আপডেট : ১৯ আগস্ট, ২০১৭ ১৮:২২

লতিফ সিদ্দিকীও কি রাজনীতিতে ফিরছেন?

অনলাইন ডেস্ক
লতিফ সিদ্দিকীও কি রাজনীতিতে ফিরছেন?

হজ নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করে মন্ত্রিত্ব ও আওয়ামী লীগের সদস্য পদ হারানো লতিফ সিদ্দিকী কি আবার রাজনীতিতে ফিরছেন? দীর্ঘ নীরবতার পর তিনি কি আবার নির্বাচনে অংশ নিতে যাচ্ছেন? লতিফ সিদ্দিকী কি প্রধানমন্ত্রীর সবুজ সংকেত পেয়েছেন? এমন জল্পনা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক অঙ্গনে।

দীর্ঘদিন পর আজ শনিবার (১৯) বিকেলে ঢাকার রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রকাশ্যে এসেছেন লতিফ সিদ্দিকী। এই সংবাদ সম্মেলনকে ঘিরেই তার নির্বাচনী এলাকা টাঙ্গাইল সহ সারাদেশে চলছে এসব আলোচনা।

সংবাদ সম্মেলনে ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ের ওপর লিখিত সমালোচনা পাঠ করেন লতিফ সিদ্দিকী। আওয়ামী লীগের সাবেক এই নেতা বলেন, রায় কে লিখে দিয়েছে জানি কিন্তু বলব না। সব কথা বলা যায় না।

লতিফ সিদ্দিকী আরও বলেছেন, ষোড়শ সংশোধনী নিয়ে উচ্চ আদালতের কর্মকাণ্ড ষড়যন্ত্র কি না তা ইতিহাসের গবেষণার বিষয় হলেও এই রায় ষড়যন্ত্রকারীদের একটি বড় অস্ত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে। ব্যাপারটা আওয়ামী লীগ নেতৃত্ব সঠিকভাবে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী এবং আইনমন্ত্রী পরিস্থিতি মোকাবেলায় সঠিক কৌশল নিলেও, অন্যরা ষড়যন্ত্রকে উস্কে দেওয়ার সুযোগ করে দিচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে তার স্ত্রী লায়লা সিদ্দিকীও উপস্থিত ছিলেন।

২০১৪ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর লতিফ সিদ্দিকী নিউ ইয়র্কে টাঙ্গাইল সমিতির এক অনুষ্ঠানে হজ নিয়ে বিরূপ কথা বলেন। নিজেকে ‘অহংকারী’ উল্লেখ করেই লতিফ সিদ্দিকী বলেছিলেন, “আমি কিন্তু হজ আর তাবলিগ জামাত দুটোর ঘোরতর বিরোধী। আমি জামায়াতে ইসলামীর যতটা বিরোধী, তার চেয়ে বেশি হজ আর তাবলিগের বিরোধী।

পরে সংসদে আবেগময় বক্তব্য দিয়ে জাতির কাছে ক্ষমাও চেয়েছিলেন। লতিফ সিদ্দিকীর ছোট ভাই বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীর উত্তমও ভাইয়ের জন্য জাতির কাছে ক্ষমা চেয়েছিলেন। এর পর থেকে তিনি আর প্রকাশ্যে আসেননি।

এর আগে সকালে সংবাদ সম্মেলনের বিষয়ে লতিফ সিদ্দিকীর সঙ্গে টেলিফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,‘ ষোড়শ সংশোধনী নিয়ে কথা বলবো। অন্যান্য বিষয় তো আসতেই পারে।’

রাজনীতিতে কি আবার ফিরছেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন,‘ এভাবে এক কথায় এই প্রশ্নের উত্তর দেয়া যায় কি?

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে