আপডেট : ৭ নভেম্বর, ২০১৬ ১৮:২৩

লক্ষ্মীপুরে জলাবদ্ধ গ্রাম; জনদূর্ভোগ চরমে; দেখার কেউ নেই!

রাকিব হোসেন আপ্র,লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:
লক্ষ্মীপুরে জলাবদ্ধ গ্রাম; জনদূর্ভোগ চরমে; দেখার কেউ নেই!

সামান্য বৃষ্টি হলেই ডুবে যায় ১৪নং মান্দারী ইউনিয়নের সমাসপুর গ্রামের রাস্তাঘাট। দূর থেকে তাকালে মনে হয় এ যেন পদ্মা, মেঘনা কিংবা যমুনা নদীর পার্শ্ববর্তী একটি চরাঞ্চল; যা নদীর প্রবল স্রোতে প্লাবিত হয়েছে। কিন্তু পরিতাপের বিষয় হচ্ছে, এ গ্রামটি লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত। মূল শহর থেকে মাত্র ৭ কিলোমিটার পূর্বে ঢাকা-রায়পুর মহাসড়কের পাশেই এর অবস্থান। তবুও উন্নত রাস্তাঘাট থেকে বঞ্চিত এ গ্রামের মানুষজন। একটু বৃষ্টিতেই ডুবে যায় এ গ্রামের বেশিরভাগ বাড়ির রাস্তাঘাট।

জলাবদ্ধ বাড়িগুলোর মধ্যে অন্যতম কাজম উদ্দিন ব্যাপারী বাড়ির এই রাস্তাটি। প্রায় ৩০০ মিটার দৈর্ঘ্য এ রাস্তা দিয়ে চলাচল করে দুই গ্রামের চার বাড়ির মানুষজন। বর্ষাকালে বৃষ্টির পানিতে রাস্তার পাশের পুকুর-ডোবা ভরে যায়। পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা না থাকায় প্রায় সারা বছরই কম-বেশি ডুবন্ত থাকে এ রাস্তাটি। এতে চরম ভোগান্তীতে রয়েছে এলাকাবাসী।

জলাবদ্ধ এলাকাবাসী জানান, বাড়ির রাস্তাঘাট ডুবে থাকায় দিনে-রাতে চলাচলে চরম ভোগান্তী পোহাতে হচ্ছে তাদের। ছাত্র-ছাত্রীরা স্কুল-কলেজ কিংবা মাদ্রাসায় যেতে দারুণ অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে। এছাড়া দিনে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ ৫০০ মিটার দূরে অবস্থিত মসজিদে গিয়ে আদায় করা সহজ ব্যাপার নয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ভুক্তভোগী বলেন, ভোটের আগে মেম্বার, চেয়ারম্যানরা অনেকেই কথা দিয়েছে ভোটে জয়ী হলে এ রাস্তাটি উঁচু করবে এবং পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করে দেবে। কিন্তু ভোটের পর আর উনাদের ছায়া পর্যন্ত পড়ে নি এ রাস্তায়।

তবে অন্য এক ভুক্তভোগী বলেন, শালিশ-দরবারে সবার আগে আসেন মেম্বার। কারণ শালিশ করে আমানতের টাকা হজম করা যায়। কিন্তু গ্রামের রাস্তাঘাটের উন্নয়ণে কোনো তৎপরতাই নেই মেম্বারের। যদিও কোনো স্কীম হাতে আসে, নিরবে তা পুরোপুরি হজম করে নেয় মেম্বার-চেয়ারম্যানরা।

অবশ্য ২নং ওয়ার্ড মেম্বার আব্দুল কাদের বলেন ভিন্ন কথা। তিনি জানান, সমাসপুর গ্রামে কিছু কুচক্রীমহল আছে; যারা বাড়ির পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা বন্ধ করে অবৈধভাবে পুকুর কিংবা ডোবায় মাছ চাষ করছে। ফলে বৃষ্টির পানি জমে রাস্তাঘাট ডুবে জলাবদ্ধতা দেখা দিচ্ছে। তবে খুব শিঘ্রই এ সমস্যা সমাধানে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

১৪নং মান্দারী ইউনিয়নের অন্যান্য ওয়ার্ডগুলোতেও এমন অবস্থা পরিলক্ষিত। যার ফলে চরম দূর্ভোগে রয়েছে গ্রামের হাজারো মানুষ।

জেডএম

 

উপরে