আপডেট : ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৭:৪৪

জিনপিংয়ের মিয়ানমার সফরে স্পষ্ট হলো রোহিঙ্গা উচ্ছেদে চীনের স্বার্থ

সাজ্জাদুল ইসলাম নয়ন
জিনপিংয়ের মিয়ানমার সফরে স্পষ্ট হলো রোহিঙ্গা উচ্ছেদে চীনের স্বার্থ

রোহিঙ্গা গণহত্যার অভিযোগে আন্তর্জাতিক আদালতে যখন মিয়ানমারের বিচার হচ্ছে, গণহত্যার দায়ে যখন দেশটি বিশ্বজুড়ে সমালোচনার মুখে, তখন মিয়ানমার  সফর করেছেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিন পিং। শুধু তাই নয়, বিগত ১৯ বছরের মধ্যে কোন চীনা প্রেসিডেন্ট এই প্রথম মিয়ানমার সফর করলেন। এই সফরে মিয়ানমারের সঙ্গে শতকোটি ডলারের ৩৩টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছেন চীনা প্রেসিডেন্ট।

শি জিনপিংয়ের এই সফরের মাধ্যমে এখন রোহিঙ্গা গণহত্যা আর রাখাইন রাজ্য থেকে রোহিঙ্গা তাড়ানোর মাজেজাটা স্পষ্ট হলো। মূলত চীনা প্রেসক্রিপশনে ও স্বার্থে রক্ষায় যে মিয়ানমার রাখাইন থেকে রোহিঙ্গাদের বিতাড়িত করেছে সেটা এখন স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে।

সাম্প্রতিককালের বর্বরোচিত জাতিগত নিধনের সাক্ষী মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য। অমানবিক নির্যাতনের শিকার রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়ে সারা বিশ্বে প্রশংসা কুড়িয়েছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের বহুবিধ সমস্যার মধ্যেও প্রায় ১২ লাখ রোহিঙ্গার আশ্রয় এবং ভরণ-পোষণ নিঃসন্দেহে এক সাহসী ও প্রশংসনীয় উদ্যোগ। কিন্তু এই রোহিঙ্গা ইস্যু এখন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক রাজনীতির দাবার গুটিতে পরিণত হয়েছে। প্রত্যেকেই তার নিজ জায়গা থেকে রোহিঙ্গা নিয়ে রাজনীতি করছে। রাজনৈতিক খেলার এক মোক্ষম হাতিয়ারে পরিণত হয়েছে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী। রোহিঙ্গা ইস্যুতে কোন দেশের কী অবস্থান তা নিয়ে চলছে নিখুঁত বিশ্লেষণ। মিয়ানমার যেহেতু চীনের প্রেসক্রিপশনে চলে তাই রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধান চীনের হাতেই। কিন্তু চীন কি মিয়ানমারের এই গণহত্যাকে স্বীকার করে? রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে চীনের ভূমিকা কি ইতিবাচক নাকি নেতিবাচক?

মিয়ানমারে রোহিঙ্গা নিপীড়নের বিষয়টিতে সবসময়ই জাতিসংঘের হস্তক্ষেপের বিরোধী চীন এবং সর্বদাই তারা মিয়ানমারের পক্ষে। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ এ নিয়ে যে পদক্ষেপই নিতে চেষ্টা করুক না কেন, তাতে বাধ সাধে স্থায়ী সদস্য চীন। গোটা বিশ্ব যেখানে এই গণহত্যার বিরুদ্ধে কথা বলছে, সেখানে চীন স্বীকারই করে না রাখাইনে গণহত্যা হয়েছে। এখন অনেকের মনেই প্রশ্ন, এর কৌশলগত কারণটা আসলে কী? কী তার স্বার্থ?

মিয়ানমার সেনা কর্তৃক বর্তমান সময়ের একটি ভয়াবহ গণহত্যাকে সমর্থন দেয়ার পেছনে মূলত চীনের কৌশলগত বাণিজ্যিক স্বার্থ জড়িত। এই বাণিজ্যিক স্বার্থের বিষয়টি জানলে সবার বুঝতে সহজ হবে যে, চীন কেন মিয়ানমারকে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে মালয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের চায়না স্টাডিজ ইনস্টিটিউটের গবেষক ড. সৈয়দ মাহমুদ আলী বলেন,  "চীনের প্রধান স্বার্থ দুটি। এর একটি হলো অন্যদেশের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ না করার পক্ষে তাদের চিরাচরিত পররাষ্ট্রনীতি - যার পাশাপাশি চীন চায় যে তাদের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারেও অন্য কোন দেশ হস্তক্ষেপ না করুক। আর অপরটি হচ্ছে, তাদের কৌশলগত ও বাণিজ্যিক স্বার্থ - যার মূল কথা: তাদের আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও তেল-গ্যাসের সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য মালাক্কা প্রণালী ছাড়াও মিয়ানমারের ভেতর দিয়ে আরেকটি স্থলপথকে অক্ষুণ্ণ রাখা।"

মিয়ানমারে চীনের বিশাল বিনিয়োগের অবকাঠামো পরিকল্পনায় চীন-মিয়ানমার ইকোনোমিক করিডোর, দক্ষিণপশ্চিম চীন থেকে ভারত মহাসাগরের উপকূল পর্যন্ত রেল সংযোগ, পশ্চিমাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যে ১৩০ কোটি ডলারের গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণ, সীমান্তে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং বাণিজ্যিক প্রাণকেন্দ্র ইয়াঙ্গনে নতুন একটি শহর গড়ার প্রকল্প দ্রুততার সঙ্গে বাস্তবায়ন করতে সম্মত হয়েছেন।

এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়নের মাধ্যমে মিয়ানমারে সবচেয়ে বড় বিদেশি বিনিয়োগকারি দেশ হিসেবে চীনের প্রভাব প্রতিষ্ঠা করাই শি-র সফরের লক্ষ্য বলে মত বিশ্লেষকদের।

মিয়ানমার সফরে চীনা প্রেসিডেন্ট বলেন, “আমরা একসঙ্গে কষ্টগুলি কাটিয়ে ওঠা ও পরস্পরকে সহায়তা করার লক্ষে ভবিষ্যতের একটি রোডম্যাপ আঁকছি যা ভাইয়ের মতো ও বোনের মতো ঘনিষ্ঠ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে প্রাণবন্ত করবে।”

নিজের বক্তব্যে সু চি চীনকে ‘আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও বিশ্ব অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনকারী মহান দেশ’ বলে উল্লেখ করেন।

চীন ও মিয়ানমারের মধ্যে এই ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের নেপথ্যে রয়েছে প্রধানত দুটি কারণ। প্রথমত, মিয়ানমারের সার্বভৌমত্ব, আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও অভ্যন্তরীণ স্থিতিশীলতা রক্ষায় চীনের স্বার্থ। এবং দ্বিতীয়ত চীনের গ্যাস এবং জ্বালানি তেল সরবরাহ নিশ্চিত করতে মিয়ানমারের সম্পৃক্ততা।

মিয়ানমারের ভেতরে চীনের বহু দশকের বিনিয়োগ রয়েছে। বিশেষ করে ষাটের দশক থেকে মিয়ানমারের সামরিক প্রশাসন এবং অতি সম্প্রতি যে দলীয় রাজনৈতিক সরকার ক্ষমতায় এসেছে, তাদের সঙ্গেও চীনের সম্পর্ক ক্রমশ ঘনিষ্ঠ হয়েছে। এর কারণ মিয়ানমারের স্বার্থ নয়। এর কারণ চীনের একটা বিশাল অর্থনৈতিক এবং নিরাপত্তা বিষয়ক স্বার্থ রয়েছে।

আমরা অনেকেই হয়তো জানি না, হরমুজ প্রণালির পরে মালাক্কা প্রণালি দিয়েই পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি পেট্রোলিয়াম পণ্য পরিবাহিত হয়। চীনের প্রায় সব জ্বালানি এই পথ দিয়েই পরিবাহিত হয়। তাই ভূরাজনৈতিকভাবে এ প্রণালি ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। গত দু'দশক ধরে চীনের ৮০ থেকে ৮৫ শতাংশ বাণিজ্য সমুদ্রপথে হচ্ছে। সেই বাণিজ্য মালাক্কা প্রণালী দিয়ে হয়। চীনের সঙ্গে আমেরিকার একটা সশস্ত্র যুদ্ধ যদি সত্যি সত্যি হয়, কিংবা নিদেনপক্ষে একটা তীব্র সামরিক উত্তেজনাও ঘটে তাহলে তার প্রতিপক্ষ মালাক্কা প্রণালি বন্ধ করে দেবে সেটা চীন ভালো করেই জানে। তাতে চীনের জ্বালানি সরবরাহ ব্যবস্থা একেবারেই ভেঙে পড়বে। তখন চীনের এই মালাক্কা সংকট সমাধানের জন্য যদি সেখানে নৌবাহিনী পাঠানো হয় তবে সংকট আরও ঘনীভূত হবে। সেই মালাক্কা সংকটের কথা মাথায় রেখে চীন স্থলপথে বিভিন্ন পাইপলাইনের মাধ্যমে তেল এবং গ্যাস যাতে চীনে পৌঁছাতে পারে- তার ব্যবস্থা করেছে। এরকম দুটি পাইপলাইন আরাকান অর্থাৎ মিয়ানমারের ভেতর দিয়ে বঙ্গোপসাগরে এসে পৌঁছেছে। ভারতেরও এ ধরণের বিনিয়োগ রয়েছে কালাদান এবং সিটওয়ে বন্দরে- কিন্তু চীনের অর্থনীতির জন্য এ দুটি পাইপলাইন বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। সে জন্যই চীন চাইছে-  মিয়ানমার সরকার যেন আরাকানের ওপর তাদের নিয়ন্ত্রণ না হারায় বা আরাকানকে কেন্দ্র করে চীন-মিয়ানমার সম্পর্ক খারাপ না হোক। অর্থাৎ, চীন তাদের আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও তেল-গ্যাসের সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য মালাক্কা প্রণালী ছাড়াও মিয়ানমারের ভেতর দিয়ে আরেকটি স্থলপথকে অক্ষুণ্ণ রাখতে চাইছে। আর সেটা যেহেতু আরাকান এর উপর দিয়েই গেছে, তাই এই ইস্যুতে চীন একদম নিশ্চুপ। এ কারণে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে মিয়ানমারের ওপর চীন বড় কোন চাপ প্রয়োগ করবে তেমনটা আশা করা বোকামি ছাড়া কিছুই নয়।

এদিকে, চীন বাণিজ্য আধিপত্য বিস্তারের জন্যে অবকাঠামো নির্মাণ করছে রাখাইনে। মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে চীন কিয়াকপিউ গভীর সমুদ্রবন্দর তৈরি করেছে। এ বন্দরকে কেন্দ্র করে মালাক্কা প্রণালি বাইপাস করার আরেকটা বিকল্প তৈরি হয়েছে চীনের সামনে। এছাড়া রাখাইন প্রদেশ থেকে চীনের ইউনান প্রদেশ পর্যন্ত গ্যাস এবং তেলের পাইপলাইন স্থাপিত হয়েছে প্রায় আড়াই বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে। রাখাইন প্রদেশ খুব বড় ইন্ডাস্ট্রিয়াল জোন তৈরি হয়েছে চীনা বিনিয়োগকারীদের জন্য। আবার ভারত মহাসাগরের পূর্বের দিকে সামরিক গুরুত্বপূর্ণ ওই জায়গায় চীন ৭ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণ করছে। সেখানে চীনের নৌপথে বাণিজ্য হবে। ওই এলাকায় আরও সাড়ে ৩ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে একটি অর্থনৈতিক বিশেষ অঞ্চল গড়ে তোলা হবে। এখন পর্যন্ত প্রাক্কলিত ৬২ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে সিপিইসি বা চায়না পাকিস্তান ইকোনমিক করিডোর তৈরি করা হয়েছে গোয়াদার বন্দর দিয়ে চীন পেট্রোলিয়ামসহ তার অন্য সব পণ্য প্রবাহ যাতে চালিয়ে যেতে পারে। এতেই সন্তুষ্ট হয়ে বসে থাকেনি চীন, সব ডিম একই ঝুড়িতে তো রাখছেই না তারা, বরং ঝুড়ির সংখ্যা যত বেশি সম্ভব বাড়িয়ে যাচ্ছে। আর তাই রোহিঙ্গাদের রাখাইন থেকে বিতাড়িত করতে মিয়ানমার চীনের পরামর্শেই কাজ করছে বললেও খুব একটা অত্যুক্তি হবে না।

বর্তমান সময়ে রাখাইন খুব গুরুত্বপূর্ণ জিও-পলিটিক্যাল হটস্পট হয়ে উঠেছে। এর জ্বলন্ত প্রমাণ কিছুদিন আগে দেখা গেলো। মার্কিন কংগ্রেসম্যান ব্রাড শেরম্যান রাখাইন প্রদেশকে মিয়ানমার থেকে বিযুক্ত করে বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্ত করার প্রস্তাব করেছেন। অনেকে এটাকে খুব হালকা কোনো কথা মনে করে উড়িয়ে দিচ্ছেন হয়তো, কিন্তু এতে রাখাইনের গুরুত্ব কিন্তু স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। আবার মালাক্কা সংকটের কথা মাথায় রেখে চীন মালাক্কা প্রণালিকে বাইপাস করার জন্য কিছু বিকল্প পথের চিন্তা থেকে বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের সবচেয়ে বড় প্রকল্প নিয়েছে রাখাইনে। সামরিক কৌশলগত কারণেও ভারত মহাসাগরে উপস্থিতি নিশ্চিত করার জন্য রাখাইন চীনের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ জায়গা। চীনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হওয়ার কারণে চীনের আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী ভারতও এখানে সরব উপস্থিতি নিশ্চিত করার চেষ্টা করছে। রাখাইন ঘিরে এখন একটা পাল্টাপাল্টি অবস্থান দেখা যাচ্ছে। রোহিঙ্গা ইস্যুতে যখনই জাতিসংঘে যে কোনো ধরনের প্রস্তাব এসেছে সেটার বিরোধিতা চীন এবং রাশিয়া করেছে।

চীন একদিকে বাংলাদেশকে বলছে, রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশকে সহায়তা করবে। অপরদিকে চীন রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের নীতিকে সমর্থনের কথা প্রকাশ্যে বলছে। গত ২২ আগস্ট রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের প্রক্রিয়া চলাকালীনও মিয়ানমারে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত মিয়ানমার সেনাপ্রধানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের নীতিকে সমর্থন করেছেন।

মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের গণহত্যা চালিয়ে দেশ থেকে বিতাড়িত করেছে। রাখাইনসহ রোহিঙ্গাদের বসবাস অঞ্চলের ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দিয়েছে। আর চীন সে নীতিকে সমর্থন দিয়ে গণহত্যায় মদদ দিচ্ছে। কারণ রাখাইনে এখন চীনের অবকাঠামোগত উন্নয়ন হচ্ছে, চীনের সেনারা এখন সেখানে অবস্থান করছে।

অবশ্য গণহত্যাকে সমর্থন দেয়াটা চীনের জন্য নতুন কিছু নয়। ১৯৭১ সালেও চীন গণহত্যাকারী রাষ্ট্র পাকিস্তানকে সমর্থন দিয়ে তাদের অস্ত্র সাপ্লাই দিয়েছিল, যে অস্ত্র দিয়ে বাংলাদেশে ১৯৭১ সালে ইতিহাসের ভয়াবহ গণহত্যা সংঘটিত হয়েছিল। এমনকি চীন বাংলাদেশকে স্বীকৃতিও দিয়েছে অনেক পরে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পরদিন অর্থাৎ ১৯৭৫ সালের ১৬ আগস্ট চীন বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছিল। তাই রাখাইনে গণহত্যাকে সমর্থন দেয়া চীনের জন্য নতুন কিছু নয়।

মিয়ানমারের সবচেয়ে বড় বন্ধু চীন। দীর্ঘ সময় ধরে মিয়ানমারের সামরিক শাসকদের ক্ষমতার উৎস চীনের শাসকরাই। চীনই বিশ্ব মতামত উপেক্ষা করে তাদের টিকিয়ে রেখেছে। মিয়ানমার একচ্ছত্রভাবে চীনের নিয়ন্ত্রণে। সামরিক বিবেচনায় চীনের জন্যে মিয়ানমারকে নিয়ন্ত্রণে রাখা জরুরি। অর্থনৈতিক কারণেও জরুরি। শাসকদের মত মিয়ানমারের বিপুল প্রাকৃতিক সম্পদও চীনের নিয়ন্ত্রণে। ফলে রোহিঙ্গা সংকটের নেপথ্যে যে চীন তাতে এখন আর কোন সন্দেহ নেই।

জিনপিংয়ের এই সফরে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি আশা করেছিল বাংলাদেশ।পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন বলেছিলেন, এটি আমাদের জন্য ভালো এজন্য যে প্রেসিডেন্ট সাহেব আমাদের সঙ্গে একমত যে রোহিঙ্গারা ফেরত যাবে। আমরা বিশ্বাস করি উনি যখন মিয়ানমারে যাবেন তখন এই ইস্যুটা তুলবেন এবং এই ইস্যুটা তুললে দেয়ার উইল বি এ ব্রেকথ্রু।' তবে কার্যত সেসবের কিছুই হয়নি। মিয়ানমার সফরে 'রোহিঙ্গা ইস্যু' নিয়ে কোন আলোচনাই হয়নি।

তাহলে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে চীনের ওপর এতটা ভরসা করা কতটা সঙ্গত হচ্ছে বাংলাদেশের জন্য? এ ব্যাপারে কুয়ালালামপুরে মালয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্সটিটিউট অব চায়নার অধ্যাপক ড. সৈয়দ মাহমুদ আলী বলেন, "মিয়ানমার ও বাংলাদেশের বাইরে তৃতীয় দেশ হিসেবে শুধুমাত্র চীন রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশকে সাহায্য করতে পারে। তবে অর্থনৈতিক, ভূ-রাজনৈতিক কৌশলগত নিরাপত্তাসহ আরও নানা ইস্যুতে মিয়ানমার ও চীন একে অপরের ওপর অনেক নির্ভরশীল। তাদের মধ্যে সম্পর্কও বেশ ঘনিষ্ঠ। চীনের সমর্থন ছাড়া মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের মদদ পাওয়া বেশ কঠিন। কাজেই রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন সফল করতে, বাংলাদেশের সহায়তায় চীন কতোটা এগুবে সে বিষয়ে সন্দেহ থেকেই যায়।"

এসব ঘটনাক্রম বিশ্লেষণ করলে একথা বুঝতে সমস্যা হয় না যে, বাংলাদেশ রোহিঙ্গা সঙ্কট থেকে সেদিনই পরিত্রাণ পাবে, যদি কোনোদিন চীন আন্তরিকভাবে চায়। চীন চাইলে, মিয়ানমারও চাইবে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, চীন মানবতাকে নয় বরং বর্বর একটি গণহত্যাকে বছরের পর বছর সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে তার অর্থনৈতিক ও ভূ-রাজনৈতিক স্বার্থে। চীন নিজের স্বার্থ ছাড়া আর কিছুই বুঝে না।

লেখক-সাংবাদিক ও কলামিস্ট

উপরে