আপডেট : ১ জুলাই, ২০২১ ১২:৩০

মগবাজারে বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১০

অনলাইন ডেস্ক
মগবাজারে বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১০

মগবাজারের বিস্ফোরণের ঘটনায় নুর নরী নামে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা ১০ জনে দাঁড়িয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনিস্টিউটের আইসিইউতে তিনি মারা যান।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনিস্টিউটের আবাসিক চিকিৎসক ডা. পার্থ শঙ্কর পাল।

নুর নবীর শরীরের ৯০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছিল। তিনি আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। পেশায় ভ্যানচালক এই ব্যক্তি এলিফেন রোডের বাটা সিগনাল এলাকার একটি মেছে থাকেন। তার বাবা পেশায় কৃষক। স্ত্রী পপি আকতার। আব্দুল্লাহ (৬) নামে তার এক সন্তান রয়েছে। তারা গ্রামের বাড়িতে থাকেন।

গত রোববার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে রাজধানীর মগবাজার ওয়্যারলেস গেট এলাকায় বিস্ফোরণ হয়। বিস্ফোরণে মূল সড়কের পাশে তিনটি ভবন প্রায় বিধ্বস্ত হয়। আশপাশের অন্তত সাতটি ভবনের কাচ উড়ে গেছে। দুমড়েমুচড়ে গেছে রাস্তায় থাকা তিনটি বাস। এ ঘটনায় গত মঙ্গলবার ‘অবহেলাজনিত মৃত্যুর’ অভিযোগ এনে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। বিস্ফোরণের কারণ ও সূত্রপাত কোথা থেকে, তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ভবনে অতি পুরোনো বৈদ্যুতিক লাইন ব্যবহার করা হচ্ছিল। ত্রুটিপূর্ণ গ্যাস ব্যবস্থাপনা থাকায় ভবনের ভেতরে গ্যাস জমে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটতে পারে। নিচতলার শরমা হাউস, বেঙ্গল মিট, গ্র্যান্ড কনফেকশনারি এবং দ্বিতীয় তলায় থাকা সিঙ্গারের অবহেলাও থাকতে পারে। তারা অননুমোদিত গ্যাস ও বৈদ্যুতিক সামগ্রী ব্যবহার করছিল বলেও প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষের অবহেলাজনিত গ্যাস সরবরাহ, বিদ্যুৎ কোম্পানির ত্রুটিপূর্ণ সংযোগ এবং সিটি করপোরেশনের অপরিকল্পিত ও গাফিলতিপূর্ণ ড্রেন খননের কারণে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে কি না, তা তদন্তযোগ্য। এজাহারে এসব সন্দেহের বিষয় উল্লেখ করে অবহেলাজনিত মৃত্যুর অভিযোগ আনা হয়েছে। তবে কাউকে আসামি করা হয়নি।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/রাসেল

উপরে