আপডেট : ১ আগস্ট, ২০১৭ ১৭:১৬

যাত্রী ভোগান্তির অভিযোগের পর উবারের জরুরি সহায়তা নম্বর চালু

অনলাইন ডেস্ক
যাত্রী ভোগান্তির অভিযোগের পর উবারের জরুরি সহায়তা নম্বর চালু

যাত্রী ভোগান্তিসহ নানা ধরনের অভিযোগের পর বাংলাদেশে উবার পরিচালনায় জরুরি সহায়তা নম্বর চালু করা হয়েছে।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় ও অন-ডিমান্ড রাইড শেয়ারিং কোম্পানি উবার মঙ্গলবার তাদের রাইডার অ্যাপে ন্যাশনাল ইমারজেন্সি নাম্বার ৯৯৯ সংযুক্ত করার ঘোষণা দিয়েছে। এতে যাত্রীদের নিরাপত্তা আরও বাড়বে বলে জানিয়েছে উবার কর্তৃপক্ষ।

তারা জানিয়েছে, যাত্রীদের নিরাপত্তা আরও বাড়াতে উবারের ধারাবাহিক প্রতিশ্রুতি ও প্রতিজ্ঞার অংশ হিসেবে রাইডার অ্যাপে এই হেল্প লাইন নম্বর সংযুক্ত করা হয়েছে। ফলে এখন থেকে জরুরী প্রয়োজনে যাত্রীরা ৯৯৯ নম্বরটি ডায়াল করার সুযোগ পাবেন।

এটি কীভাবে কাজ করবে?
উবারের গাড়িতে ভ্রমণ করার সময় কোন জরুরী অবস্থার সৃষ্টি হলে যাত্রীরা অ্যাপের ভেতর ‘কলনাউ’ প্রেস করে বিনামূল্যে বাংলাদেশের আইসিটি বিভাগ পরিচালিত জাতীয় হেল্পডেস্কের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবেন।

বাটনটি একবার প্রেস করার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীদের ফোনের ডায়ালে ৯৯৯ নাম্বারটি চলে আসবে।৯৯৯ নাম্বারে কল করলে যাত্রীরা সরকারি কন্ট্রোল রুমের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবেন।এরপর জরুরী অবস্থার প্রকৃতি বুঝে যাত্রীরা ১ প্রেস করে অ্যাম্বুলেন্স, ২ প্রেস করে ফায়ার সার্ভিস, ৩ প্রেস করে পুলিশের সহযোগিতা পেতে পারেন বা ০ প্রেস করে সরাসরি সরকারি প্রতিনিধির সঙ্গে কথা বলতে পারেন।

উবার তাদের নতুন এই সেবা সম্পর্কে গ্রাহকদের এসএমএস’র মাধ্যমে জানিয়ে দিচ্ছে।

নতুন এই সেবার বিষয়ে উবার ঢাকার জেনারেল ম্যানেজার অর্পিত মুন্ড্রা বলেন: যাত্রীদের নিরাপত্তাকে আমরা অগ্রাধিকার দিয়ে থাকি।প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে যাত্রীদের যতটা সম্ভব নিরাপদ রাখতে আমরা বদ্ধ পরিকর।উবারের সঙ্গে ইমার্জেন্সি নম্বর ৯৯৯ সংযুক্ত করার পদক্ষেপটি যাত্রার পূর্বে, যাত্রার সময় ও যাত্রার পরে অর্থাৎ প্রত্যেকটি ক্ষেত্রে নিরাপত্তার ব্যাপারে আমাদের প্রতিজ্ঞাকে প্রতিফলিত করে।

২০১৬ সালের নভেম্বরে ঢাকায় উবার চালু হয়। বাংলাদেশে চালক ও যাত্রী উভয়ের কাছ থেকে এটি দারুণ সাড়া পেয়েছে।

তবে, সম্প্রতি যাত্রী প্রত্যাখ্যানসহ নানা ধরনের অভিযোগ উঠছে। ফেসবুকে উবার ইউজার্স অফ বাংলাদেশ গ্রুপে প্রতিদিন নানা ধরনের অভিযোগ পাওয়া যায়।

উপরে