আপডেট : ২১ মে, ২০১৮ ২০:৩১

পাঁচ সিটিতেই বিএনপিকে ঘায়েল করতে চায় আ.লীগ

অনলাইন ডেস্ক
পাঁচ সিটিতেই বিএনপিকে ঘায়েল করতে চায় আ.লীগ

খুলনা সিটি নির্বাচনে জয়ের পর বাকী ৪ সিটির দিকে নজর আওয়ামী লীগের। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে গাজীপুরসহ চার সিটি করপোরেশন নির্বাচন করে বিজয় পতাকা উড়াতে চায় দলটি। দলের নীতি নির্ধারকরা মনে করছে, এর ফলে জাতীয় নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগের মনোবল চাঙ্গা থাকবে। এছাড়া দলের কোন্দলও কমে আসবে বলে মনে করছেন দলের সিনিয়র নেতারা।

খুলনা বিজয়ের পর আওয়ামী লীগের চোখ এখন গাজীপুরে। গাজীপুরে জয় পেতে সর্বোচ্চ শক্তি প্রয়োগের ইঙ্গিত দিয়েছে দলের নীতি নির্ধারকরা। গতকাল রাতে প্রধানমন্ত্রী খুলনায় নির্বাচনে বিজয়ী প্রার্থী এবং নেতাকর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করেন। ঐ বৈঠকেই তিনি জাতীয় নির্বাচনের আগে আরও চারটি সিটি নির্বাচনও ঐক্যবদ্ধভাবে করার নির্দেশ দেন। গতকালই আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা গাজীপুরে আহসান উল্লাহ মাস্টারের ছেলে রাসেলের বাসায় দীর্ঘ বৈঠক করনে। ঐ বৈঠকে অবিলম্বে দলীয় কোন্দল এবং বিরোধ মিটিয়ে ফেলার নির্দেশ দেন। লে. কর্নেল (অব:) ফারুক খানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা গাজীপুরের আওয়ামী লীগকে কঠোর বার্তা দিয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, যেহেতু গাজীপুরে এখন নির্বাচন কমিশনের নিষেধাজ্ঞা নেই, তাই এখনই মন্ত্রীদের গাজীপুরে নিয়ে এসে জনসংযোগ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। রাতেই ফারুক খান এবং জাফর উল্লাহ চৌধুরী প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে গাজীপুরের সর্বশেষ পরিস্থিতি অবহিত করেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, শান্তি নিকেতন সফর শেষ করেই গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বসবেন। প্রধানমন্ত্রী যেকোনো মূল্যে গাজীপুরে দলের বিভক্তি এবং কোন্দল মিটিয়ে ফেলার নির্দেশ দিয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে গাজীপুর জিতলে আওয়ামী লীগ চাইবে আরও তিনটি (সিলেট, বরিশাল ও রাজশাহী) সিটি নির্বাচন করে ফেলতে। এ নিয়ে খুলনা নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগের দ্বিধা ও সংশয় ছিল। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে এই নির্বাচনের নেতিবাচক ফলাফল জাতীয় নির্বাচনের ওপর প্রভাব ফেলত বলেই আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের ধারণা। তাছাড়া তখন বিএনপিকে নির্বাচনে আনার জন্য জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক চাপ বাড়তো। বিএনপি তখন জাতীয় নির্বাচন বর্জন করলে আওয়ামী লীগের জন্য অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন প্রমাণ করা কঠিন হতো।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, ৪ সিটিতে যদি আওয়ামী লীগ জয়ী হয় তাহলে ‘বিএনপি ছাড়া অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন সম্ভব না’- এই বক্তব্যের কোনো ভিত্তি থাকবে না।

তাছাড়া ৪ টির নির্বাচন দিয়ে জাতীয় নির্বাচনের একটি আবহ তৈরি করতে চায় আওয়ামী লীগ। যে নির্বাচনী আবহে সব রাজনৈতিক দলই নির্বাচনমুখী হবে। ২০১৪’র মতো রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচন বর্জনের পথে পা বাড়াবে না।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহল মনে করে, নির্বাচন বর্জনে বিএনপিকে একলা করতে পারলেই আওয়ামী লীগ সরকার একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন করতে পেরেছে বলে প্রমাণ করতে পারবে। তাছাড়া ৫ সিটিতে হারার পর বিএনপি জনপ্রিয় দল তাকে বাদ দিয়ে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন সম্ভব না- এমন বক্তব্যেও জোর থাকবে না। তাই ৫ সিটি দিয়ে বিএনপিকে ঘায়েল করতে চাইছে সরকার। যেন কারও কাছে এটা মনে না হয়, বিএনপি নেই তাই নির্বাচন অর্থহীন। বরং জনগণের কাছে বিএনপির আগের আবেদন নেই, এটা প্রমাণ করাই সরকারের প্রধান লক্ষ্য। যাতে আগামী নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ করা না করা গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু না হয়।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে