আপডেট : ১৮ মার্চ, ২০১৬ ১১:৪২

সহপাঠিদের সাহসীকতায় বাল্যবিয়ে থেকে মুক্তি পেল সোনিয়া

অনলাইন ডেস্ক
সহপাঠিদের সাহসীকতায় বাল্যবিয়ে থেকে মুক্তি পেল সোনিয়া

মাছ ব্যবসায়ী সোহরাব উদ্দিনের কিশোরী মেয়ে সোনিয়া। গাজীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেনীর শিক্ষার্থী সে। পড়াশোনা নিয়েই ব্যাস্ত থাকতো মেয়েটি। হঠাৎ তার জীবনে আঘাত হানতে চায় বাল্যবিয়ে নামক সামাজীক ব্যাধি। কিন্তু সোনিয়ার বন্ধুরা এমন ঘটনা মেনে নিতে পারে না। তাইতো তাদের উদ্যোগে বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পায় কিশোরী সোনিয়া।

১৭ মার্চ বৃহস্পতিবার জাতীয় শিশু দিবসে শ্রীপুর উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের নিজমাওনা গ্রামে ধুমধাম করে সোনিয়ার বাল্য বিয়ের আয়োজন চলছিল। মেয়ের লেখাপড়ার প্রতি প্রচন্ড আগ্রহ থাকা সত্ত্বেও দারিদ্রতার কারণে বিয়েতে মনস্থির করেন বাবা। কিন্তু এই বাল্য বিয়ে মেনে নিতে পারছিল না সোনিয়ার সহপাঠিরা এবং চ্যানেল আই নির্বাচিত বাংলাদেশের প্রথম স্বর্ন কিশোরী শাহজিয়া শাহরিণ আনিকাসহ অন্যান্য বন্ধুরা। আনিকার নেতৃত্বে তারা কয়েকজন মিলে প্রশাসনের কাছে বাল্য বিয়ে বন্ধের আবেদন জানান। তাৎক্ষণিক ভূমিকা নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুস্তাফিজুর রহমান বিয়ের অনুষ্ঠানস্থলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পাঠিয়ে বিয়ে বন্ধ করেন।
আনিকা জানান, সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে আমরা বাল্য বিয়ে বন্ধের পদক্ষেপ নিয়েছি।এভাবে বাল্যবিয়ের শিকার হলে আমাদের নারীরা কখনোই সামনে এগোতে পারবে না।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুস্তাফিজুর রহমান জানান, বাল্য বিয়ের কুফল সম্পর্কে অবহিত করে বিয়ে বন্ধ করা হয়েছে। 
শ্রীপুর থানার উপ পরিদর্শক সাইফুল ইসলাম জানান, মেয়ের বাবা অঙ্গীকার করেছেন প্রাপ্তবয়স্কের আগে বিয়ে না দিয়ে লেখাপড়া করাবেন।
কনের বাবা সোহরাব হোসেন নিজের ভুল বুঝতে পেরেছেন এবং খুব লজ্জিত বোধ করছেন বলে জানান।

উপরে