আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৬:৪৬

বিশ্বের ভয়ংকর সব খেলা, যেখানে মৃত্যুর ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি!

স্পোর্টস ডেস্ক
বিশ্বের ভয়ংকর সব খেলা, যেখানে মৃত্যুর ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি!

শরীর ও মনকে সুস্থ রাখার অন্যতম একটি মাধ্যম খেলাধুলা। খেলা মানেই আনন্দ। খেলা মানুষের মন ভালো করে। খেলা মানুষকে সুস্থ্য করে ও দীর্ঘজীবি করে। খেলা মানুষের মেধার বিকাশ ঘটে।

তবে পৃথিবীতে এমন সব উদ্ভট খেলা আছে যেগুলা আমাদের দেশের মানুষ পাগলামি বলে থাকে। যেমন বড় কোনো পাহার বা বিল্ডিং থেকে লাফ দিয়ে তারপর প্যারাসুট ব্যাবহার করে মাটিতে নামা। বড় বড় ষাঁড়ের পীঠে বসে লাফালাফি করা আরও অনেক।
বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর খেলা কোনগুলি জানেন? জেনে নেব তেমনই কিছু ভয়ঙ্কর বা রোমাঞ্চকর খেলার নাম:

শুরু করি বেস জাম্পিং দিয়েঃ
বেস জাম্পিং খেলাকে ধরা হয় বর্তমান সময়ের সবচেয়ে বিপদজনক খেলা হিসেবে। এই খেলাতে মৃত্যুর ঝুঁকি সবচেয়ে বেশী। এই খেলাটি করা হয় ঠিক এভাবে। বড় বা অনেক উঁচু কোন পাহাড়ের চুরাই উঠে নিচে লাফ দিয়ে পরা আর মাটিতে নামার সময় প্যারাসুট ব্যাবহার করার নিচে নামা। পরিসংখ্যান অনুযায়ী প্রতি ৬০ টি বেস জাম্পিং দেবার সময় একটিতে দুর্ঘটনা ঘটে এবং সেখানে প্রাণহানির মতো ঘটনাও ঘটে থাকে। তবুও অ্যাডভেঞ্চার প্রেমী

মানুষেরা কি আর থেমে থাকে। তাঁরা ঠিকই লাফ দেয় কোন কিছুর তোয়াক্কা না করে। নরওয়ে কে বেস জাম্পিংয়ের জন্য সবচেয়ে উত্তম দেশ বলা হয়ে থাকে কারন সেখানে আছে সুন্দর সবুজে ঘেরা উঁচু উঁচু পাহাড়।

ফ্রি হ্যান্ড ক্লাইম্বিং বা খালি হাতে পাহাড় বেয়ে ওঠা-
এই খেলাটি করতে হলে আপনাকে খালি হাতে পাহাড় বেয়ে উঠতে হবে যেটি আপনাকে একেবারে মৃত্যুর মুখোমুখি করতে পারে। সবাই অনেক সাহস দেখিয়ে পাহারে এমন খালি হাতে পাহারে ওঠা শুরু করে অনেকেই বেঁছে জান নিচে পানি থাকার দরুন কিন্তু যারা প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত নয় এবং সাহস দেখিয়ে খাঁড়া পাহাড় বেয়ে ওঠার চেষ্টা করে তাদের পরিনতি খুব খারাপ হয়ে থাকে। প্রতি বছর এই খেলাটি করতে গিয়ে অনেকই তাদের প্রান হারান।

কেভ ডাইভিং–
কেভ ডাইভিং খেলাটা ঠিক এমন যেখানে আপনাকে পাহাড়ের নিচে অন্ধকার পানির মধ্যে সাঁতার কেটে সামনে আগাতে হবে। অনেকেরই কাছে এটি একটি রোমাঞ্চকর খেলা। খেলাটি প্রথম শুরু হয়েছিল ১৯৩৬ সালের দিকে অ্যামেরিকাতে। আর এটির জনক জ্যাক শেফার্ড কেভ। তখনকার সময় এই খেলাটি শুধু পর্যটকদের ভেতরে ছিল কিন্তু বর্তমানে কয়েক বছর ধরে এটি সবার কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। কিন্তু সর্বোপরি এই খেলাটিও কোনরকম বিপদ থেকে দূরে না কারন এখানে পথভ্রষ্ট হয়ে এবং লোকানো পাহাড়ের খণ্ডের সাথে ধাক্কা খেয়ে অনেকেই আহত হয়েছে।

হেলি স্কিং-
একটি হেলিকাপ্টার আপনাকে বরফের পাহাড়ের চুরাই নিয়ে গেলো তারপর সেখান থেকে নিচে লাফ দিয়ে পাহাড়ের চুরাই নামতে হবে এবং স্কি করতে করতে পাহাড় বেয়ে নিচে নেমে আসতে হবে। কথা গুলো শুনতে খুব মজার মনে হলেও বাস্তবে কিন্তু ঠিক এমন কিছু হয়না।আপনি যত উঁচু পাহাড় নির্বাচন করতে পারবেন ততবেশি রোমাঞ্চকর পরিস্থিতির স্বাদ নিতে পারবেন।পরিসংখ্যান হিসেব করলে দেখা যাবে যে প্রতি বছরই অনেক হেলি স্কিং ড্রাইভার দের মৃত্যু হয় পাহাড় ধশে পরার কারনে।

বুল রাইডিং–
পাগলা ষাঁড়ের পীঠে বশে তাকে ঘুরিয়ে নিয়ে বেড়ানোর নাম বুল রাইডিং। খেলাটির নিয়ম ঠিক এমন যে আপনাকে একটি পাগলা ষাঁড়ের পীঠে বসিয়ে দেয়া হবে। আপনি ষাঁড়ের পীঠে বসা মাত্রই সে লাফালাফি শুরু করবে ও আপনাকে তার ওপর থেকে নিচে নামিয়ে দেবার চেষ্টা করবে। খেলার নিয়ম আনুজাই আপনাকে ন্যূনতম ৮ সেকেন্ড বশে থাকতে হবে। কথা শুনে খুব সহজ মনে হলেও বাস্তবে কিন্তু এতো সোজা না।

সার্ফিং–
সমুদ্রের বড় বড় ঢেউ ওপর দিয়ে নিজের শরীর কে ভাসিয়ে নিয়ে যাওয়া সত্যি অনেক রোমাঞ্চকর। অবকাশ যাপন করার জন্য খেলাটি অনেক পরিচিত। পৃথিবীর অন্যান্য দেশে সার্ফিং এতোটাই জনপ্রিয় যে সেখানকার বাচ্চারা ছোটবেলা থেকে সার্ফিং করা শিখতে থাকে। বর্তমানে সার্ফিং পেশাদার খেলা হিসেবে ধরা হচ্ছে এবং বহির্বিশ্বে অনেক ধরনের টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হচ্ছে এই খেলাকে কেন্দ্র করে। তবে আপনার কাছে এই খেলাটি জতই মজার বা রোমাঞ্চকর মনে হোক না কেন বাস্তবে কিন্তু এতো সহজ না। সমুদ্রের বড় বড় ডেউয়ে সার্ফিংএ ভয়ংকর পরিস্থিতিতে অনেকেই পরেছে এবং এমনো হয়েছে যে তাঁরা প্রান নিয়ে আর ফিরে আসতে পারিনি।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এসএম

উপরে