আপডেট : ১১ জুলাই, ২০১৮ ১৪:২১

আবারও বড় ধরণের জরিমানার মুখোমুখি ফেসবুক

অনলাইন ডেস্ক
আবারও বড় ধরণের জরিমানার মুখোমুখি ফেসবুক

ব্যবহারকারীর তথ্য বেহাত করার জেরে এবার জরিমানার মুখোমুখি হতে যাচ্ছে ফেসবুক। যুক্তরাজ্যের তথ্য অধিকার সংরক্ষণ বিষয়ক সংস্থা ফেসবুককে পাঁচ লাখ পাউন্ড জরিমানার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা কেলেঙ্কারির কারণেই জরিমানার বিষয়টি আসছে। যুক্তরাজ্যের ইতিহাসে এ ধরনের জরিমানা এটিই সবচেয়ে বিশাল হবে।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ এ জরিমানার বিষয়ে কি ভাবছে বা এই জরিমানার পরিমাণ কমানোর আবেদন কমবে কি না তা এখনো জানা যায়নি। ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা রাজনৈতিক দলে ব্যবহারের জন্য অনৈতিকভাবে অসংখ্য ফেসবুক ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য সরবরাহ করেছিল। এর ফলেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন এবং ইউরোপিয় ইউনিয়ন থেকে ব্রিটেনের বেরিয়ে আসার বিষয়ে গণভোটের ফলাফলে প্রভাব পড়ে বলে অভিযোগ ওঠে। তথ্য অধিকার সংরক্ষণ বিষয়ক সংস্থাটি জানিয়েছে, আর্থিক জরিমানার পাশাপাশি বিলুপ্ত হওয়া ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার সহযোগী সংস্থা এসসিএল ইলেকশনের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করার কথাও ভাবছে তারা।

সেই সঙ্গে তারা যুক্তরাজ্যের ১১টি রাজনৈতিক দলের কাছে চিঠি দিয়েছে। যাতে করে তারা তাদের তথ্য যথাযথভাবে সংরক্ষণ করে এবং সেটি ঠিকমতো হচ্ছে কিনা তা নিরীক্ষা করে। দেশটিতে ব্রেক্সিট প্রশ্নে গণভোটের সময় রাজনৈতিক প্রচারণায় জনগণের ব্যক্তিগত তথ্য ব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে। তা নিয়ে তদন্তও ‍শুরু হয় তখন। এ তদন্ত শুরুর ১৬ মাস পরে তথ্য কমিশনারের অফিস থেকে ফেসবুককে জরিমানার উদ্যোগ এলো।

ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকার কাছে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্যগুলো মুছে ফেলার নিশ্চয়তা ফেসবুক দিতে পারে নি। এতে ফেসবুকের নীতির লঙ্ঘন হয়েছে বলে ধারণা তাদের। তবে বন্ধ হওয়ার আগে ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা ফেসবুকের কাছ থেকে অনুরোধের পর তারা সব তথ্য মুছে ফেলেছে বলে জানিয়েছিল। কিন্তু তথ্য কমিশনার অফিস বলছে সেসব তথ্য যে অন্যদের দেওয়া হয়েছে সে সংক্রান্ত প্রমাণ তাদের হাতে রয়েছে।

তথ্য বেহাতের ব্যাপক সমালোচনার কারণে গত মে মাসে ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা বন্ধ হয়ে যায়। আর তার আগের মাসে মার্কিন কংগ্রেসের উচ্চ-কক্ষে বিচার ও বাণিজ্য বিষয়ক যৌথ কমিটির ৪৪ জন সিনেটরের মুখোমুখি হন মার্ক জাকারবার্গ।

উপরে