আপডেট : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ১৯:৫৬

ভালোবাসার ঘরে ফাটল, শারীরিক মিলনের ভিডিও ইন্টারনেটে

বিডিটাইমস ডেস্ক
ভালোবাসার ঘরে ফাটল, শারীরিক মিলনের ভিডিও ইন্টারনেটে

আট বছরের ভালোবাসায় নিজেদের প্রতি বিশ্বাস ছিল অগাধ। তাই, নিজেদের যৌন মিলনের ভিডিও তুলে রাখতেও কুণ্ঠাবোধ করেননি তাঁরা। দুই সন্তানকে নিয়ে জীবনও কেটে যাচ্ছিল মধুরভাবে। কিন্তু, কোথাও গিয়ে একটা যেন ছেদ পড়ে যায়। তাই বিচ্ছেদ হয়ে যায় স্টিভ (নাম পরিবর্তিত) ও লুসিয়ানা (নাম পরিবর্তিত)-র। লুসিয়ানা ভাবতেও পারেননি তাঁর প্রাক্তন প্রেমিক সেক্স ভিডিওগুলো একটি পর্নসাইটে ছড়িয়ে দেবেন। একদিন হঠাৎ করেই ওই পর্নোগ্রাফিক সাইটের তরফ থেকে তাঁকে একটি লিঙ্ক পাঠানো হয়। সেখানে তিনি দেখেন, এটা তাঁর ও তাঁর প্রাক্তন প্রেমিকের মিলনের ভিডিও। যেটা ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। সাধারণ মানুষও সেটি দেখতে পাচ্ছেন।

এই ঘটনার পরই লুসিয়ানা পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন। এরপর আদালতের তরফে ডেকে পাঠানো হয় দু’জনকেই। স্টিভ জানান, “বিচ্ছেদের পর আমাদের দুই শিশুর সঙ্গে আমাকে আর দেখা করতে দিচ্ছিল না লুসিয়ানা।” অভিযোগ, এরপর থেকেই নাকি তিনি নিজের প্রাক্তন প্রেমিকাকে সেক্স টেপ ছড়িয়ে দেওয়ার ব্যাপারে হুমকি দিচ্ছিলেন। তারপরও তাঁর সঙ্গে দেখা করতে না দেওয়ায় একটি পর্নসাইটে সেক্স টেপটি ছড়িয়েও দেন তিনি। এরপর অন্য সোশাল নেটওয়ার্কিং সাইটগুলিতেও তা ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেন।

গোটা ঘটনায় অত্যন্ত ভেঙে পড়েছেন লুসিয়ানা। তিনি আদালতকে জানিয়েছেন, মানসিক ও শারীরিকভাবে তিনি ভেঙে পড়েছেন। তাঁর শিশুদের উপরও এই ঘটনার প্রভাব পড়তে পারে। আদালতের কাছে নিজের কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চেয়ে নেন স্টিভ। তাঁর ল্যাপটপ ও ফোন থেকে ওই ভিডিও ক্লিপসগুলো নষ্ট করে দেওয়া হয়। ওই ওয়েবসাইট থেকেও ভিডিওটি তুলে নেওয়া হয়েছে। সেইসঙ্গে ৬ মাসের হাজতবাসের সাজা দেওয়া হয়েছে স্টিভকে।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/এসএম

উপরে