আপডেট : ১৮ মে, ২০২০ ১০:৪৪

যেসব দেশ লকডাউনের বিপক্ষে বিক্ষোভে নেমেছে

অনলাইন ডেস্ক
যেসব দেশ লকডাউনের বিপক্ষে বিক্ষোভে নেমেছে

করোনাভাইরাসের কারণে পুরো বিশ্ব আজ স্থবির হয়ে পড়েছে। আক্রান্ত প্রায় সব দেশেই চলছে লকডাউন। কোনো কোনো দেশে তা কিছুটা শিথিল করা হলেও ভয় যেন পিছু ছাড়ছে না। তবুও ভয়কে জয় করে অনেকে রাস্তার বা খোলা আকাশের নিচে মুক্ত বাতাসে নিঃশ্বাস নিতে বিক্ষোভে নেমেছেন লকডাউনের বিপক্ষে।  

লকডাউন তুলের নেয়ার দাবিতে জার্মানি, ব্রিটেন ও পোল্যান্ডে বিক্ষোভ করেছে কয়েক হাজার মানুষ। এ বিক্ষোভ থেকে শতাধিক মানুষকে আটক করেছে পুলিশ। রোববার (১৭ মে) লন্ডনের হাইড পার্ক, সাউদাম্পটন, কারডিফ, গ্রাসগো ও নটিংহামে করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণের বিধিনিষেধ অমান্য করে লকডাউনবিরোধী বিক্ষোভ হয়।

এ সময় পুলিশের সঙ্গে দ্বন্দ্বে গ্রেফতার হন বিরোধীদল লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিনের ভাই পিয়ার্স করবিনসহ ১৯ জন। বিক্ষোভকারীদের মধ্যে অনেকেই মনে করছেন ‘ভুয়া ভাইরাস’ এর ফাঁদ ব্যবহার করে নাগরিক অধিকার দমন করা হচ্ছে।


পোল্যান্ডে বিক্ষোভকারীদের ওপর টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। বিরোধীদলের সিনেটর জেকেক বুরিসহ কয়েকজন বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।জার্মানির কয়েকটি শহরে লকডাউনবিরোধী বিক্ষোভে জড়ো হন হাজারও অধিবাসী।


তারা অর্থনৈতিক বিপর্যয়, নাগরিক অধিকার খর্বের বিরুদ্ধে ক্ষোভ ব্যক্ত করেছেন। কিছু স্থানে বিক্ষোভকারীরা টিকাবিরোধী মত ব্যক্ত করেন ও ষড়যন্ত্রবাদী তত্ত্বের পক্ষে কথা বলেন।

গত শনিবার জার্মানির স্টুটগার্টে ৫ হাজারের বেশি বিক্ষোভকারী জড়ো হন। 

ফ্রাঙ্কফুর্টে জড়ো হন প্রায় ১ হাজার ৫০০ ও মিউনিখে ১ হাজার বিক্ষোভকারী। তারা ‘করোনা ভুয়া’, ‘আইসোলেশন, মাস্ক, ট্রেসিং, ভ্যাকসিন-চলবে না-সহ লকডাউনবিরোধী নানা ব্যানার ও পোস্টার নিয়ে বিক্ষোভ করেন।

বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৪৮ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। ওয়ার্ল্ডো মিটারের দেয়া তথ্যানুযায়ী, এখন পর্যন্ত ভাইরাসটি শনাক্ত হয়েছে মোট ৪৮ লাখ ১ হাজার ৮৭৫ জনের শরীরে। ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছেন ৩ লাখ ১৬ হাজার ৬৭১ জন। এছাড়া আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়েছেন ১৮ লাখ ৫৮ হাজার ১৭০ জন। বর্তমানে ভাইরাসের উপস্থিতি থাকা ২৬ লাখ ২৭ হাজার ৩৪ জনের মধ্যে গুরুতর অবস্থায় রয়েছেন ৪৪ হাজার ৮১৭ জন।

ভাইরাসটিতে সবচেয়ে বেশি সংক্রমিত হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের বাসিন্দারা। দেশটির মোট ১৫ লাখ ২৭ হাজার ৬৬৪ জন সংক্রমিত হয়েছেন। এদের মধ্যে মারা গেছেন ৯০ হাজার ৯৭৮ জন। এছাড়া সুস্থ হয়েছেন ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৩৮৯ জন। শনাক্তের সংখ্যায় দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা রাশিয়ায় সংক্রমিত হয়েছেন ২ লাখ ৮১ হাজার ৭৫২ জন। এদের মধ্যে মারা গেছেন ২ হাজার ৬৩১ জন। শনাক্তের সংখ্যায় এর পরের অব্স্থানে রয়েছে যথাক্রমে স্পেন, যুক্তরাজ্য, ব্রাজিল, ইতালি, ফ্রান্স, জার্মানি, তুরস্ক ও ইরান। এই তালিকার প্রত্যেকটি দেশেই সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা লক্ষাধিক।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/রাসেল

উপরে