আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৩:৫৭

চার ‘বন্ধু’র নামে যৌনহয়রানির মামলা ঠুকে দিলেন ঋতুপর্ণা!

বিনোদন ডেস্ক
চার ‘বন্ধু’র নামে যৌনহয়রানির মামলা ঠুকে দিলেন ঋতুপর্ণা!

দু’জনের বান্ধবী ‘একজনই’! সম্পর্কটাও ঠাট্টা-ইয়ার্কিরই ছিল। কিন্তু সেই কৌতুক বন্ধুত্বের গণ্ডি পেরিয়ে টেলিভিশনের পরদায় আসতেই বিপত্তি বাধল! মানহানি এবং যৌন হেনস্থার অভিযোগ উঠল রুদ্রনীল ঘোষ, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়দের বিরুদ্ধে। অভিযুক্তের তালিকায় রয়েছেন সৃজিত মুখোপাধ্যায় এবং যিশু সেনগুপ্তও।
গত ডিসেম্বর মাসে ‘কালার্স বাংলা’ চ্যানেলের ‘সঙ্গে সৃজিত’ অনুষ্ঠানে ঋতুপর্ণা চৌধুরী নামে এক মহিলার প্রসঙ্গ ওঠে। শো’য়ের সঞ্চালক সৃজিত। পরিচালক যিশু। অতিথির আসনে রুদ্রনীল-পরমব্রত। তাঁদের দু’জনেরই বান্ধবী হিসেবে ঋতুপর্ণার প্রসঙ্গ ওঠে শো’এ। সেখানে ঋতুপর্ণাকে নিয়ে পরমব্রত-রুদ্রনীল কিছু ‘বিরূপ এবং অপমানজনক’ মন্তব্য করেন বলে অভিযোগ উঠে।

ঋতুপর্ণার আইনজীবী এল বিশাল কুমার বলেছেন, ‘‘ওই শো’এ আমার মক্কেলকে নিয়ে রীতিমতো অপমানজনক কথা বলা হয়েছে। আমরা মানহানি এবং যৌন নিগ্রহের মামলা দায়ের করেছি।’’ অভিযুক্তের তালিকায় রয়েছে যিশুর প্রযোজনা সংস্থা ‘ব্লু ওয়াটার্স’, ‘কালার্স’, ‘ভায়াকম’, চ্যানেল-কর্তৃপক্ষ সুজয় কুট্টি, রবীশ কুমার, সুধাংশু ভাটস’এর নামও। তবে সংস্থার নামে শুধু মানহানির মামলাই দায়ের করা হয়েছে। তাদের যৌন নিগ্রহের অভিযোগ থেকে বাদ রাখা হয়েছে বলে জানালেন ঋতুপর্ণার আইনজীবী বিশাল কুমার। 
একটা সময়ে পরমব্রত-রুদ্রনীলের সঙ্গে ঋতুপর্ণার বেশ ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল বলেই জানা যাচ্ছে। রুদ্রনীলের কথায়, ‘‘ও আমার আর পরম দু’জনেরই বন্ধু ছিল। এখনও আছে। মাঝেমধ্যে কথাবার্তাও হয়। সেই খাতিরেই আমরা কিছু মজার কথা বলেছি। কিন্তু তার জন্য এত কিছু ঘটবে ভাবিনি। বেশ অবাকই হয়েছি! এরপর তো কোনও বন্ধুর সঙ্গে ইয়ার্কি করতেও ভয় পাব।’’ 
অন্যদিকে ঋতুপর্ণা জানান, ‘‘মহিলা হিসেবে ওদের দু’জনের কথাবার্তায় অপমানিত হয়েছি। ওরা আমার খুবই বন্ধু ছিল। কিন্তু যে ভাষায় কথা বলেছে, সেটা লজ্জাজনক! কারও সম্পর্কে এভাবে কেউ কী করে কথা বলতে পারে! বিশেষ করে তারা যদি পরিচিত হয়!’’ 
ঋতুপর্ণা লেখালিখির পেশায় আছেন। চ্যানেল সূত্রে জানা যাচ্ছে, তিনি নাকি জানতেন এই শো’এ তাঁর কথা উঠবে। তাঁকে এ ব্যাপারে বলেই নেওয়া হয়েছিল। তাহলে? পরমব্রত, সৃজিত এবং রুদ্রনীলের এক ঘনিষ্ঠের মতে, এর পিছনে কারও উস্কানিও থাকতে পারে। 
অনুষ্ঠানটি সম্প্রচার হয়েছিল গত ডিসেম্বরে। তাহলে এতদিন পরে ঋতুপর্ণা মামলা করলেন কেন? তাঁর আইনজীবীর বক্তব্য, ‘‘কেস তৈরি করতে একটু তো সময় লাগে। সম্মাননীয় ব্যক্তিরা এ বিষয়ে জড়িয়ে রয়েছেন। সে কারণেই সময় নিয়ে প্রস্তুতি নিতে হয়েছে।’’

সৃজিতকে ঘটনা প্রসঙ্গে জিগ্যেস করা হলে তিনি বলেন, ‘‘ঋতুপর্ণা পরম আর রুদ্রর বান্ধবী ছিল। শো’এ ওকে নিয়ে কিছু আলোচনা হয়েছিল। যেটায় ওর খারাপ লেগেছে। সেই কারণেই নাকি মামলা। এর বেশি কিছু এখন বলতে পারব না।’’ পরমব্রত বাংলাদেশে আছেন। ফলে তাঁর সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে চ্যানেল সূত্রে বলা হচ্ছে, যে কোনও অনুষ্ঠানে ‘ডিসক্লেমার’ দেওয়া হয়। সেখানে বলে দেওয়া হয়, অতিথিদের মতামতের জন্য চ্যানেল কোনওভাবেই দায়ী নয়। 
ঋতুপর্ণার আইনজীবী জানান, আলিপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে ৫০১, ৫০২ এবং ৩৪ নম্বর ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে। আদালত অভিযুক্তদের আগামী ২৮ এপ্রিল হাজিরার নির্দেশ দিয়েছে।

সূত্র: কলকাতা থেকে প্রকাশিত এবেলা পত্রিকার

উপরে