আপডেট : ৮ জুলাই, ২০১৯ ১২:২১

লন্ডনে কুলির কাজ করতেন ব্যারিস্টার সুমন!

অনলাইন ডেস্ক
লন্ডনে কুলির কাজ করতেন ব্যারিস্টার সুমন!

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সুমন। এ পরিচয় ছাপিয়ে তিনি এখন মানবতার বন্ধু হিসেবেই পরিচিত। মানুষের চারপাশের সমস্যা ও বিভিন্ন জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে ফেসবুক লাইভে এসে অনলাইন জগতে প্রতিনিয়ত ঝড় তুলছেন তিনি। কোন অসংগতি চোখে পড়লেই কখনও হাটুঁ পরিমাণ কাদায়, কখনও আবর্জনার স্তুপে দাঁড়িয়ে, কখনও বা চলতি পথে রাস্তায় দাঁড়িয়ে লাইভে আসেন এ ব্যারিস্টার। তার প্রতিটি লাইভ ভাইরাল হওয়ার কারণে টনক নড়ছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। ব্যারিস্টার সুমনের ফেসবুক লাইভের কারণে তাৎক্ষণিক সমস্যার সমাধান হয়েছে- এমন নজিরও সৃষ্টি হয়েছে অনেক।

আইনজীবী হিসেবে জনস্বার্থে বিভিন্ন মামলায় আইনি লড়াই করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। তার রিটের কারণেই উচ্চ আদালত রাস্তার মাঝখানের সব বৈদ্যুতিক খুটি অপসারণ ও বালিশকাণ্ডের সাথে জড়িতদের খুজে বের করার নির্দেশ দিয়েছেন। এছাড়া ব্যারিস্টার সুমনের ভুমিকার কারণে নুসরাত হত্যা.র ঘটনায় ওসি মোয়াজ্জেমকে বিচারের মুখোমুখি করা সম্ভব হয়েছে। আবার নিজের জন্মস্থান হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে নিজের টাকা খরচ করে ২৪টি কাঠের সেতু তৈরি করে তরুণদের অনুসরণীয় ব্যক্তিত্বে পরিণত হয়েছেন।

ব্যারিস্টার সুমন এখন ফেসবুক তথা অলনাইন জগতে জনপ্রিয় নাম, মানুষের আস্থার ঠিকানা। তবে তার এ অবস্থান সৃষ্টি, জনপ্রিয়তা একদিনে আসেনি। পাড়ি দিতে হয়েছে বহু পথ। সাধারণ পরিবারের সন্তান সুমন ব্যারিস্টারি পড়ার টাকা যোগাতে লন্ডনে কুলির কাজও করেছেন।

ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন, ইংল্যান্ডের লাইফটা ছিল আমার কঠিনতম। ইংল্যান্ডে আমার যে আত্মীয় স্বজন, আমি সেখানে যাওয়ার কিছুদিন পর তারা কেউ আমার পাশে ছিল না। সিলেটি হিসেবে আত্মীয় স্বজনদের কাছ থেকে যে সহযোগিতা পাওয়ার কথা ছিল তা পাইনি। যার কারণে বাস্তবতার মুখোমুখি হই। আমি একজন ট্রলিম্যান হিসেবে কাজ শুরু করি। আমাদের দেশে যাদেরকে আমরা কুলি বলি। সেই কুলির কাজও করেছি। বিমানবন্দরে যখন ভিআইপিরা ট্রলি ফেলে রেখে যেতেন, ট্রলিগুলো নিয়ে এসে এক জায়গায় রাখতাম। আমি কুলির কাজ করেছি- এটা সবসময় স্বীকার করি।

আমার কাছে মনে হয়, আমি যদি চুরি না করি, কারো হক নষ্ট না করি তাহলে কোন কাজই ছোট না। আবার ড্রাইভারি করতাম। এসব কাজ করে কিছু টাকা জমাই। ২০০৮ সালে বার অ্যাট ল করতে শুরু করি। 

আরেকটি দু:খের কথা, বার অ্যাট ল শুরু করার ১৭ দিনের মাথায় আমার বাবা মারা যান বাংলাদেশে। কিন্তু তখন আমার পকেটে কোন টাকাই ছিল না যে, বাবার লাশ দেখতে আসবো। টাকার অভাবে বাবার জানাজায় আসতে পারিনি, বাবার লাশ দাফন করতে পারিনি। শেষবারের মত বাবার মুখটা দেখতে পারিনি শুধু টাকার অভাবে। সেই কষ্টের কথা ভুলতে পারি না।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে