আপডেট : ১২ এপ্রিল, ২০১৬ ১৫:১৪

ভয়ঙ্কর মা!

অনলাইন ডেস্ক
ভয়ঙ্কর মা!

মায়ের স্নেহে সন্তানেরা বড় হয়ে উঠবে এটাই স্বাভাবিক। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এমনটাই হয়ে থাকে। এর যে ব্যতিক্রম নেই, তা নয়। সেই ব্যতিক্রমের দলে রয়েছে কলাম্বিয়ার মারগারিতা দি জেসাস জাপাতা মোরেনো। এই মায়ের কান্ড শুনলে হতবাক হয়ে যাবে যে কেউ।

৪৮ বছর বয়সী মোরেনোর সন্তান জম্মদানে কোনো কার্পণ্য করেননি। এই বয়সে তিনি ১৪ সন্তানের মা হয়েছেন। তার একটি বাদে সবই মেয়ে। মেয়েরা যখনই একটু বড় হয়েছে, বয়সটা ১২ হয়েছে তখনই তিনি তাদের বয়স্ক লোকদের সঙ্গে ২০০ ডলারে শারীরিক মিলনে বাধ্য করেছেন। তাদের কাছে কুমারিত্ব হারানোর পর তাদেরকে দেহ ব্যবসায় নামিয়ে দিয়েছেন এই মা। প্রতিটা মেয়ের বেলায় তিনি এ কাজ করেছেন। এখন তার ঘরে একটা ৯ বছরের  মেয়ে রয়েছে। আর রয়েছে ১১ বছরের এক ছেলে। এখন তিনি তার এ দু সন্তানকে নিজের কাছে রাখতে পারছেন না। মায়ের কাছে সন্তানের নিরাপত্তা নেই দেখে রাষ্ট্র তাদের হেফাজতে নিয়েছে।
মোরেনো ব্যবসাটা বেশ ভালোই চালিয়ে যাচ্ছিলেন। কিন্তু বর্তমানে ১৪ হওয়া মেয়েটি তার ব্যবসার বারোটা বাজিয়ে দিয়েছে। বয়স ১২ হওয়ার পর থেকে মোরেনোর নিয়ম অনুযায়ী তাকে দেহ ব্যবসা করতে হচ্ছিল। ভাগ্যকে মেনে নিয়ে সে এই কাজ করে যাচ্ছিল। ৫১ বছর বয়সী কর্নেলিও ডাজা প্রথমে তার কুমারিত্ব কেড়ে নেন। তবে বয়স যখন তার ১৪ হয় তখন সে গর্ভবতী হয়ে পড়ে। ব্যবসার জন্য ব্যাপারটা মোটেও উপযোগী নয়, তাই মা তার গর্ভপাত করাতে চান। কিন্তু মেয়ে মোটেও সে পথে হাঁটতে চায় না। গর্ভপাত করাতে অস্বীকার করে। আর তখনই ব্যাপার নিয়ে নাড়াচাড়া শুরু হয়। তদন্তে সব ঘটনা প্রকাশ হয়ে পড়ে। মোরেনো দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় তাকে ২২ বছর জেল দেওয়া হয়েছে। জরিমানা করা হয়েছে ২৩ হাজার ডলার। আর শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ এনে ডাজাকে ১২ বছর জেল দেওয়া হয়েছে।

 

উপরে