আপডেট : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৭:১৯

এটিএম কার্ড জালিয়াতিতে ক্ষমতাসীনরা জড়িত-হাফিজ উদ্দিন

বিডিটাইমস ডেস্ক
এটিএম কার্ড জালিয়াতিতে ক্ষমতাসীনরা জড়িত-হাফিজ উদ্দিন

এটিএম কার্ড জালিয়াতিতে ক্ষমতাসীন দলের বড় বড় নেতারা জড়িত থাকায় পুলিশ তদন্ত কাজ করতে পারছে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর( অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বীর বিক্রম।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের কলফারেন্স লাউঞ্জে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শনিবার দুপুরে ‘গণতন্ত্র ও স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা শীর্ষক’ আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। আলোচনা সভার আয়োজন করে জিয়া নাগরিক ফোরাম। 

গণতন্ত্রের নামে লুন্ডনতন্ত্র চলছে বলে মন্তব্য করে হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন,  আওয়ামী লীগ সরকার  এ রাষ্ট্রকে ধ্বংস করে দিয়েছে। গণতন্ত্রের নামে লুন্ডনতন্ত্র চালাচ্ছে। তাদের কোন জবাবদিহিতা নেই। এটি এম কার্ড জালিয়াতিতে বিদেশী নাগরিকের রিমান্ডে ক্ষমতাসীন দলের বড় বড় নেতাদের নাম এসেছে। তাই পুলিশ তদন্ত করতে সাহস পাচ্ছে না।

বিএনপি নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, পদ-পদবীর লোভ না করে দেশের স্বার্থে এ সরকারের বিরুদ্ধে মাঠে নামতে হবে।  বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে  রাজপথে আন্দোলন করে এ স্বৈরাচারী সরকারকে হঠাতে হবে। 

তিনি বলেন, বিএনপির কাউন্সিলে গঠনতন্ত্রে কিছু কিছু পবির্তন আনা হবে। কিছু কিছু উপকমিটি গঠন করা হবে। যার মাধ্যমে  জাতীয় ইস্যুর উপর বিভিন্ন সেমিনার , আলোচনা সভা করবে। তাতে দলের নেতৃত্ব বাড়বে। তৃণমূল থেকে এসব উপকমিটিসহ জাতীয় কমিটিতে যোগ্যতা অনুযায়ী দায়িত্ব প্রদান করা হবে। 

তিনি আরও বলেন, ‘বিএনপি কাউন্সিলের জন্য আবেদন করা সত্বেও এত বড় দেশে কোথাও জায়গা দেওয়া হচ্ছে না। বরং পদে পদে বাধা দেওয়া হচ্ছে।’

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন দিয়ে রাষ্ট্রক্ষমতা পরিবর্তন হয় না উল্লেখ করে মেজর হাফিজ বলেন, ‘বিএনপি ১১৪ টি ইউনিয়নে মনোনায়ন পত্র জমা দিতে দেয় নাই। আবার অনেক এলাকায় মনোয়ানপত্র বাতিল করা হয়েছে।’

ভোলায় তজিমউদ্দিনে বিএনপির প্রার্থীর গোপনে অন্য এলাকায় ভোটার করে তার মনোনায়ন পত্র বাতিল করা হয়েছে বলে জানান তিনি। 

আওয়ামী লীগ দেশকে মূর্খ জাতিতে পরিণত করছে এমন অভিযোগ করে তিনি বলেন, এ সরকার দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। বিএনপি আমলের থেকে আওয়ামী লীগের আমলে বেশি পাশের হার দেখাবে বলে, শিক্ষকদের বলা খাতায় কিছু না লিখলেও পাশ করিয়ে দিতে হবে। এরপরে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে ছাত্রছাত্রীরা পাশ করতে পারে না।  

জিয়া নাগরিক ফোরামের সভাপতি মো. আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, সহ স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক এবি এম মোশাররফ হোসেন, এনপিপির প্রেসিডিয়াম সদস্য মঞ্জুর হোসেন ঈসা, কর্মজীবি দলের সাধারণ সম্পাদক আলতাফ হোসেন সরদার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রনেতা নুরুজ্জামান প্রমুখ।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জেডএম

উপরে