আপডেট : ২৫ মে, ২০১৯ ১০:৫১

হঠাৎ কোটিপতি শ্রমিক লীগ নেতা নূর মোহাম্মদ!

অনলাইন ডেস্ক
হঠাৎ কোটিপতি শ্রমিক লীগ নেতা নূর মোহাম্মদ!

অভাবের সংসার ছিলো তাদের। বাবা ছিলেন রিকশাচালক। তাই লেখাপড়াও তেমন একটা করতে পারেননি। জড়িয়ে পড়লেন এলাকার সন্ত্রাসীদের সঙ্গে, হয়ে পড়লেন মাদকাসক্ত। তারপর ধীরে ধীরে জড়িয়ে পড়েন মাদক ব্যবসায়। অল্প সময়ের মধ্যেই অর্জন করেন খিলগাঁওয়ের শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীর ‘খেতাব’। শূন্য থেকে হয়েছেন কোটি কোটি টাকার মালিক। বলছিলাম ঢাকা দক্ষিণের খিলগাঁও থানা জাতীয় শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক নূর মোহাম্মদের কথা।

জানা গেছে, এলাকার ছিনতাই ও ফুটপাতে চাঁদাবাজি সিন্ডিকেটেরও হোতা নূর। গড়েছেন একাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

সিপাহীবাগ আইসক্রিম গলিতে দরিদ্র বাবাকে ধরিয়ে দিয়েছেন রিকশার গ্যারেজের ব্যবসা। টাকার বিনিময়ে বাগিয়ে নিয়েছেন রাজনৈতিক পদপদবি। নূর এখন ঢাকা দক্ষিণের খিলগাঁও থানা জাতীয় শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক।

যদিও কথায় আছে, পাপ বাপকেও ছাড়ে না। নূরের ক্ষেত্রেও হয়েছে তা-ই। গত বৃহস্পতিবার রাতে খিলগাঁওয়ের ছাহেরুনবাগ থেকে তিনশ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে নবীনবাগ এলাকা থেকে আরো একশ পিস ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করা হয় গাড়িচালক মো. মাসুদ মিয়াকে।

তথ্য মতে, খিলগাঁওয়ের আইসক্রিম গলি এলাকায়ই ‘সৃষ্টি’ নামে একটি মাদক নিরাময়কেন্দ্র গড়ে তুলেছিলেন নূর। মূলত এ প্রতিষ্ঠানের আড়ালেই নিজের মাদকের রাজ্য গড়ে তুলেছিলেন তিনি। তবে মাদক ব্যবসা, জুয়া ও নারীঘটিত অনৈতিক ব্যবসার অভিযোগে গত বছর প্রতিষ্ঠানটি সিলগালা করে দেয় মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর।

তারপরেও মাদকের কারবার ছাড়েননি নূর। রাজনৈতিক পদকে ঢাল বানিয়ে নারী-পুরুষের সমন্বয়ে গড়া বিশাল এক সিন্ডিকেটের মাধ্যমে দেদার চালিয়ে আসছিলেন এ কারবার। সিন্ডিকেটের কর্মীরা মোটরসাইকেল ও ভ্রাম্যমাণভাবে বিকিকিনি করলেও শ্রমিক লীগের এ নেতা ইয়াবা বেচতেন নামি-দামি গাড়িতে করে। অবশ্য শেষরক্ষা হয়নি।

খিলগাঁও থানার এসআই তারিকুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, বৃহস্পতিবার রাতে ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী নূর মোহাম্মদ ও তার গাড়িচালককে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়েছে।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জিএম

উপরে