আপডেট : ২১ নভেম্বর, ২০১৭ ২১:০১

লন্ডনের একটি ফোনেই সেনাকুঞ্জে যাওয়া হল না খালেদার!

অনলাইন ডেস্ক
লন্ডনের একটি ফোনেই সেনাকুঞ্জে যাওয়া হল না খালেদার!

আজ ২১ নভেম্বর সশস্ত্র বাহিনী দিবস। ‘মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ১৯৭১ সালের ২১ নভেম্বর সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর সদস্যরা সম্মিলিতভাবে দখলদার পাকিস্তানী বাহিনীর বিরুদ্ধে সমন্বিত আক্রমণের সূচনা করে। প্রতি বছর এ দিনটি ‘সশস্ত্র বাহিনী দিবস’ হিসেবে পালন করা হয়ে থাকে।

প্রতিবারের ন্যায় এবারও দিনের কর্মসূচীর অংশ হিসেবেই বিকেলে সেনাকুঞ্জে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা এতে অংশ নেন। তবে অন্যান্যবারের ন্যায় এবারও খালেদা জিয়া সশস্ত্র বাহিনী দিবসের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেননি।

অথচ দেশবাসী এই দিনটির জন্য অধীর অপেক্ষায় ছিল। তাঁরা আশা করেছিল এদিন খালেদা জিয়া সশস্ত্র বাহিনী দিবসে আসবেন। সেখানে দেশের প্রধান দুই নেত্রীর কুশল বিনিময় হবে। রাজনৈতিক যে গুমোট আবহাওয়া সেটা কিছুটা হলেও কমবে। কিন্তু লন্ডনের একটি ফোনেই দেশবাসীর সেই আশা আর পূরণ হল না।   

খোঁজ নিয়ে জানা যায় বেগম খালেদা জিয়া, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও লে: জে:(অব:) মাহবুবু রহমানসহ অন্যান্য নেতারা অনুষ্ঠানে যাবার জন্য প্রস্তুতি নিলেও শেষ মূহূর্তে লন্ডনের একটি ফোনই বাধা হয়ে দাড়ায়। সশস্ত্র বাহিনী দিবসের অনুষ্ঠানে না যাওয়ার নির্দেশনা আসে লন্ডন থেকে। তাই এবারও সশস্ত্র বাহিনী দিবসে যোগ দিতে পারলেন না খালেদা জিয়া।

জানা যায়, গত কয়েক বছর ধরেই তিনি ওই অনুষ্ঠানে যাচ্ছেন না। গত ওয়ান-ইলেভেনের আগে খালেদা জিয়া সশস্ত্র বাহিনীর অনুষ্ঠানে নিয়মিত যোগ দিতেন। এরপর তিনি আর সশস্ত্র বাহিনী দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দেননি।

ওয়ান-ইলেভেনের পর বেগম খালেদা জিয়া একবারই ওই অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন ২০১২ সালে। তখন দেশে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা নিয়ে দুই দল মুখোমুখি অবস্থানে ছিল। ওই অবস্থার মধ্যেও বেগম খালেদা জিয়া সশস্ত্র বাহিনী দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দেন। ওই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মুখোমুখিও হন একবার। সে সময় তাদের মধ্যে দু’একটি বাক্যবিনিময় হয়েছিল। এরপর থেকে তিনি আর সশস্ত্র বাহিনী দিবসে যোগ দেননি।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে