আপডেট : ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১১:০৩

বাসায় গিয়ে বি. চৌধুরীর কাছে ক্ষমা চাইলেন বিএনপি নেতারা

অনলাইন ডেস্ক
বাসায় গিয়ে বি. চৌধুরীর কাছে ক্ষমা চাইলেন বিএনপি নেতারা

অতীত ভুলের জন্য বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বাসায় গিয়ে ক্ষমা চেয়েছেন বিএনপি নেতারা।

নির্বাচন সামনে রেখে ‘যুক্তফ্রন্ট’ ও ‘জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার’ সমাবেশের আগের দিন শুক্রবার বিকাল সোয়া ৫টার দিকে বি. চৌধুরীর বাড়িতে গিয়ে সোয়া এক ঘণ্টা বৈঠক করলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ তিন বিএনপি নেতা।

এসময় ১৬ বছর আগে রাষ্ট্রপতির পদ থেকে বদরুদ্দোজা চৌধুরীর পদত্যাগ এবং এর পরবর্তী আচরণের জন্য নিজেদের ভুল স্বীকার করে তার কাছে ক্ষমা চেয়েছে বিএনপি।

বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ও খন্দকার ড. মোশাররফ হোসেন। সেখানে বি. চৌধুরীর সঙ্গে সমসাময়িক রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন বিএনপির শীর্ষ তিন নেতা।

বৈঠক সূত্র জানিয়েছে, আলোচনার এক পর্যায়ে বি. চৌধুরীর কাছে অতীত ভুলের জন্য দুঃখপ্রকাশ করেন বিএনপি নেতারা। পাশাপাশি রাজনৈতিক আন্দোলনে এক হয়ে কাজ করার জন্য বি চৌধুরীকে আহ্বান জানান।

বৈঠক সূত্র জানিয়েছে, জবাবে বি চৌধুরী বলেছেন, গণতান্ত্রিক কোনো আন্দোলনে বিকল্পধারা পাশে থাকবে। তবে তার আগে জামায়াতকে বাদ দিয়ে আসতে হবে।

শনিবার মহানগর নাট্যমঞ্চে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এই সমাবেশে বি চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে অংশ নেবেন। বিএনপির একটি প্রতিনিধিদলও ওই সমাবেশে অংশ নেবে।

বিকল্পধারার মহাসচিব আবদুল মান্নান ও যুগ্ম মহাসচিব মাহি বি চৌধুরীও উপস্থিত ছিলেন ওই বৈঠকে। জানা গেছে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সমাবেশে বি. চৌধুরী থাকবেন কি না এটা নিশ্চিত হওয়ার জন্য বিএনপি নেতারা তার বাসায় যান।

বৈঠকের বিষয়ে মাহি বি চৌধুরীর বলেছেন, নিয়মিত রাজনৈতিক যোগাযোগের অংশ হিসেবে বিএনপি নেতারা এসেছিলেন। তাদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তবে জামায়াতকে বাদ না দিলে তাদের সঙ্গে রাজনৈতিক কোনো ঐক্য হবে না।

প্রসঙ্গত, জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিএনপির জয়লাভের পর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান বি. চৌধুরী। পরবর্তীকালে ১৪ নভেম্বর ২০০১ এ তিনি রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব লাভ করেন। এবং ২০০২ সালের ২১ জুন পর্যন্ত দায়িত্বে ছিলেন। ২০০২ সালের ২১ জুন দলের অভ্যন্তরের অন্যান্য নেতাদের চাপে তিনি রাষ্ট্রপতির পদ হতে পদত্যাগ করেন।

প্রেসিডেন্ট পদ থেকে পদত্যাগের পর ড. বি চৌধুরী বিএনপি থেকেও পদত্যাগ করেন। পরবর্তীকালে মুন্সীগঞ্জ-১ আসন থেকে নির্বাচিত তার ছেলে মাহি বি চৌধুরী ও ও বিএনপির আরেকজন সংসদ সদস্য এম এ মান্নানও সংসদ থেকে পদত্যাগ করেন।

এরপর থেকে বিএনপির সঙ্গে রাজনৈতিক দূরত্ব তৈরি হয় বি. চৌধুরীর। মার্চ ২০০৪ এ বি চৌধুরীর উদ্যোগে বিকল্পধারা বাংলাদেশ নামে নতুন একটি রাজনৈতিক দল গঠন করেন।

উপরে