আপডেট : ৪ জুলাই, ২০১৬ ১৬:৪৬

জঙ্গী হামলা থেকে বেঁচে যাওয়া ইতালীর নাগরিক যা বললেন

অনলাইন ডেস্ক
জঙ্গী হামলা থেকে বেঁচে যাওয়া ইতালীর নাগরিক যা বললেন

ঢাকার গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলা থেকে যে দুজন ইতালীয় বেঁচে গেছেন, তাঁদের একজন ওই রেস্তোরাঁরই বাবুর্চি (ডেজার্ট শেফ) জাকোপো বিওনি (৩৪)।

ইতালির টেলিভিশন চ্যানেল স্কাই টিজি২৪ টিভিকে ফোনে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বেঁচে যাওয়ার বর্ণনা দিয়েছেন বিওনি। তিনি বলেন, গুলির শব্দ শোনার সঙ্গে সঙ্গে রেস্তোরাঁর ছাদে চলে যান। এর পর পাশের একটি বাড়ির আঙিনায় লাফ দিয়ে পড়েন। হঠাৎ তাঁকে দেখে বাসিন্দারা প্রথম ভয় পেয়ে গিয়েছিলেন। পরে তাঁরা তাঁকে ভেতরে ঢোকান এবং লুকিয়ে রাখেন।

বিওনি বলেন, টেবিলে খেতে বসা ইতালির নাগরিকদের দিকে বন্দুক তাক করতে দেখে তিনি আর দ্বিতীয় চিন্তা করেননি। দৌড়ে চলে যান ছাদে।

বিওনি বলেন, শনিবার সকালে পুলিশ ওই বাসায় গিয়ে তাঁর সঙ্গে কথা বলে। বিকেলে তিনি বাসা থেকে বেরিয়ে যান।

জাকোপো বিওনি বলেন, ‘আমি দুটি জিনিস ও আমার পাসপোর্ট নিয়ে সোজা বিমানবন্দরে চলে যাই এবং প্রথম ফ্লাইট ধরি।’ ফ্লাইটটি তাঁকে ব্যাংককে নিয়ে যায়। তিনি সোমবার ইতালির বাড়িতে ফিরবেন এবং এ জন্য অপেক্ষা করতে পারছেন না।

ওই রেস্তোরাঁর বাবুর্চি বলেন, সংবাদ বা সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশিত ওই হামলার ছবি তিনি দেখতে চান না। তাঁর সুখের দিনের বাংলাদেশকেই তিনি স্মরণ করতে চান।

গত শুক্রবার রাতে ঢাকার গুলশানের রেস্তোরাঁ হলি আর্টিজান বেকারিতে দেশি-বিদেশি নাগরিকদের জিম্মি করে সন্ত্রাসীরা। সেখানে উদ্ধার অভিযান চালাতে গিয়ে জঙ্গিদের হামলায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হন। শনিবার সকালে রেস্তোরাঁয় অপারেশন থান্ডারবোল্ট পরিচালনা করে যৌথ বাহিনী। এরপর সেখান থেকে ২৬ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। এঁদের মধ্যে ইতালীয় নয়জন, সাতজন জাপানি, তিনজন বাংলাদেশি, ভারতীয় একজন রয়েছেন। বাকি ছয়জন হামলাকারী বলে জানিয়েছে সেনাবাহিনী।

এ ছাড়া ইতালির নাগরিকসহ ১৩ জনকে জীবিত উদ্ধারের কথা জানায় সেনাবাহিনী।

উপরে