আপডেট : ১ জুন, ২০২০ ১২:০৫

স্বচ্ছ পিপিই, নার্স ও অন্তর্বাস কাণ্ড, অতঃপর...

অনলাইন ডেস্ক
স্বচ্ছ পিপিই, নার্স ও অন্তর্বাস কাণ্ড, অতঃপর...

রাজধানী মস্কো থেকে ১০০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত রাশিয়ার টুলা শহরের একটি হাসপাতালে পুরুষ করোনা রোগীদের সেবার দায়িত্বে রয়েছেন এক সেবিকা। কিন্তু সদ্য কুড়িতে পা দেয়া সেই সেবিকার কাণ্ড দেখে সবাই অবাক! স্বচ্ছ পিপিই-এর নিচে শুধু অন্তর্বাস পরে দিব্যি নিজের কাজ করে চলেছেন তিনি। ওই ওয়ার্ডে থাকা এক রোগীর কল্যাণে বিষয়টি এখন ইন্টারনেটে ভাইরাল।

সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে বলা হয়, তুলা শহরের হাসপাতালের একজন রোগী অন্তর্বাসের ওপর পিপিই পরা অবস্থায় ২০ বছর বয়সী ওই নার্সের ছবি তুলে। সেই ছবিটি পরে বিভিন্ন মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

ওই নার্স দাবি, পিপিই’র নিচে অন্য পোশাক পরাটা অনেক কষ্টের। এতে রোগীর সেবাদানে তার ব্যাঘাত ঘটে। সবচেয়ে বড় সমস্যা প্রচণ্ড গরম! যে কারণে তিনি এই ব্যবস্থা নিয়েছেন। তবে পিপিই পরার পর ভেতরের পোশাক দেখা যাবে শুরুতে তিনি বুঝতে পারেননি।

তবে কোনো অজুহাতই মানতে চাইছে না কর্তৃপক্ষ। নার্সের এই পোশাকে রোগীরা অভিযোগ না জানালেও হাসাপতালের পোশাক পরিধানের নিয়ম না মানায় এরই মধ্যে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। তবে কি ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে তা জানা যায়নি।

এদিকে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে খবরটি প্রকাশের পর পাঠক বিভিন্ন মতামত জানিয়েছেন। সার্জে র‌্যাটনিকভ নামে এক পাঠক মন্তব্য করেন, ‘এই বিষণ্ণ সময়ের মধ্যেও কারো হাস্যরসবোধ প্রকাশ পেল।’

মারিনা আসতাকোভা নামে একজন বলেন, ‘খুব ভালো, সে রোগীদের মনের অবস্থা চাঙা করছে।’

অন্যদিকে এই সেবিকাকে শাস্তি দেয়ার বিষয়টি মেনে নিতে পারেননি ভ্যালেরি ক্যাপনিন। তিনি বলেন, ‘তাকে কেন সাজা দেয়া হলো? তাকে পুরস্কার দেয়া উচিত। এই পোশাকে তাকে দেখে কেউ-ই অন্তত মরতে চাইবে না।’

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/রাসেল

উপরে