আপডেট : ২১ জুলাই, ২০১৬ ০৯:৩৫

লালমনিরহাটে বানবাসীদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি
লালমনিরহাটে বানবাসীদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

গত কয়েকদিনের টানা বর্ষন ও উজানের পাহাড়ি ঢলে লালমনিরহাটে তিস্তার চরাঞ্চলসহ হাজারো পানি বন্দি পরিবারগুলোর মাঝে সরকারী ভাবে ত্রাণ বিতরণ শুরু হয়েছে।

বুধবার বন্যার্থদের মাঝে এ ত্রাণ বিতরণ শুরু করেছে জেলা ত্রাণ ও পুনবাসন বিভাগ। ত্রাণ বিতরণকালে উপস্থিত জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা একেএম ইদ্রীশ আলী জানান, গত কয়েক দিনের ভারি বর্ষন ও উজানের পাহাড়ি ঢলে তিস্তাসহ জেলার সবগুলো নদ নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে নদীর তীরবর্তি অঞ্চলে বন্যা দেখা দেয়। চলতি বন্যায় জেলার ৫টি উপজেলার প্রায় ২০ হাজার পরিবার পানি বন্দি হয়ে পড়েছে।  আর এসব পানি বন্দি পরিবারগুলোর মাধ্যে অধিক ক্ষতিগ্রস্থ ৭শত ৫০ পরিবারের মাঝে শুকনো খাবার হিসেবে চিনি, চাল, চিড়া, মুড়ি, লবণ, মোমবাতি, দিয়াশলাই ও পানি শোধনার ওষুধ বিতরণ করা হয়। এ ছাড়াও পানিবন্দি ২০ হাজার পরিবারের জন্য মাথা পিছু ১০ কেজি হারে জিআর চাল বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। এই জিআর চালও বিতরন শুরু করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

বুধবার দিনভর তিস্তার তীরবর্তি জেলার আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ও কালীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলের পানিবন্দি পরিবারগুলোর মাঝে নৌকা যোগে নিজ হাতে ত্রাণ পৌছে দেন জেলা ত্রাণ ও পুনবাসন কর্মকর্তা একেএম ইদ্রীশ আলী।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে ছিলেন, আদিতমারী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান, মহিষখোচা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আনিছার রহমান, মহিষখোচা ইউপি সচিব আতিকুর রহমান আতিক। ত্রান নিতে আসা গোবর্দ্ধন চরের আজগর আলী জানান, বুধবার সকাল থেকে বন্যার পানি নেমে যেতে শুরু করলেও বাড়িতে রান্না করার পরিবেশ নেই। তাই দুওে কোথাও উচু স্থানে গিয়ে রান্নার কাজ করে খেতে হচ্ছে। বর্তমানে এছাড়া আর কোন উপায় নাই। এদিকে তিস্তার বাম তীরবর্তী জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার সিন্দুর্না, শিংগীমারী ও গড্ডিমারী ইউনিয়নের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ও পানি বন্দি পরিবারগুলোর মাঝেও ত্রান বিতরন শুরু হয়েছে বলে জানা যায়।

জেডএম

উপরে