আপডেট : ২৫ এপ্রিল, ২০১৬ ১২:০৪

না ফেরার দেশে চট্টগ্রাম পুলিশের এসআই মোস্তফা কামাল

অনলাইন ডেস্ক
না ফেরার দেশে চট্টগ্রাম পুলিশের এসআই মোস্তফা কামাল
দীর্ঘ ১৮ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে ২৪শে এপ্রিল রাতে না ফেরার দেশে চলে গেলেন চট্টগ্রামের লোহাগাড়া থানার চৌকস পুলিশ অফিসার এসআই মোস্তফা কামাল। সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত মোস্তফা টানা ১৩ দিন ঢাকা স্কয়ার হাসপাতালে আই সি ইউতে লাইফ সাপার্টে ছিলেন।
গত ৬ই এপ্রিল বুধবার দুপুরে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের লোহাগাড়া ডায়াবেটিক জেনারেল হাসপাতালের সামনে পিকআপের সঙ্গে মোস্তফার  মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে হয়। এসআই মোস্তফা কামাল থানা থেকে মোটরসাইকেল যোগে বটতলীর দিকে যাচ্ছিলেন। দূর্ঘটনায় তিনি পা ও হাতে গুরুতর আঘাত পেয়ে আহত হন।
আশংকাজনক অবস্থায় তাকে প্রথমে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিশেষ এ্যাম্বুলেন্সে ঢাকা স্কয়ার হাসপাতালে পাঠানো হয়, গত ৭ই এপ্রিল দূর্ঘটনায় থেতলে যাওয়া ডান পা কেটে বাদ দেওয়া হয় এবং অবস্থার অবনতি ঘটলে ১১ই এপ্রিল থেকে স্কয়ার হাসপাতালের আই সি ইউতে লাইফ সাপার্টে রাখা হয় এসআই মোস্তফা কামালকে, টানা ১৩ দিন লাইফ সাপার্টে থাকার পর ২৪শে এপ্রিল রাত আনুমানিক সাড়ে আটটায় শেষ নিঃশ্বাষ ত্যাগ করেন তিনি।
লোহাগাড়া থানার এসআই শেখ জাবেদ জানিয়েছেন নিহত এসআই মোস্তফা কামালের বাড়ি চাঁদপুর জেলার শাহারাস্তি উপজেলায়। রাজারবাগ পুলিশ লাইনে মরহুমের প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে পরে তাঁর নিজ বাড়িতে নামাজে জানাজা শেষে ২৫ এপ্রিল সকাল ১০ টায় পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন হয়েছে। মোস্তফা কামালের মৃত্যুতে চট্টগ্রামের পুলিশ বিভাগে শোকের ছায়া নেমে এসেছে, সাধারণ জনতার খুব কাছের লোক ছিলেন তিনি। সবার সাথে সহজে মিশতে পারার অসাধারণ একটি গুণ ছিল তার। তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন সাতকানিয়া সার্কেলের সহকারি পুলিশ সুপার একেএম এমরান ভুইয়া সহ লোহাগাড়া থানার সকল অফিসার ও পুলিশ সদস্যবৃন্দ।
লোহাগাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ শাহজাহান পিপিএম বলেন, ‘এসআই মোস্তফা কামাল লোহাগাড়া থানার সবচেয়ে চৌকস পুলিশ অফিসার ছিলেন তাকে হারিয়ে আমার মনে হচ্ছে আমি যেন আমার একটি সন্তানকে হারালাম, দেশ হারাল তার এক কৃতি সন্তানকে।’
উপরে