আপডেট : ৮ জুলাই, ২০২০ ১১:২১

কাপড় বিক্রি করে সংসার চলে জনপ্রিয় অভিনেতা শাহিন আলমের

অনলাইন ডেস্ক
কাপড় বিক্রি করে সংসার চলে জনপ্রিয় অভিনেতা শাহিন আলমের

বাংলা চলচ্চিত্রের পরিচিত মুখ অভিনেতা শাহিন আলম। প্রায় ১৫০ সিনেমায় অভিনয় করা এই অভিনেতা অনেকদিন ধরেই দূরে আছেন সিনেমা থেকে। বর্তমানে ব্যস্ত আছেন নিজের ব্যবসা নিয়ে। কিন্তু কেন ছাড়লেন অভিনয়?

জানা যায়, তার ১৮ বছর বয়সী মেয়ে আত্মহত্যা করার পরেই সিনেমা থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেন। অভিনয়ের পাশাপাশি গার্মেন্টসের ব্যবসা করতেন। অভিনয় ছাড়ার পর পুরোপুরি সেখানেই মন দেন। কিন্তু গার্মেন্টসের ব্যবসায় সুবিধা করে উঠতে পারেননি। রাজধানীর গাউছিয়ায় তাঁদের পৈতৃক দুটো শোরুম ছিল। অভিনয় ছাড়ার পর এই শোরুমগুলোতে ব্যবসা শুরু করেন শাহিন আলম। একটি শোরুম ভাড়ায় চলে। আরেকটি শোরুমে নিজে ব্যবসা করেন। গুলশানের নিকেতনে নিজের ফ্ল্যাটে থাকেন শাহিন আলম। স্ত্রী ও বিশ্ববিদ্যালয়পড়ুয়া একমাত্র ছেলেকে নিয়ে তাঁর সংসার।

আগে নিজেই শোরুমে বসতেন। এখন তাঁর ভাতিজা বসেন। কারণ, চার বছর ধরে গুরুতর অসুস্থ শাহিন আলম। জটিল কিডনি রোগে ভুগছেন। সাড়ে তিন বছর ধরে ডায়ালাইসিস চলছে। প্রতি সপ্তাহে তিন দিন সাভারের গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রে ডায়ালাইসিসের জন্য যেতে হয় তাকে। তাঁর অসুস্থতার খবর খুব বেশি লোকের জানা নেই।

শাহিন আলম বললেন, ‘অভিনয় ছাড়ার পর প্রথম দুই বছর অনেকে যোগাযোগ করত। যখন সবাই জেনে গেল, অভিনয় ছেড়ে দিয়েছি, তখন আর তেমন কেউ যোগাযোগ করে না।’

সিনেমার লোকদের মধ্যে অমিত হাসান ও মিশা সওদাগর নিয়মিত তাঁর খোঁজখবর নেন। অনেক দিন আগে শিল্পী সমিতির কয়েকজন তাঁকে দেখতে এসেছিলেন। কেউ কেউ তাঁকে বলেছেন, চিকিৎসার সহযোগিতার জন্য শিল্পী সমিতির সঙ্গে যোগাযোগ করতে। কিন্তু শাহিন আলম তা করেননি। সরকারের কাছ থেকে চিকিৎসা সহায়তা নেওয়ার জন্যও তদবির করেননি। অথচ তিনি গুরুতর অসুস্থ।

শাহিন আলম বললেন, আমার চেয়েও যাদের বেশি প্রয়োজন, তারা যাক। এত দিন আল্লাহ একভাবে চালিয়ে নিয়েছেন। সহায়তার কথা ভাবিনি। কিন্তু করোনায় ব্যবসার অবস্থা খারাপ। এখন চাইছি সরকার আমাদের দিকে তাকাক।

শাহিন আলম জানালেন, ছোট বোন তাঁকে যথেষ্ট সহযোগিতা করেছেন। করোনার সময়ও তাঁকে পাশে পেয়েছেন।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/রাসেল

উপরে