আপডেট : ২১ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:৫৬

পানি সংকট, ভোগান্তিতে সহস্রাধিক পরিবার

অনলাইন ডেস্ক
পানি সংকট, ভোগান্তিতে সহস্রাধিক পরিবার

গত দুই সপ্তাহ ধরে কিশোরগঞ্জের ভৈরব শহরে পৌরসভার সাপ্লাইয়ের পানি না পাওয়ায় ভোগান্তিতে পড়েছে সহস্রাধিক পরিবার। রমজানে রোজার সময় সাহরি, ইফতারসহ নিত্য প্রয়োজনীয় কাজে ব্যবহারের জন্য পানির সংকটে পড়েছে পরিবারগুলো।

বিক্ষুদ্ধ গ্রাহকরা খালি কলসি নিয়ে পানির দাবিতে আজ বুধবার দুপুরে পৌর এলাকায় ঘোড়াকান্দ জব্বার জুটমিল সড়কে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছে। এছাড়া দ্রুত সমস্যা সমাধান না হলে পৌরসভা ঘেরাওয়ের আল্টিমেটাম দিয়েছেন তারা। তবে নব নির্বাচিত মেয়র লাইনে ত্রুটির কারণে পানি সরবরাহে বিঘ্ন ঘটতে পারে বলে জানিয়েছেন এবং দ্রুত পানি সরবরাহের আশ্বাস দিয়েছেন।

জানা গেছে যে, ১৯৯৯ সালে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর দেড় লাখ গ্যালন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন ভৈরবে ওয়াটার প্লান্ট ট্রিটমেন্ট বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ স্থাপিত করেন। যার জন্য ব্যয় হয়েছিলো প্রায় ৮ কোটি টাকা ।পরে ২০০৭ সালে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর পৌরসভার কাছে তা হস্তান্তর করেন। শুরু থেকে পৌরসভা দুই শতাধিক গ্রাহক নিয়ে যাত্রা শুরু করে। এখন পৌর শহরের ভৈরব-বাজার, ভৈরবপুর, কমলপুর, ঘোড়াকান্দা ও পঞ্চবটি গ্রামের কিছু অংশে প্রায় ৫৫৮ জন গ্রাহক রয়েছে।

ঘোড়াকান্দা, ভৈরবপুর, পঞ্চবটি ও কমলপুরসহ বেশ কয়েকটি এলাকার গ্রাহকরা জানান, গত ৭/৮ মাস যাবৎ পানি সরবরাহ ঠিক মতো পাচ্ছে না। বিভিন্ন সময় পানি শাখা বিভাগে ও সাবেক পৌর মেয়রের কাছে অভিযোগ করে ও কোনো কাজ হচ্ছে না।

সাধনা বেগম, রহিমা বেগম, জোহেরা বেগম, সেলিনা বেগম বলেন, প্রতিদিন সকালে ও বিকেলে পানি সরবরাহের কথা থাকলেও পানি পাচ্ছি না। পানি না পাওয়ায় বাচ্চাদের নিয়ে চরম কষ্টের মধ্যে আছি। আমরা পানি চাই, পানি। পানি না পেলে আমরা বাঁচবো কি করে।

ভৈরব পৌরসভার সহকারি প্রকৌশলী মো. শাজাহান মিয়া জানান, লাইনে ত্রুটির কারণে পানি সরবরাহে বিঘ্ন ঘটতে পারে। দ্রুত পানি সরবরাহেরর সমস্যা সমাধান হবে।

এ বিষয়ে পৌরসভার মেয়র ইফতেখার হোসেন বেণু সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন, পুরনো লাইনে ত্রুটির কারণে হয়তো পানি সরবরাহে সমস্যা হতে পারে। তবে সমস্যা সমাধানে দ্রুত ব্যবস্থা নিয়ে পানি সরবরাহের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপরে