আপডেট : ১ মার্চ, ২০১৬ ২০:২৪

বৃক্ষমানবকে হাসপাতালে থাকতে হবে দেড় বছর!

বিডিটাইমস ডেস্ক
বৃক্ষমানবকে হাসপাতালে থাকতে হবে দেড় বছর!
বিরল রোগ আক্রান্ত বৃক্ষমানব আবুল বাজনদারের শারীরিক অবস্থায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন চিকিৎসকরা। ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে তার চিকিৎসায় গঠিত নয় সদস্যের মেডিকেল বোর্ড ২৯ ফেব্রুয়ারি সোমবার পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে সন্তোষ প্রকাশ করে।

বোর্ডের সদস্যরা জানিয়েছেন, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে তার বাঁ হাতে আরেকটি অস্ত্রোপচার করা হবে। বৃক্ষমানবের চিকিৎসা একটি দীর্ঘমেয়াদি প্রক্রিয়া। তাকে ধারাবাহিকভাবে অস্ত্রোপচার করতে হবে। এ জন্য আগামী দেড় বছর তাকে হাসপাতালে থাকতে হতে পারে বলে ধারণা চিকিৎসকদের।

বোর্ডের সভাপতি ঢামেক হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের প্রধান অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম সাংবাদিকদের বলেন, আবুল বাজনদারের অস্ত্রোপচার করা ডান হাতের অবস্থা আগের তুলনায় বেশি স্থিতিশীল আছে। প্রথমে সিদ্ধান্ত ছিল, ডান হাতের অস্ত্রোপচার পুরোপুরি শেষ করার পর বাঁ হাতে অস্ত্রোপচার করা হবে। কিন্তু এখন দেখা গেছে, অস্ত্রোপচার করা ডান হাতের ক্ষত শুকাতে চিকিৎসকদের ধারণার তুলনায় একটু বেশি সময় লাগবে। এ ছাড়া বোর্ডের সদস্যরা মনে করছেন, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে বাঁ হাতে অস্ত্রোপচারের জন্য শারীরিকভাবে রোগী স্থিতিশীল আছেন। তাই ওই হাতে অস্ত্রোপচার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

দেশে যেসব পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে, তাতে আবুল বাজনদারের শরীরে ক্যান্সারের কোনো জীবাণু পাওয়া যায়নি বলেও জানান ঢামেক হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সমন্বয়ক অধ্যাপক ডা. সামন্ত লাল।

আবুল বাজানদার নামের ২৫ বছরের এই যুবক গত প্রায় এক দশক যাবত এই রোগে ভুগছেন। এর ফলে তার দুই হাত এবং পায়ের কিছু অংশ বিকৃত হয়ে অনেকটা গাছের শেকড়ের মতো রূপ নিয়েছে।

উল্লেখ্য গত ৩০শে জানুয়ারি আবুল বাজানদারকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে আনা হয়।

উপরে