আপডেট : ১ মার্চ, ২০১৬ ২০:৪৩

জাবিতে ছাত্রলীগের হামলার শিকার এক ছাত্রদল কর্মী

নবিউল ইসলাম বাপ্পি, জাবি প্রতিনিধি
জাবিতে ছাত্রলীগের হামলার শিকার এক ছাত্রদল কর্মী

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ কর্মীর হাতে মার খেল গোলাম সারোয়ার তুহিন নামের এক ছাত্রদল কর্মী। ১ মার্চ মঙ্গলবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় এ ঘটনা ঘটে। মারধরের শিকার ঐ শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভু-তাত্ত্বিক বিজ্ঞান বিভাগের ৪১তম আবর্তনের শিক্ষার্থী।
প্রত্যক্ষ সুত্রে জানা যায়, তুহিন বটতলায় দুপুরের খাবার খেতে গেলে ছাত্রলীগ কর্মী কামরুল হাসান (আইন ও বিচার বিভাগ, ৪১তম আবর্তন), নাজিউল হাসান পিয়াল (আইন ও বিচার বিভাগ, ৪১তম আবর্তন), আশিকুর রহমান (আন্তজার্তিক সম্পর্ক বিভাগ, ৪২তম আবর্তন), রাশেদ খান (আইন ও বিচার বিভাগ, ৪২), শামীম আহমেদ (আন্তজার্তিক সম্পর্ক বিভাগ,৪২তম আবর্তন), শরীফ হোসেন লস্কর (নৃবিজ্ঞান বিভাগ, ৪২আবর্তন), রায়হান ইসতিয়াক সনেট (নাটক ও নাট্যতত্ত বিভাগ,৪২আবর্তন), সাব্বির আহমেদ সকাল (নাটক ও নাট্যতত্ত বিভাগ ৪২আবর্তন) মিলে তাকে মারতে থাকে। এরা সবাই রফিক জব্বার হলের ছাত্রলীগ কর্মী। মারধরের এক পর্যায়ে তুহিন প্রাণ রক্ষায় দৌড়ে পালিয়ে যায়।
এ সম্পর্কে জহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক এবং বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি রাজিব আহমেদ রাসেল বলেন, ‘এর আগে বিভিন্ন সময় তুহিন ক্যাম্পাসে নাশকতামূলক কাজের সাথে জড়িত ছিল। আজকেও সে ক্যাম্পাসে উশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করলে জুনিয়র নেতাকমীরা তা প্রতিহত করার জন্য তাকে চর থাপ্পর মারে।’
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদলের সাধারন সম্পাদক আব্দুর রহিম সৈকত বলেন, ‘জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ছাত্রলীগের অবৈধ ছাত্রদের দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈধ ছাত্রদল কর্মীকে তাড়ানোর পায়তারা করছে। অচিরেই যদি প্রশাসন দোষীদের উপযুক্ত শাস্তি প্রদান না করে তাহলে জাহাঙ্গীরনগর শাখা ছাত্রদল কঠোর কর্মসূচী দিতে বাধ্য থাকবে এবং অনাকাঙ্খিত কোন ঘটনা ঘটলে তার জন্য প্রশাসন দায়ী থাকবে।’
জাবি প্রক্টর ড. তপন কুমার সাহা বলেন, ‘এ পর্যন্ত আমাদের কাছে কোন অভিযোগপত্র আসেনি। অভিযোগপত্র আসলে তদন্ত সাপেক্ষে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

উপরে