আপডেট : ১৪ আগস্ট, ২০১৬ ১০:২৮

ঋণমুক্ত হওয়ার জন্য মেনে চলুন ৬ বিষয়

অনলাইন ডেস্ক
ঋণমুক্ত হওয়ার জন্য মেনে চলুন ৬ বিষয়

বহু মানুষই রয়েছেন, যারা ঋণের জালে জর্জরিত। কিন্তু ঠিক কোন উপায়ে ঋণমুক্ত হওয়া যাবে, তা নিয়েও কোনো কূল-কিনারা পান না। এ লেখায় দেওয়া হলো কয়েকটি উপায়, যার মাধ্যমে আপনি ঋণমুক্ত হতে পারবেন। তবে এ জন্য সবার আগে কয়েকটি সংখ্যা জেনে নিতে হবে। এ লেখায় তুলে ধরা হলো তেমন কয়েকটি সংখ্যার কথা। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।
: আপনার ঋণের পরিমাণ কত টাকা?
আপনি যে অর্থ ঋণ নিয়েছেন তা প্রায়ই সেই সংখ্যা স্থির নাও থাকতে পারে। ঋণের অর্থের পরিমাণ প্রায়ই বেড়ে যেতে পারে বিভিন্ন সার্ভিস চার্জ ও সুদসহ অন্যান্য বিষয়ের কারণে। এ ছাড়া বিভিন্ন ক্রেডিট কার্ডে যদি পার্সোনাল ঋণ নেন তাহলে সেগুলোও ভিন্ন ভিন্ন সংখ্যার হতে পারে। এ ক্ষেত্রে আপনার যদি সম্পূর্ণ সংখ্যাটি জানার দরকার হয় তাহলে সবগুলো ঋণের অর্থ পরিষ্কারভাবে জেনে নিন। এরপর তা একত্রিত করলেই আপনার ঋণের পরিমাণ জানা যাবে। তবে এ সংখ্যা অনেক বড় হলেও ভয় পাবেন না। কারণ প্রতিমাসে কিছু পরিমাণ টাকা পরিশোধ করলে এটি খুব একটা বড় অংক হবে না।

:প্রত্যেক ঋণের সুদহার কত?
সম্পূর্ণ ঋণের পরিমাণ জানার পর আপনার বিভিন্ন ব্যাংকের ও ক্রেডিট কার্ডের ঋণের সুদহার জেনে নিতে হবে। এ ক্ষেত্রে আপনার উচিত হবে যে ঋণের সুদহার বেশি সেটি আগে শোধ করার চেষ্টা করা।
: ঋণের সর্বনিম্ন পেমেন্ট কত টাকা?
প্রায় প্রত্যেক ঋণেরই একটি মাসিক কিস্তি অথবা সর্বনিম্ন পেমেন্ট থাকে। আপনার উচিত হবে ব্যাংকের সঙ্গে যোগাযোগ করে সর্বনিম্ন পেমেন্টের পরিমাণটি জেনে নেওয়া। এরপর আপনি সর্বনিম্ন পেমেন্ট ধরে প্রতিমাসে অর্থ পরিশোধ করতে পারবেন।
:আপনার অর্থ সাশ্রয়ের পরিমাণ কত?
আপনি যদি ঋণ পরিশোধ করতে চান তাহলে প্রতিমাসে বর্তমান খরচ থেকে কিছু টাকা বাঁচাতে পারলেই তা করা সম্ভব। আর এ অর্থ বাঁচানোর পরিমাণ হতে পারে আপনার কিছুদিন টিভি দেখা বন্ধ করে, মোবাইলে কম কথা বলে, বাড়তি ভ্রমণ কমিয়ে ও এ ধরনের নানা উপায় অবলম্বন করে। আর এ অর্থ সাশ্রয়ের পরিমাণটি জেনে নেওয়া দরকার এ পর্যায়ে। ঋণ শোধের জন্য কিছুটা পরিশ্রম করতে হতেই পারে। সে জন্য একটু চেষ্টা করলেই আপনি পারবেন।
: মাসে গৃহস্থালি আয় কত?
ঋণমুক্ত হওয়ার হিসাব মোটেই কঠিন কোনো বিষয় নয়। কিন্তু এ জন্য আপনার নিজের আয়ের ও ব্যয়ের ওপর সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ থাকা প্রয়োজন। আর এ জন্য আপনার বাড়িতে যদি অন্য কেউ অর্থ উপার্জন করে তাহলে সে অর্থের পরিমাণও জেনে রাখতে হবে। প্রয়োজনে ঋণ পরিশোধের সময় গুরুত্বর্পূ খরচগুলো ভাগাভাগি করে নিতে হবে।
: প্রতিমাসে আপনার ঋণ পরিশোধের অর্থ কত হবে?
আপনি ঋণের পরিমাণ, আপনার আয়ের পরিমাণ ও ব্যয়ের পরিমাণ জেনে গিয়েছেন। এরপর আপনি যখন তা থেকে আপনার কিছু অর্থ বাঁচানোর বিষয়টি নির্ণয় করতে পারলেন তখন নিশ্চয়ই এ অর্থটি ঋণ পরিশোধে ব্যয় করবেন। আর এ ক্ষেত্রে বেঁচে যাওয়া অর্থ আপনি যদি অপ্রয়োজনে ব্যয় না করে ঋণ পরিশোধে ব্যয় করেন তাহলেই কমতে থাকবে আপনার ঋণের বোঝা।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/বুলা

উপরে