একেএম শহীদুল হক। যদিও আদালত এবং সংবদমাধ্যমে অপহৃত হয়েছিলেন বলে দাবি করেছেন ফরহাদ মজহার।

গত ১২ জুলাই নিজের অপহরণের ঘটনা নিয়ে ব্রিটিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ানকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ‘ আমার সঙ্গে যা ঘটেছে তা প্রকাশ করতে আমি ভয় পাই না। আমি এখনও মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। এটি কাটিয়ে উঠতে অনেকটা সময় লাগবে। তবে কোন ভাবেই আমাকে থামিয়ে দেয়া যাবে না। মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে আমার প্রচারণা অব্যাহত থাকবে। বলপূর্বক অন্তর্ধান থেকে জীবিত হয়ে উঠলে মানুষ রহস্যপূর্ণভাবে নীরব হয়ে যায়। আমি যখন কাজে ফিরে আসব, তখন এই ইস্যু নিয়ে আমি কাজ করবো। আমাদের বাধ্যতামূলক অন্তর্ধানের (গুমের) এই সংস্কৃতি শেষ করতে হবে।’

হাসপাতালের বিছানায় গার্ডিয়ানের দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক প্রতিনিধি মাইকেল সাফিকে ফরহাদ মজহার এই সাক্ষাৎকার দেন। গার্ডিয়ানকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, বাংলাদেশে বিরোধী নেতাকর্মীদের গুম বা অপহরণের যে ধারা চলছে তারই সর্বশেষ শিকার তিনি। তিনি বলেন, ‘অপহরণকারীরা খুব কর্কশ ভাষা ব্যবহার করেছে। আমার মোবাইল ফোন নিয়ে গিয়েছিল। আমার চোখ বেঁধে ফেলেছিল। তারপর তাদের হাঁটু দিয়ে আমাকে মিনিবাসের ফ্লোরের ওপর চেপে ধরে রেখেছিল।’

গত ৩ জুলাই ভোর ৫টায় রাজধানীর শ্যামলীর নিজ বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন ফরহাদ মজহার। এরপর তার মোবাইলফোন থেকে বেশ কয়েক দফায় ফোন করে মুক্তিপণ দাবি করা হয়। রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হওয়ার প্রায় ১৯ ঘণ্টা পর যশোরের নওয়াপাড়া থেকে উদ্ধার হন ফরহাদ মজহার।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে