আপডেট : ২৪ জানুয়ারী, ২০১৬ ১২:১৫

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হচ্ছে খালেদার বিরুদ্ধে

অনলাইন ডেস্ক
রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হচ্ছে খালেদার বিরুদ্ধে

২০ দলীয় জোট নেত্রী, বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করার অনুমতি দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। একজন আইনজীবীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে  বৃহস্পতিবার(২১জানুয়ারি) এ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।
বিষয়টি নিশ্চিত করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল শনিবার (২৩জানুয়ারি) বলেন, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক মমতাজউদ্দীন আহমেদের আবেদন বিবেচনায় এনে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে করা ওই আবেদনে বলা হয়, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করেছেন। এ ছাড়া জাতির পিতা ও আওয়ামী লীগ নিয়েও বিরূপ মন্তব্য করেছেন তিনি।

এগুলো সাংবিধানিকভাবে স্বীকৃত এবং প্রতিষ্ঠিত বিষয়।এ বিষয়ে নতুন করে বিতর্কের অবতারণা করায় তাঁর অপরাধ রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও রাষ্ট্রদ্রোহের শামিল বলে মনে করা হচ্ছে। তিনি সংবিধান লঙ্ঘন করে কথা বলেছেন এবং রাষ্ট্রদ্রোহমূলক অপরাধ করেছেন। আইনি নোটিশ দেওয়ার পরও তিনি ক্ষমা চাননি বা বক্তব্য প্রত্যাহার করেননি।
মমতাজউদ্দীন আহমেদ বলেন, রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করার অনুমোদনের চিঠি এখন আমার হাতে। পুলিশের মহাপরিদর্শক ও শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছেও চিঠি পাঠানো হয়েছে।

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করার অনুমোদন দেওয়ায় শনিবার (২৩জানুয়ারি) বিএনপির স্থায়ী কমিটির ব্ঠৈকে তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়। বৈঠক চলাকালেই এ প্রসঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘খালেদা জিয়ার দেওয়া বক্তব্য ছিল রাজনৈতিক। কিন্তু রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণেই তার বিরুদ্ধে মামলার অনুমোদন দেয়া হয়েছে।’

গত ২১ ডিসেম্বর রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশে খালেদা জিয়া বলেন, “মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা নিয়ে বিতর্ক আছে। আজকে বলা হয়, এত লাখ লোক শহীদ হয়েছে। এটা নিয়েও অনেক বিতর্ক আছে।”

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম উল্লেখ না করে খালেদা জিয়া বলেন, “তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা চাননি। তিনি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন। জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা না দিলে মুক্তিযুদ্ধ হতো না।

খালেদা জিয়ার এসব বক্তব্যের প্রতিবাদ জানায় একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটি, মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন সংগঠন এবং তাঁর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানায়।

 

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে