আপডেট : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ০৯:২৩

ধলেশ্বরীতে ট্রলার ডুবি, ৬ শ্রমিকের লাশ উদ্ধার

বিডিটাইমস ডেস্ক
ধলেশ্বরীতে ট্রলার ডুবি, ৬ শ্রমিকের লাশ উদ্ধার

নারায়ণগঞ্জের ধলেশ্বরী নদীতে ট্রলার ডুবির ১০ ঘণ্টা পর চার শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করেছেন ডুবুরিরা। এ নিয়ে এই ট্রলারডুবির ঘটনায় মৃতের সংখ্যা ছয়ে উন্নীত হল।

বুধবার রাত ১০টার দিকে সবশেষ দুজনের লাশ উদ্ধারের মধ্য দিয়ে শেষ হয় উদ্ধার কার্যক্রম।

এর আগে দুপুরে সদর উপজেলার আলীরটেক ইউনিয়নের গোগনগর এলাকায় ধলেশ্বরী নদীতে ওই ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) গাউছুল আজম জানান, দুপুরে ট্রলার ডুবির পর ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ ও বিআইডব্লিউটিএ'র সমন্বিত প্রচেষ্টায় রাত ১০টার মধ্যে নিখোঁজ ছয়জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

নদীতে প্রবল স্রোত ও প্রতিকূল আবহওয়ার মধ্যেই চলে এ উদ্ধার কার্যক্রম।

ট্রলার ডুবিতে নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে নগদ ২০ হাজার টাকা করে প্রদান করেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন। রাতেই সবার লাশ তাদের গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লাপাড়া গারেশ্বর গ্রামে পাঠানো হয়। নিহতরা সবাই একটি মাটিকাটার ট্রলারের শ্রমিক।

গাউছুল আজম জানান, সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় মো. তালেব (৩৫), রাত সাড়ে ৭টায় নেজাব ওরফে নিজাম (৩০), রাত সাড়ে ৮টায় সুজন (৩৬), রাত ৯টায় শাহীন (৩৮), রাত ১০টায় শরীফুল (৩৬) ও সুজব ওরফে সবুজের (৩০) লাশ উদ্ধার করা হয়।

বক্তাবলী নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আবদুর রাজ্জাক প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে জানান, দুপুর ২টার দিকে ধলেশ্বরীতে মুন্সিগঞ্জগামী একটি বাল্কহেডের সঙ্গে বিপরীতগামী মাটি বোঝাই ট্রলার 'এমভি রহমতউল্লাহ'র মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এতে মুহূর্তের মধ্যে মাটি বোঝাই ট্রলারটি ডুবে যায়। ট্রলারটিতে ১৫-২০ জন শ্রমিক ছিল। অন্যরা সাঁতরিয়ে তীরে উঠতে পারলেও ছয়জন নিখোঁজ ছিল।

ট্রলারে থাকা মাটি কাটার শ্রমিক ময়াজউদ্দিন বলেন, 'আমরা দাউদকান্দি থেকে মাটি নিয়ে ফতুল্লার ধর্মগঞ্জে যাচ্ছিলাম। দুপুরে মুন্সীগঞ্জগামী একটি বাল্কডেহ আমাদের ট্রলারটিকে সজোরে ধাক্কা দিলে মুহূর্তেই সেটি তলিয়ে যায়। ওই সময়ে অনেকেই ইঞ্জিনরুমে ঘুমিয়ে ছিল।'

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জেডএম

 

উপরে