আপডেট : ১৮ অক্টোবর, ২০১৭ ১৯:৫২

সোনালী ব্যাংকের চুক্তি হয়েছে পেপ্যালের সঙ্গেই

অনলাইন ডেস্ক
সোনালী ব্যাংকের চুক্তি হয়েছে পেপ্যালের সঙ্গেই
পেপ্যালের প্রধান অফিসের সামনে সোনালী ব্যাংকের তিন কর্মকর্তা

রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংক অনলাইন পেমেন্ট প্রসেসর পেপ্যাল-এর সঙ্গেই চুক্তি করেছে বলে দাকি তাদের।
১৯ অক্টোবর বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশে এই সেবা চালু হবে। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় পেপ্যাল সেবা উদ্বোধন করবেন। এজন্য প্রস্তুতিও সম্পন্ন করেছে সোনালী ব্যাংক। জানা যায়, সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রে পেপ্যালের প্রধান কার্যালয়ে চুক্তি করতে গিয়েছিলেন সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ওবায়দুল্লাহ আল মাসুদসহ শীর্ষ কর্মকর্তারা। ওই দলে ছিলেন সোনালী ব্যাংকের ফরেন রেমিটেন্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগের প্রধান আবুল লায়েস আফসারি। তিনি বলেছেন, ‘বাংলাদেশে একমাত্র সোনালী ব্যাংকের সঙ্গেই পেপ্যালের চুক্তি হয়েছে। এই চুক্তির জন্য প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্র তৈরি হয়েছে পেপ্যালের অফিসিয়াল প্যাডে। পেপ্যালের সঙ্গে আর্থিক লেনদেন করার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমতিও নেওয়া হয়েছে।’

পেপ্যাল সেবা বাংলাদেশে কার্যকরের জন্য দীর্ঘদিন থেকেই দাবি জানিয়ে আসছিল আইটি খাত ও ই-কর্মাস ব্যবসার সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা। তবে নীতিগত অনুমোদন, নিরাপত্তা ভাবনাসহ নানা কারণে এটি কার্যকরে সময়ক্ষেপণ করে বাংলাদেশ ব্যাংক। অবশ্য বাংলাদেশে অনানুষ্ঠানিকভাবে আগেই পেপ্যাল সেবা চালু হয়েছে বলে জানালেন সোনালী ব্যাংকের ফরেন রেমিটেন্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগের প্রধান। তার তথ্য অনুযায়ী, মঙ্গলবার (১৭ অক্টোবর) পর্যন্ত পেপ্যালের মাধ্যমে সোনালী ব্যাংকে ৩ কোটি ৮৮ লাখ ৯২ হাজার ৪৫৫ টাকা পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা।

এই কর্মকর্তা জানান, যেসব দেশে পেপ্যাল চালু আছে সেখানকার প্রবাসীরা এই সেবার মাধ্যমে সহজেই বাংলাদেশে রেমিট্যান্স পাঠাতে পারেন। একইভাবে আউটর্সোসিং বা ফ্রিল্যান্সাররাও সহজেই বৈদেশিক মুদ্রা পাঠাতে পারবেন। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি রাজ্য থেকে যে কেউ পেপ্যাল সেবার মাধ্যমে বাংলাদেশে টাকা পাঠাতে পারছেন। টাকা পাঠানোর ক্ষেত্রে এক হাজার ডলারের কম হলে চার্জ দিতে হয়। তবে এক হাজার এক ডলার থেকে ১০ হাজার ডলার পর্যন্ত পাঠাতে কোনও চার্জ দরকার হয় না। আবুল লায়েস আফসারির ভাষ্য, ‘এখন সোনালী ব্যাংকের আইটি বিভাগের কর্মকর্তারা সফটওয়্যারের উন্নয়ন ও পেপ্যালের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান জুমের সঙ্গে সমন্বয়ের জন্য কাজ করবেন।’
পেপ্যাল সেবা নিতে হলে সোনালী ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট থাকা বাধ্যতামূলক। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সোনালী ব্যাংকের ফরেন রেমিটেন্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগের প্রধান। তিনি জানান, যাদের সোনালী ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট নেই তারা এই সেবা পাবেন না। পেপ্যাল চালু হওয়ার পর শুধু আউটর্সোসিং থেকেই বছরে কমপক্ষে ১০০ কোটি ডলার পাওয়া যেতে পারে বলে আশার কথা শোনা গেলো তার মুখে।
এদিকে জুম হলো পেপ্যালের অধিগ্রহণ করা একটি প্রতিষ্ঠান। একত্র হওয়ার আগে এটি আমেরিকাভিত্তিক অনলাইন রেমিট্যান্স কোম্পানি হিসেবে পরিচিত ছিল। যেহেতু জুম এখন পেপ্যালের সেবা, তাই সোনালী ব্যাংকের চুক্তিও হয়েছে পেপ্যালের সঙ্গে। এর আগে গত ৯ অক্টোবর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এক অনুষ্ঠানে বলেন, ‘বাংলাদেশে পেপ্যাল আসছে।’

উপরে