আপডেট : ১৮ মার্চ, ২০১৬ ১৭:২৫

আদালতে গাঁজার গন্ধ!

বিডিটাইমস ডেস্ক
আদালতে গাঁজার গন্ধ!

প্রতি বৃহস্পতিবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত (সিএমএইচ) পাশ দিয়ে গেলে আপনি হয়তো ধোয়া দেখবেন। পাবেন এক উৎকট গন্ধও। হতচকিত হয়ে ভাবতে পারেন আদালতে সবাই একসঙ্গে গাঁজা খাচ্ছে নাকি?

গন্ধ বা ধোয়া গাঁজারই কিন্তু কেউ পান করছে না, গাঁজা পোড়ানো হচ্ছে।

প্রতি বৃহস্পতিবারের ন্যায় গতকাল বৃহস্পতিবারও একই ঘটনার পুণরাবৃত্তি ঘটেছিলো। নতুন অনেকেই তাই মনে করেছিলেন, একজন তো জিজ্ঞেস করেই বসলেন, ‘ভাই, এটা তো গাঁজার গন্ধ! আদালতে গাঁজার গন্ধ এল কীভাবে?’

জানা গেছে, প্রতি বৃহস্পতিবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত ভবনের গোড়ায় মামলার আলামত হিসেবে জব্দ করা গাঁজা পোড়ানো হয়। গাঁজার গন্ধে সিএমএম কোর্ট এলাকায় থাকা অসম্ভব হয়ে পড়ে। অনেকে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। 
আদালত ভবনের ওই স্থানে শত শত কেজি গাঁজা পোড়ানো হয়। কাজটি অবশ্য আদালতের নির্দেশেই করা হয়। গাঁজা পোড়ানোর সময় আদালতে কর্মরত বিচারক, কর্মচারী, আদালত পুলিশের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বিচারপ্রার্থীদের অস্বস্তির মধ্যে পড়তে হয়। গাঁজার গন্ধে টিকতে না পেরে মামলা-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা তখন আদালত প্রাঙ্গণ ত্যাগ করেন। 

গাঁজা পোড়ানোর দায়িত্বে থাকা পুলিশের উপসহকারী পরিদর্শক (এএসআই)বলেন, চুল্লি না থাকায় উন্মুক্তভাবে গাঁজা পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়। 
কিছু দিন পর গাঁজাসহ মাদক আর খোলা জায়গায় ধ্বংস করা হবে না। আদালতের পেছনে চুল্লি নির্মাণের কাজ চলছে। সেখানে গাঁজাসহ অন্যান্য আলামত ধ্বংস করা হবে বলে জানান পুলিশের আরেক কর্মকর্তা।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আরকে

উপরে