আপডেট : ৩ জুলাই, ২০১৮ ১৮:০০

মেধা তালিকা প্রকাশের পরই গণবিজ্ঞপ্তি, রিটকারীদের অগ্রাধিকার

দীপক কান্তি রায়
মেধা তালিকা প্রকাশের পরই গণবিজ্ঞপ্তি, রিটকারীদের অগ্রাধিকার

৩০শে জুন শেষ হলো ১ম থেকে ৫ম শিক্ষক নিবন্ধনধারীদের অনলাইনের মাধ্যমে এনটিআরসিএ ওয়েব সাইটে তথ্য পাঠানোর সময়। মেধাতালিকা প্রকাশের আর মাত্র ৮ দিন বাকি (শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে)। এদিকে ১৩তমের চূড়ান্ত জাজমেন্টের তারিখ আর চূড়ান্ত জাজমেন্ট হলেই ১ থেকে ১৩তম মেধাতালিকা প্রকাশ করতে পারে। তবে চূড়ান্ত জাজমেন্ট না হলে ১ থেকে ১২তমের মেধাতালিকা 

মেধাতালিকা www.ntrca.gov.bd ঠিকানায় এনটিআরসিএ কর্তৃপক্ষ প্রকাশ করবে বলে জানা গেছে।

১৬৬টি রিটে অন্তর্ভুক্ত রিট পিটিশনারদেরকে যে কোন পদ্ধতিতেই হউক ১ম ধাপে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করবে। যেহেতু আদালতে রায়ের কপিতে ১৬৬টি রিটের প্রধান পিটিশনারের নাম স্পষ্ট করে লেখা আছে এবং আদালত থেকে রিটকারীদের তথ্য এনটিআরসিএ সংগ্রহ করে তালিকা তৈরি করেছে। পরবর্তিতে ১থেকে ১২তমের যারা আদালতের দ্বারস্থ হয়নি তাদের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে কর্তৃপক্ষ।

জুলাইয়ের ১ম সপ্তাহে তালিকা প্রকাশের পরেই সকল নিবন্ধিতদের জন্য ১টি গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে এনটিআরসিএ। সেখানে স্কুল বা কলেজের নাম অনুসারে শূন্যপদের তালিকাও প্রকাশ করবে। এবং সেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলোতে বিষয় ভিত্তিক শূন্যপদের বিপরীতে আবেদন করতে হবে। আপনি যতটি প্রতিষ্ঠানে দরখাস্ত করবেন সেই প্রতিষ্ঠানে আপনাকে মেধাতালিকায় থাকতে হবে, তাহলে আপনি নিয়োগ পাবেন। যে প্রতিষ্ঠানে আবেদন করবেননা সেই প্রতিষ্ঠানে আপনি প্রতিযোগী হতে পারবেননা বলে জানিয়েছে একটি সূত্র ।

তবে বেসরকারি স্কুল ও কলেজে শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়ায়ও পরিবর্তন আসছে। আগে একজন চাকরিপ্রার্থী একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়োগের জন্য আবেদন করলে মেধা অনুযায়ী একাধিক প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের সুপারিশপ্রাপ্ত হতেন। এতে অনেক চাকরিপ্রার্থী কোথাও নিয়োগের সুপারিশপ্রাপ্ত না হওয়ায় বেকার থাকতেন। কিন্তু নতুন প্রক্রিয়ায় একজন চাকরিপ্রার্থী একাধিক আবেদন করলেও একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই নিয়োগের সুপারিশপ্রাপ্ত হবেন। ফলে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বেশিসংখ্যক প্রার্থীর নিয়োগ পাওয়ার পথ অনেকটাই সুগম হবে। কেন্দ্রীয়ভাবে এনটিআরসিএ এর মাধ্যমে এর আগে শিক্ষক নিয়োগে চাকরি প্রার্থীরা বিভিন্ন বিপত্তির শিকার হলেও নতুন পদ্ধতিতে সেসব থেকেও রেহাই পাবেন—এমনই মন্তব্য এনটিআরসিএ কর্তৃপক্ষের।

বয়সের বিষয়: শিক্ষামন্ত্রনালয় সূত্র জানিয়েছে ১থেকে ১২ বা ১৩তম বয়সের ফ্রেমে পড়বে না। যেহেতু মন্ত্রণালয় স্বাক্ষরিত তথ্য এনটিআরসিএ অফিসে পাঠানোর পরে সে অনুসারে এনটিআরসিএ তাদের কার্যক্রম করে সেহেতু ১ থেকে ১৩তমের জন্য ৩৫ বছর হবে না। মন্ত্রণালয় থেকে ঘোষিত ৪০ হাজার শূন্যপদ ছাড়াও নতুন করে প্রতিষ্ঠান হতে শূন্যপদ সংগ্রহ করা শুরু করেছে এনটিআরসিএ । অতএব সকল শূন্যপদকে নিয়ে জুলাইয়ে গণবিজ্ঞপ্তি আকারে এক কল্পনাতীত বিশাল নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হবে। 

লেখক: কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহ-সভাপতি বাংলাদেশ বেসরকারী শিক্ষক নিবন্ধিত নিয়োগবঞ্চিত জাতীয় ঐক্য পরিষদ, ঢাকা।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে