আপডেট : ৯ অক্টোবর, ২০১৮ ১১:২৪

আবারও ডিগবাজি দেওয়ার অপেক্ষায় মওদুদ?

অনলাইন ডেস্ক
আবারও ডিগবাজি দেওয়ার অপেক্ষায় মওদুদ?

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ গতকাল সোমবার সকালে প্রেস কনফারেন্স করেছেন। শুধু গতকালই নয়, বেশ কয়েকদিন ধরেই বিভিন্ন বিষয়ে সোচ্চার মওদুদ আহমেদ। কখনো সাধারণ নির্বাচনের জন্য নিরপেক্ষ সরকারের রূপরেখা প্রস্তাব করে, কখনো নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে আন্দোলনের হুমকি দিয়ে তিনি রাজনৈতিক অঙ্গন সরগরম করে তুলছেন।

মওদুদ আহমেদের এই হঠাৎ তৎপরতা দেখে রাজনৈতিক অঙ্গনে প্রশ্ন উঠেছে, আবার  কি ডিগবাজি খাওয়ার সময় হয়েছে তাঁর? কারণ ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ যখনই তৎপর হন, তখনই তাঁকে দল পরিবর্তন করতে দেখা যায়।

নিজের রাজনৈতিক জীবনের শুরুতে মওদুদ আহমেদ বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ১৯৭৭-৭৯ সালে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সরকারের মন্ত্রী ও উপদেষ্টা ছিলেন মওদুদ আহমেদ। ১৯৭৯ সালে প্রথমবারের মতো তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে এক ক্যুতে ১৯৮১ সালের মে মাসে জিয়াউর রহমান নিহত হলে এক বছরের ভেতর হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ রাষ্ট্রক্ষমতা গ্রহণ করেন।

এরশাদ ক্ষমতায় আসার পর মওদুদ আহমেদ প্রথমে এরশাদের বিরুদ্ধে খুব সোচ্চার ছিলেন। নিজের নেতার মৃত্যুর পর যে রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসে, তাঁর বিরুদ্ধে মওদুদের সোচ্চার হওয়াকে স্বাভাবিকভাবেই নিয়েছিল সবাই। কিন্তু হঠাৎ একদিন দেখা গেল মওদুদ আহমেদ জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়েছেন। মওদুদের এই দল পরিবর্তন তখন আলোচনার জন্ম দিয়েছিল।

জাতীয় পার্টির হয়ে ১৯৮৫ সালে মওদুদ আহমেদ সরকারের তথ্য মন্ত্রীর এবং ১৯৮৬ সালে উপ-প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৮ সালে প্রধানমন্ত্রী হন তিনি। ১৯৮৯ সালে তাকে শিল্প মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয় এবং এরশাদ তাঁকে উপ-রাষ্ট্রপতি করেন। সে সময় মওদুদ আহমেদ এরশাদের অধীনে নির্বাচনের ফর্মুলা দিয়েছিলেন। কিন্তু ১৯৯০ সালে এরশাদ সরকারকে জনরোষের মুখে ক্ষমতা ছেড়ে দিতে হয়। পরবর্তীতে ১৯৯১ সালের নির্বাচনে জাতীয় পার্টির হয়ে তিনি নোয়াখালী আসনে পরাজিত হন। তবে এরশাদের ছেড়ে দেওয়া রংপুরের একটি আসনে নির্বাচিত হয়ে সংসদ সদস্য হওয়ার সুযোগ পান মওদুদ আহমেদ।

১৯৯১ এর নির্বাচনে জিতে সরকার গঠন করেছিল বিএনপি। কিন্তু এক পর্যায়ে দেশে বিএনপির বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু হয়। সে আন্দোলনের সময় দেখা গেল বিএনপির বিরুদ্ধে অত্যন্ত সোচ্চার মওদুদ আহমেদ। বিভিন্ন সভা-সেমিনারে, লিয়াজোঁ কমিটির বৈঠকে বিএনপির বিরুদ্ধে কথা বলেন তিনি। কিন্তু ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে আবারও ডিগবাজি দিয়ে বিএনপিতে যোগ দিলেন তিনি। তারপর থেকে এখন পর্যন্ত বিএনপির সঙ্গেই আছেন মওদুদ আহমেদ।

কিন্তু লক্ষ্যনীয় বিষয় হচ্ছে, হঠাৎ করেই আবার তৎপর হয়ে উঠেছেন মওদুদ আহমেদ। তাঁর তৎপরতা দেখে তাই রাজনৈতিক অঙ্গনে প্রশ্ন উঠছে, আবার কি তাঁর ডিগবাজি খাওয়ার সময় হলো?

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে