আপডেট : ১৬ মার্চ, ২০১৬ ০৯:২৭

প্রধানমন্ত্রী জানতে পারেন ১ মার্চ

বিডিটাইমস ডেস্ক
প্রধানমন্ত্রী জানতে পারেন ১ মার্চ

তারিখের হিসাবে গত ৫ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাংক থেকে বাংলাদেশের রিজার্ভের অর্থ চুরির ঘটনা ঘটে। আর সরকারের সর্বোচ্চ ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী নিজে তা জেনেছেন ১ মার্চ, প্রায় এক মাস পর। ওই দিন গভর্নর আতিউর রহমান প্রধানমন্ত্রীকে রিজার্ভের অর্থ চুরির ঘটনাটি অবহিত করেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

আতিউর রহমান তাঁর পদত্যাগপত্রে উল্লেখ করেছেন, গত ১ মার্চ রিজার্ভের অর্থ চুরির বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করা হয়। পদত্যাগের পর গতকাল গুলশানে নিজের বাসভবন গভর্নর হাউসে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে আতিউর রহমান বলেন, ‘ঘটনাটি ছিল অনেকটা ভূমিকম্পের মতো। কোন দিক থেকে এসেছে, কে করেছে আমি কিছুই বুঝে উঠতে পারিনি। প্রথম যখন আমাকে বলা হলো, আমি খুবই পাজলড ছিলাম...। পুরো ব্যাপারটা কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এনে তারপর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি।’

বিশ্বের ইতিহাসে একটি দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভের অর্থ চুরির এত বড় একটি ঘটনা সরকারের শীর্ষ মহলেও প্রায় এক মাস গোপন করে রাখার বিষয়টি সরকারের পক্ষ থেকে ভালোভাবে নেওয়া হয়নি। প্রধানমন্ত্রী নিজে এ নিয়ে দলীয় ও মন্ত্রী পর্যায়ে বৈঠকে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন বলে বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে দেশের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে। অর্থমন্ত্রী গত রোববার সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংক এ ঘটনা আমাদের না জানানোর মতো ধৃষ্টতা দেখিয়েছে। এ ধৃষ্টতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এত দিন বিভিন্ন সূত্রের সঙ্গে কথা বলে ধারণা করা হচ্ছিল, অর্থমন্ত্রীকে এক মাস পর ঘটনার বিষয়ে অবহিত করা হলেও প্রধানমন্ত্রীকে হয়তো ঘটনার কয়েক দিন পরই তা অবহিত করা হয়েছিল। কিন্তু গতকাল গভর্নরের পদত্যাগপত্র থেকে জানা গেল, প্রধানমন্ত্রীকেও বিষয়টি জানানো হয়েছে প্রায় এক মাস পর। সূত্র-প্রথম আলো

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/জেডএম

উপরে