আপডেট : ১৯ জানুয়ারী, ২০১৬ ১৬:০০

দেয়ার ইজ নো সংকট ইন জাতীয় পার্টিঃ এইচ এম এরশাদ

অনলাইন ডেস্ক
দেয়ার ইজ নো সংকট ইন জাতীয় পার্টিঃ এইচ এম এরশাদ
ফাইল ছবি

জাতীয় পার্টিতে কোন সংকট নেই বলে জানিয়েছেন পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।তিনি বলেন, “দেয়ার ইজ নো সংকট ইন জাতীয় পার্টি”।

মঙ্গলবার বেলা ২টায় পার্টির বনানী কার্যালয়ে আয়োজিত এক জরুরী সংবাদ সম্মেলনে এরশাদ একথা বলেন।

এরশাদ বলেন, “আমিই পার্টির চেয়ারম্যান। সভাপতিমণ্ডলীর সভা আহ্বান করার এখতিয়ার শুধু আমার। আমি ছাড়া সভাপতিমণ্ডলীর কোনো সভা কেউ ডাকতে পারেন না।ডাকলেও তা হবে গঠনতন্ত্র পরিপন্থি। রওশন এরশাদকে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ঘোষণা করাটাও অবৈধ। যারা করেছে তাদের উদ্দেশ্য অসৎ।”

জাতীয় পার্টিকে ভাঙার চেষ্টা চলছে দাবি করে এজন্য দলের আওয়ামী লীগঘনিষ্ঠ নেতাদের দিকেও অভিযোগের আঙুল তোলেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এরশাদ।

তিনি বলেন, “এর আগে রুহুল আমিন হাওলাদারকে সরিয়ে জিয়াউদ্দিন বাবলুকে দলের মহাসচিব করেছিলাম।কিন্তু মহাসচিব হওয়ার পরে কাউন্সিল বা দলকে সংগঠিত করার ক্ষেত্রে কোন দায়িত্ব পালন করতে পারেননি”।

“বরং রওশন এরশাদকে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ঘোষণা করে দলের স্বার্থ পরিপন্থী কাজ করেছেন।তাই আজ (১৯, জানুয়ারী মঙ্গলবার) থেকে জিয়াউদ্দিন বাবলুকে অব্যহতি দিয়ে রুহুল আমিন হাওলাদারকে পার্টির মহাসচিব ঘোষণা করলাম”।

রুহুল আমিন হাওলাদারকে মৌখিকভাবে মহাসচিব ঘোষণায় দলে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে এরশাদ বলেন, ‘এটা দলের গঠনতন্ত্রে দেয়া আছে।’

ছোট ভাই জিএম কাদেরকে কো-চেয়ারম্যান করার ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে এরশাদ বলেন, ‘আমি দলের অনেকের সাথে কথা বলেছি। ওরা বলেছে আপনার পর জিএম কাদেরকে রাখতে হবে। আমি তা করেছি।’

রোববার (১৭ জানুয়ারি) রংপুরে কর্মী সম্মেলনে জিএম কাদেরকে পার্টির কো-চেয়ারম্যান ঘোষণা করায় দলের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। এ ঘটনায় বেজায় চটেন রওশনপন্থীরা। কিছুক্ষণ পরেই তারা রওশন এরশাদকে জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ঘোষণা করেন।

পার্টির ভেতরে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। অনেকে বলছেন, আবার গ্রুপিং চাঙ্গা হয়ে উঠবে। জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুকে এভাবে ক্ষমতাহীন করার প্রক্রিয়া একটি গ্রুপ সহজভাবে নেবে না। অন্যদিকে জিএম কাদের প্রশ্নে রওশন এরশাদ বেকে বসতে পারেন। আর রওশন এরশাদ বেকে বসলে দলের মধ্যে ঐক্য ধরে রাখা কঠিন হবে এরশাদের জন্য। কারণ, বেশিরভাগ এমপি এখনও রওশন এরশাদের সঙ্গে রয়েছেন।
 

এদিকে চলতি সংসদের নবম অধিবেশন সামনে রেখে বিকাল সাড়ে ৩টায় জাতীয় সংসদ ভবনে বৈঠকে বসছে জাতীয় পার্টির সংসদীয় দল। বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ ওই সভায় সভাপতিত্ব করবেন বলে দলীয় নেতারা জানিয়েছেন।       

দুই বছর আগে দশম সংসদ নির্বাচনে অংশ নেওয়া নিয়ে এরশাদ ও রওশনের মধ্যে টানাপড়েন দেখা দেয়। এরপর বিভিন্ন সময়ে দুজনের পাল্টাপাল্টি বক্তব্যের মধ্যেই এরশাদ বলেছিলেন, রওশন তার কাণ্ডারী।  

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আরকে

উপরে