আপডেট : ১০ এপ্রিল, ২০১৯ ১৫:৩২

অবশেষে এসপি হারুনের সঙ্গে দ্বন্দ্বের অবসান!

অনলাইন ডেস্ক
অবশেষে এসপি হারুনের সঙ্গে দ্বন্দ্বের অবসান!

অবশেষে নারায়ণগঞ্জের অস্থিরতা অস্বস্তির অবসান হতে যাচ্ছে। বরফ গলতে শুরু করেছে ব্যবসায়িক, রাজনৈতিক এবং পুলিশের মধ্যকার মতানৈক্যের। গতকাল নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও বিকেইএমইএর প্রেসিডেন্ট সেলিম ওসমান ও নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদের এক বৈঠকের মাধ্যমে মতভেদের অবসান হতে চলছে।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরের দিকে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে লাঙ্গলবন্ধ স্নান উৎসব উপলক্ষে পুলিশ সুপারের সাথে সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের মতবিনিময় সভা হয়।

নারায়ণগঞ্জে সাম্প্রতিক ইস্যু নিয়ে বক্তব্য দিতে গিয়ে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি সেলিম ওসমান বলেন, আমাদের মধ্যে কারো ভুল বোঝাবুঝি হতে পারে। আশা করি যে বরফ জমাট বেঁধেছিল সেটা দ্রুত গলে যাবে। আমরা নারায়ণগঞ্জের উন্নয়ন চাই। বার বার এসব ভুল বোঝাবুঝি আমাদের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করেছে। আমাদের কাজ জনসেবা করা। সেটা করাই আমাদের মূল লক্ষ্য। আর এটা করতে গেলে পুলিশ প্রশাসনকে লাগবে। তাদের সাথে তো আমাদের কোনো বিভেদ নেই। তারা তাদের কাজ করবে। আমরা আমাদের কাজ করব। 

সেলিম ওসমান বলেছেন, আমরা কেউ চিরজীবনের জন্য আসিনি। প্রশাসনের যারা আছেন তারা ভালো আছেন। তারাও হয়তো অন্যত্র চলে যাবেন। নির্বাচনের সময় তাকে জরুরিভাবে নারায়ণগঞ্জে আনা হয়েছিল। ওনি না থাকলে নির্বাচনে কোনো হট্টগোল হয়ে যেতে পারত। এমনও হতে পারে নির্বাচন শেষ হয়ে গেছে আরেক জায়গায় ওনার মতো স্ট্রং একজনের প্রয়োজন আছে। সুতরাং ওনার ট্রান্সফার হতেই পারে। আমরাও তখন তাকে সংবর্ধনা দেবো। এটা স্বাভাবিক। ঝগড়াও হতে পারে আবার বিদায় সংবর্ধনাও দিতে পারি। এটা যার যার কাজের ওপর ডিপেন্ড করে।

তিনি বলেন, আপনারা যতই বলেন না কেন, বরফ জমা থাকবে না। বরফ জমার কোনো ব্যবস্থা থাকবে না। আমাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব, বিতর্ক অনেক কিছুই হবে। এমনও হতে পারে এই মুহূর্তে ওনার সাথে পাশাপাশি বসে কথা বলছি। ওই সময় ওনি আমার একজন রাজনৈতিক নেতাকে ধরে নিয়ে যেতে পারেন, আমার এলাকার একজনকে মিথ্যা বা ভুল তথ্যের ভিত্তিতে ধরে ফেলতে পারেন। ওনার (এসপি) সাথে আমার ঝগড়াঝাঁটি হতেই পারে। এটা আমাদের কাজ, জনস্বার্থে আমরা কাজ করব। জনস্বার্থে জেলা প্রশাসক যদি ভুল করেন তাহলে তার সাথে আমার ঝগড়া হবে কিন্তু পাবলিকের হবে না। এসপি সাহেবের ভুল হলে তার সাথে আমার ঝগড়া হবে। যেমন একটা পরিবারে ঝগড়া হয় সেভাবে ঝগড়া হবে। এটাকে পুঁজি করে নারায়ণগঞ্জকে যেন ক্ষতিগ্রস্ত করা না হয়।

অপর দিকে পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ বলেন, আসলে বরফ বলতে কিছু নেই। আমরা আমাদের কাজ করছি। এখানে বরফ জমবে কেন। আপনাদের সাথে তো আমাদের কোনো বিভেদ ঝগড়া নেই। আমরা আমাদের মত কাজ করে নারায়ণগঞ্জকে শান্তির সুন্দর করতে চাই। এখন যদি কোনো জুয়ার আসর, মদের আসর, তেল চোর ধরে আনি আর সেটা যদি আপনাদের লোক হয় তাহলে তো কিছু করার নেই। তখন আপনারা তাদের আদালতে নির্দোষ প্রমাণ করে ছাড়িয়ে আনবেন। কিন্তু আমাদের দোষারোপ করার কোনো কারণ নেই। 

পুলিশ সুপার বলেন, যে দু’জন ব্যবসায়ীকে আমরা হয়রানি করেছি, মামলা দিয়েছি বলা হচ্ছে এই ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আমাদের পুলিশ কোনো মামলা দেয় নাই। তাদের বিরুদ্ধে কোনো মামলাও নেই। এটা হয়তো একটা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল। তারপরও কেউ কেউ আছেন এই ভুল বোঝাবুঝি নিয়ে খোঁচাখুঁচি করেছেন। কিছু লোক আছে উসকানি দেয় এমন অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, কিছু লোক থাকে যাদের কোনো কাজকর্ম নেই, তারা বলে, ‘দেখছেন আপনার লোকটাকে পুলিশ ধরে নিয়ে আসছে। তাকে হয়তো জুয়া খেলায় পেয়েছি, তেল চুরির মধ্যে ব্যস্ত ছিল কিংবা মাদক ব্যবসার মধ্যে জড়িত ছিল, তাকে ধরে নিয়ে আসছি। এখন সেই লোকটা যদি কারো হয়ে যায়, কোনো সমস্যা নেই। তাকে জামিন করিয়ে নিয়ে আসেন। কেউ জানল না।

তিনি বলেন, এখনো অনেক মাদক ব্যবসায়ী আছে। অনেক চাঁদাবাজ আছে। অনেক ভূমিদস্যু আছে। যাদের কাছে অনেক সাধারণ মানুষ জিম্মি হয়ে আছে। আমরা শুধু সেগুলোকে ধরতে চাই। 

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম সেলিম ওসমান ও পুলিশ সুপার ছাড়াও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মনিরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মোহাম্মদ নুরে আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) সুবাস চন্দ্র সাহা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক অঞ্চল) মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী, এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক প্রবীর কুমার সাহা, লাঙলবন্ধ স্নান উৎসব উদযাপন পরিষদের সভাপতি সরোজ কুমার সাহা, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শিখন সরকার, যুগ্ম সম্পাদক উত্তম সাহা প্রমুখ।

গত ২ এপ্রিল পাগলায় মেরি এন্ডারসনে মদ ও বিয়ার উদ্ধারের ঘটনায় এমপি শামীম ওসমানের শ্যালক তানভীর আহমেদ টিটু ও শিশু সাদমান সাকি অপহরণের ঘটনায় কাউন্সিলর নাজমুল আলম সজলকে জড়ানোর প্রতিবাদে সভা করে মামলা প্রত্যাহারের ২৪ ঘন্টা আলটিমেটাম দেয় নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি। এ ছাড়া একই ঘটনা নিয়ে জরুরি কর্মিসভা করেন সংসদ সদস্য শামীম ওসমান।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে