আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০৮:০০

ড. কামালের জাতীয় ঐক্যে সাঁড়া দিলেন যে সুশীলরা

অনলাইন ডেস্ক
ড. কামালের জাতীয় ঐক্যে সাঁড়া দিলেন যে সুশীলরা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে যুক্তফ্রন্ট, গণফোরামসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের উদ্যোগে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া গঠিত হয়েছে।

ঐক্য প্রক্রিয়ার আহ্বানে গত শনিবার মহানগর নাট্যমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল নাগরিক সমাবেশ। অর্থ্যাৎ বেশ জোরেসোরেই নিজেদের কর্মকাণ্ড এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে নবগঠিত এই জোট।

তবে জোটের নেতারা চাইছেন, এই ঐক্য প্রক্রিয়ায় শুধু রাজনৈতিক দলগুলোর অংশগ্রহণই নয়, বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের অংশগ্রহণও নিশ্চিত হোক। এই উদ্দেশ্যে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় দেশের সুশীল সমাজের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার জন্য শিগগিরই সুশীল সমাজের সঙ্গে বৈঠক করার উদ্যোগ নিয়েছে নতুন এই জোটের নীতিনির্ধারকরা।

ইতিমধ্যেই ঐক্য প্রক্রিয়ার পক্ষ থেকে অনেক হেভিওয়েট মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে আর এই ব্যাপারে সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করছেন বিএনপিপন্থী বুদ্ধিজীবী ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

জোটটির জন্য দুঃসংবাদ হলো, অংশগ্রহণের বিষয়ে সুশীল সমাজের অনেকের কাছ থেকেই নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া পেয়েছেন তাঁরা।

তবে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার জন্য আশার আলোও দেখা যাচ্ছে। সুশীল সমাজের বড় একটি অংশ এই রাজনৈতিক জোটে অংশগ্রহণে অনীহা দেখালেও অনেকে আবার এই জোটে সম্পৃক্ত হতে সম্মতিও জ্ঞাপন করেছেন।

এদেরই একজন গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা শান্তিতে নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস। বর্তমানে তিনি ইতালিতে আছেন। বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, শিগগিরই ঢাকায় ফিরে তিনি এই প্রক্রিয়ার নিজেকে সম্পৃক্ত করবেন। জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার একটি গতিশীল সময়ে নিজেকে এর সঙ্গে যুক্ত করবেন বলে জাতীয় ঐক্যের নেতা ড. কামাল ও ডা. জাফরুল্লাহকে নিশ্চিত করেছেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস।

ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য আগে থেকেই এই ঐক্য প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত আছেন। ঐক্য প্রক্রিয়ার বিভিন্ন কৌশলগত কাজ করছেন তিনি। অধ্যাপক দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য শেষ পর্যন্ত ঐক্য প্রক্রিয়ার সঙ্গে থাকবেন বলেই নিশ্চিত করেছে সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো।

এক এগারোর সময় ফখরুদ্দিন-মঈনুদ্দীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ছিলেন ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন। তিনিও জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় যোগ দেবেন। উল্লেখ্য, গত ২২ সেপ্টেম্বর জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার আহ্বানে আয়োজিত নাগরিক সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন তিনি।

সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারও নির্দিষ্ট সময়ের পর এই ঐক্যের সঙ্গে সম্পৃক্ততার ঘোষণা দেবেন বলে জানা গেছে। ইতিমধ্যেই তিনি সারাদেশের ভোটার তালিকা, প্রার্থীদের তথ্য সংগ্রহের কাজগুলো সুজনের মাধ্যমে করছেন। এছাড়া অনেক আগে থেকেই জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ রয়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে সরকারের সমালোচনা করে বই লিখে বহুল আলোচিত সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহাও জাতীয় নাগরিক ঐক্যে যোগ দিতে যাচ্ছেন। বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে, আগামী ৮- ১০ দিনের মধ্যে একটি আনুষ্ঠানিক বিবৃতির মাধ্যমে জাতীয় ঐক্যের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করবেন এস কে সিনহা।

সুশীল সমাজের স্বচ্ছ ইমেজের ব্যক্তিত্বদের না পেলেও বিভিন্ন কারণে আলোচিত-সমালোচিত কয়েকজন সুশীলকে পাশে পাচ্ছে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া। জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় এমন সুশীলদের অংশগ্রহণ জনগণের কাছে এর গ্রহণযোগ্যতা আরও বাড়াবে কিনা তা নিয়ে অবশ্য সন্দিহান রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে