আপডেট : ৩০ এপ্রিল, ২০২১ ২১:৫৭

শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ২০ হাজার টাকা করার দাবি

অনলাইন ডেস্ক
শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ২০ হাজার টাকা করার দাবি

দেশের শ্রমজীবী মেহনতি মানুষের ন্যূনতম মজুরি ২০ হাজার টাকা করার দাবি জানিয়েছে গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন। শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) এক বিবৃতিতে সংগঠনের সভাপতি আ্যাডভোকেট মন্টু ঘোষ ও সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার এই দাবি জানান।

এই দাবি বাস্তবায়নে শ্রমিকদের প্রতি তারা আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পরার আহ্বান জানান। এসময় মহান মে দিবসকে ‘শ্রমিক শ্রেণির মুক্তি সংগ্রামের দিবস’ হিসেবেও ঘোষণা করেন।

বিবৃতিতে মহান মে দিবসের প্রাক্কালে বাংলাদেশের ৪৫ লাখ গার্মেন্ট শ্রমিকের লড়াই সংগ্রামের সংগঠন গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র দেশের সকল শ্রমজীবী-মেহনতি মানুষ ও সমাজের শ্রমিক দরদী জনতাকে বিপ্লবী অভিনন্দন জানান নেতৃদ্বয়।

এসময় তারা শ্রমিকদের জীবনের নিরাপত্তার জন্য শ্রমিকের খাদ্য, জীবন, স্বাস্থ্য এবং চাকরির নিরাপত্তা নিশ্চিত; করোনা পরিস্থিতিতে কর্মরত শ্রমিকদের ঝুঁকিভাতা, ২০ রোজার মধ্যে মূল মজুরির সমান বোনাস ও বকেয়া পরিশোধ; বাঁশখালী, রানা প্লাজা ও তাজরিনসহ সব শ্রমিক হত্যার বিচার; নিহত শ্রমিকদের আইএলও কনভেনশন অনুসারে ক্ষতিপূরণ; অবাধ ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার নিশ্চিত; সংবিধান ও আইএলও কনভেনশন অনুসারে শ্রম আইন সংশোধন; গার্মেন্ট শ্রমিকদের জীবন ধারণের উপযোগী মহার্ঘ ভাতা এবং শ্রমিকের রেশন, বাসস্থান, চিকিৎসার জন্য আসন্ন বাজেটে বরাদ্দের দাবি জানান।

বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের পক্ষ থেকে নিম্নোক্ত দাবিগুলো উত্থাপন করা হচ্ছে-
১) জাতীয় ন্যূনতম মজুরি ২০ হাজার টাকা ঘোষণা করতে হবে।
২) প্রাতিষ্ঠানিক-অপ্রাতিষ্ঠানিক-নির্বিশেষে সব শ্রমজীবী মানুষের জীবন-স্বাস্থ্য, চাকরি-কর্মসংস্থান এবং খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।
৩) বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে বাঁশখালীর শ্রমিক হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। আইএলও কনভেনশন ১২১ অনুসারে ক্ষতিপূরণ, আহতদের সুচিকিৎসা-পুনর্বাসন নিশ্চিত করতে হবে।
৪) ঈদের আগে পাটকল ও গার্মেন্টসহ প্রাতিষ্ঠানিক-অপ্রাতিষ্ঠানিক সব সেক্টরের শ্রমিক-কর্মচারীদের বকেয়া বেতন-ভাতা ও এক মাসের মূল মজুরির সমপরিমাণ বোনাস দিতে হবে।
৫) আইএলও কনভেনশন ৮৭ ও ৯৮ মোতাবেক অবাধ ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার নিশ্চিত করাসহ বাংলাদেশের সংবিধান ও আইএলও কনভেনশন অনুসারে শ্রমআইন ও শ্রমবিধিমালা প্রণয়ন ও কার্যকর করতে হবে।
৬) রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল, চিনিকলসহ বন্ধকৃত সব কলকারখানা চালু করতে হবে।

উপরে