আপডেট : ৪ মার্চ, ২০১৬ ২০:২৭

‘বিএনপি ফিনিক্স পাখির মত জেগে উঠবে’- মির্জা ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক
‘বিএনপি ফিনিক্স পাখির মত জেগে উঠবে’- মির্জা ফখরুল

আসন্ন কাউন্সিলের মাধ্যমে বিএনপি সারাদেশে ফিনিক্স পাখির মত জেগে উঠবে বলে মনে করেন দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম ।

রাজধানীর কাফরুলে হালিম ফাউন্ডেশন মডেল স্কুলে ৪ মার্চ শুক্রবার বিকালে এক স্বরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

‘কাফরুল থানা বিএনপির আহ্বায়ক আলী আজগর মাতাব্বরের কুলখানি ও স্বরণসভার আয়োজন করে থানা বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন।

দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমাদের ভুলে গেলে চলবে না, বাংলাদেশের বিএনপির দিকে তাকিয়ে, বিএনপির নেতৃত্বের দিকে তাকিয়ে আছে। খালেদা জিয়ার নেতৃত্বের দিকে তাকিয়ে আছে। আসন্ন কাউন্সিলের মধ্য দিয়ে সারাদেশে বিএনপি ফিনিক্স পাখির মত জেগে উঠবে। আমাদের যে অধিকার তা ফিরিয়ে আসতে পারব। ভোটের অধিকার ফিরিয়ে আনতে পারব, গণতন্ত্রের অধিকার ফিরিয়ে আনতে পারব।জনগণের সরকার গঠন করতে আমরা সক্ষম হব।’

তিনি বলেন, ‘অধিকার ফিরিয়ে আনতে ঐক্য বদ্ধ হতে হবে। এখানে বিভক্তির কোনো সুযোগ নেই। আজকে যে সংকট সৃস্টি হয়েছে। আজকে বিপদ এসেছে তাতে শুধু বিএনপির ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে না, সমস্ত দেশে, সমস্ত জাতি আজকে বিপদের মধ্যে পড়েছে। এই জন্যই আমাদেরকে ঐক্য হয়ে সাহসের সঙ্গে মোকাবিলা করতে হবে।’

‘খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে যতই মামলা দেওয়া হউক না কেন তাকে কেউ বাধা দিতে পারবে না। কারণ তিনি দীর্ঘকাল গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করে চলেছেন’ বলেন ফখরুল।

ফখরুল আরো বলেন, ‘আমাদের নেতাকর্মীদের যতই হত্যা করা হউক না কেন তারা আবারও নতুন চেতনা নিয়ে সাহস নিয়ে গণতন্ত্রের জন্য লাড়াই করে যাচ্ছে।’

দেশে রাজনীতি বলে কিছু নেই এমনটা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘যখন আমাদের অধিকারগুলোকে ছিনিয়ে নেওয়া হয়। আমরা আজকে কথা বলতে পারি না। লিখতে পারি না, সংগঠন করতে, সমাবেশ করতে বাধা দেওয়া হয়। এমন একটি পরিস্থতির মধ্যে চলতে হচ্ছে। এখন একটি মাত্র দলের পরিচালনায় তাদের শাসনে এই দেশ চলছে, আমরা এমন দেশে চাইনি।’

‘দেশে গণতন্ত্র দেখার জন্য ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধ করেছিলাম। স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে দীর্ঘ নয় বছর বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে সংগ্রাম করেছি। দীর্ঘ সংগ্রামের মধ্য দিয়ে গণতন্ত্রকে প্রতিষ্ঠিত করেছি। কিন্তু আওয়ামী লীগ আজকে তাদের এক দলীয় শাসনতন্ত্র বাস্তবায়নের যে মনোভাব সেটার জন্য গণতন্ত্রকে ধ্বংস করে দিয়ে মানুষের অধিকারগুলোকে কেরে নিচ্ছে।’ যোগ করেন তিনি।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, ‘২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচন একটা তামাশা ছিল। পরর্বতীতে সিটি করপোররেশন নির্বাচনও একটা তামাশায় পরিণত হয়েছিল। কিছুদিন আগে পৌরসভা নির্বাচন হয়ে গেলে কয়েক দিন পরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হবে। একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি, একটি দৃশ্য আমরা দেখতে পাব।’

তিনি বলেন, ‘মনোনয়নপত্র ছিনিয়ে নেওয়া হচ্ছে। প্রায় ৬৩ জন প্রার্থীকে মনোনয়নপত্র দাখিলই করতে দেওয় হয়নি।’

দেশে ভয়াবহ অবস্থার সৃস্টি হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সরকার সফলভাবে দেশে যে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়েছে।এটা নিজেদের স্বার্থে করছে। কারণ তারা জনবিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। সেই জন্যই নির্বাচনের তামাশা করে, প্রহসন করে ক্ষমতা দখল করে রাখতে চায় সেটাই তারা আছে।’

দেশের মানুষ সব সময় সংগ্রামের মধ্য দিয়ে তাদের অধিকার আদায় করে নিয়েছে এমনটা দাবি করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ইলিয়াস আলী, চেীধূরী আলমসহ সারাদেশে ৪০০ বেশি নেতাকর্মী গুম হয়েছে। গুলি করে হত্যা করা হয়েছে আমাদের অসংখ্য নেতাকর্মী, জেলে নেওয়া হয়েছে হাজার হাজার নেতাকর্মী।’

‘এটা কোনো সভ্য দেশে হতে পারে না। অন্যায়ভাবে কোনো নাগরিককে হত্যা করছে, খুন করছে।’ যোগ করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘এখন দেখা যাচ্ছে, শুধু বিএনপি নয়, ২০ দলই নয়। যারাই প্রতিবাদ করছে তাদের মিথ্যা মামলা দিয়ে ত্রাস সৃষ্টি করছে। যাতে ভয়ে কেউ কথা না বলেন।’

এসময় তিনি আলী আজগর মাতবর রাজনীতিক জীবনের স্মৃতিচারণ করেন।  

কাফরুল থানা বিএনপির সদস্য সচিব মোয়াজ্জেম হোসেন মতির সভাপতিত্বে স্বরণসভায় বক্তব্য দেন ঢাকা মহানগর বিএনপি নেতা আবদুস সালাম, আবুল খায়ের ভুইয়া, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, কাজী আবুল বাশার, ইউনুস মৃধা প্রমুখ।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

উপরে