আপডেট : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৭:০১

বউ-শ্বাশুড়িকে কুপিয়ে হত্যা! নেপথ্যে পরকীয়া

বিডিটাইমস ডেস্ক
বউ-শ্বাশুড়িকে কুপিয়ে হত্যা! নেপথ্যে পরকীয়া

পরকীয়ার জেরেই বউ ও শাশুড়িকে বটি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে বলে পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন ঘাতক জামাতা। এছাড়াও দু’জনের মৃত্যু নিশ্চিত করতে পরবর্তীতে গলা কাটা হয় বলেও জানান তিনি।

জানা গেছে, মোহাম্মদ কাউসার (৩০) ও তার স্ত্রী লাভলী আক্তার কাঁচপুরে একটি গার্মেন্ট কারখানার শ্রমিক। তারা কাঁচপুর উত্তরপাড়া এলাকায় খায়রুল বাশার নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে ভাড়া থাকেন। তাদের সঙ্গে শাশুড়ি রাশিদা বেগমও থাকতেন। কয়েকদিন ধরে লাভলী ও কাউসারের মধ্যে পারিবারিক কলহ চলছিল।

এর জের ধরে শুক্রবার রাতে তাদের মধ্যে বাক-বিতণ্ডা শুরু হয়। একপর্যায়ে রাত ৯টার দিকে লাভলী ও তার মাকে কুপিয়ে হত্যা করে কাউসার। ঘটনার পর পালানোর সময় স্থানীয়রা কাউসারকে আটক করে। খবর পেয়ে রাত সাড়ে ৯টায় পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে দু’জনের মৃতদেহ উদ্ধার ও কাউসারকে আটক করে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসায় কাউসার পুলিশকে জানান, স্ত্রী লাভলী আক্তার পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়েছিলেন। আর এর প্রতিবাদ করায় তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। প্রথমে জেদ করে স্ত্রীকে কুপ দেন কাউসার এবং পরে শাশুড়ী প্রতিবাদ করায় তাকেও কুপ দেন। মৃত্যু নিশ্চিত করতে দু’জনেরই গলা কাটেন।

এদিকে নারায়ণগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মোখলেছুর রহমান জানান, ঘাতক কাউসারকে আটক করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে সে হত্যাকাণ্ডের সত্যতা স্বীকার করেছে।

প্রসঙ্গত, গত ১৬ জানুয়ারি রাতে নারায়ণগঞ্জ শহরের ২নং বাবুরাইল খানকা মোড় এলাকার একটি ফ্ল্যাট বাসায় মামীর সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কের জের ধরে একই পরিবারের পাঁচজনকে হত্যা করে ভাগ্নে। আর এ ঘটনার মাস না পেরোতেই আবারও পরকীয়া প্রেমের জের ধরে স্ত্রী-শাশুড়ীকে হত্যা করেছে জামাতা।

 

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জেডএম

উপরে