আপডেট : ১ এপ্রিল, ২০১৬ ১১:৪৭

গভীর রাতে হানা দিল কালবৈশাখী

বিডিটাইমস ডেস্ক
গভীর রাতে হানা দিল কালবৈশাখী

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে আঘাত হেনেছে কালবৈশাখী ঝড়। সঙ্গে ছিল দমকা হওয়া। তবে, এতে বড়ধরণের কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।

রাত ১টায় রাজধানী ঢাকার দমকা হাওয়াসহ ঝড়োবৃষ্টি শুরু হয়। আধা ঘণ্টার হিমশীতল ঝড়ো হাওয়ার পর মুষলধারে বৃষ্টি হয়।

বৃষ্টিতে রাজধানীর অনেক সড়কে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। শুক্রবার সকালেও এই জলাবদ্ধতার দেখা মেলে।এতে নগরবাসী দুর্ভোগের শিকার হয়েছেন।

আবহাওয়া অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, রাতের ঝড়ো বৃষ্টি হয়েছে ঢাকার আশপাশের জেলাগুলোতেও। বিশেষ করে মাদারীপুরে ঝড়ো হাওয়া ও মুষলধারে বৃষ্টি হয়েছে। সেখানে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

ঢাকা বিভাগের মধ্যে ময়মনসিংহ, ফরিদপুর ও টাঙ্গাইল জেলার বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টিসহ ঝড়ো দমকা হাওয়া বয়ে গেছে। চট্টগ্রাম, কুমিল্লায়, সিলেট,  ঈশ্বরদী, সৈয়দপুরে,বরিশাল ও পটুয়াখালীতে বৃষ্টিপাতের রেকর্ড করা হয়েছে।

ঝড়ের সময় বরিশাল নগরীর বিভিন্ন স্থানে বিদ্যুৎ সরবরাহ তার ছিঁড়ে যাওয়ায় রাত ৩টা থেকে এখনও বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে।

রাতের হালকা থেকে মাঝারী মাত্রার বৃষ্টির ফলে চট্টগ্রাম, পায়রা সমুদ্র বন্দর এবং কক্সবাজারকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত তিন নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়াবিদ মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক যুগান্তরকে বলেন, উল্লেখ করার মত রাতের ঝড়ের গতি ছিল ঢাকায় ঘণ্টায় ৫৯ কিলোমিটার, ঢাকার বিমানবন্দরে ৭৪ কিলোমিটার, রাজশাহীতে ৪৪ কিলোমিটার।

আবহাওয়া অধিদফতরের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ হিমালয়ের পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গ ও নিকটবর্তী এলাকায় অবস্থান করছে। অপর একটি পূবালি লঘুচাপ পশ্চিমবঙ্গ ও এর আশপাশ এলাকা পযর্ন্ত বিস্তৃত।

এ মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গপসাগরে অবস্থান করছে। এ কারণেই দমকা হাওয়া ও বৃষ্টিপাত হচ্ছে বলেও জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

আগামী ২৪ ঘণ্টা সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

সূত্র-যুগান্তর

জেডএম

উপরে