আপডেট : ২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ২১:০৫

এটিএম কার্ড জালিয়াতিতে ১০০ ব্যক্তি জড়িত

বিডিটাইমস ডেস্ক
এটিএম কার্ড জালিয়াতিতে ১০০ ব্যক্তি জড়িত

ব্যাংকের এটিএম কার্ড জালিয়াতি করে টাকা তোলার ঘটনায় ট্রাভেল এজেন্সি, হোটেল ব্যবসায়ী, কয়েকটি ব্যাংকের কার্ড বিভাগের কর্মকর্তা, প্রতারক ও রাজনীতিবিদসহ প্রায় ১০০ ব্যক্তি জড়িত বলে প্রাথমিক তথ্য পাওয়ার কথা জানিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)।

জানা গেছে, কার্ড জালিয়াতির ঘটনায় রিমান্ডে থাকা এক বিদেশি নাগরিক ও সিটি ব্যাংকের তিন কর্মকর্তাকে ছয় দিন জিজ্ঞাসাবাদ করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। গতকাল রোববার তাঁদের ছয় দিনের রিমান্ড শেষ হয়েছে। এ চারজন হলেন বিদেশি পিওটর সিজোফেন, সিটি ব্যাংকের কার্ড ডিভিশনের কর্মকর্তা মকসেদ আলম (মাকসুদ), রেজাউল করিম ও রেফাজ আহমেদ। ২২ ফেব্রুয়ারি তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয় এবং পরদিন রিমান্ডে নেওয়া হয়।

মামলার তদন্ত তদারক কর্মকর্তা ডিবির অতিরিক্ত উপকমিশনার মো. শাহজাহান রোববার বলেন, রিমান্ডে ছয় দিনে পাওয়া তথ্য যাচাই-বাছাই করে দেখা হচ্ছে। এগুলোর সত্যতা পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্টদের আইনের আওতায় আনা হবে। তিনি বলেন, রিমান্ডে ওই চারজনের কাছ থেকে পাওয়া অনেক তথ্যের জবাব মেলেনি।

তদন্ত-সংশ্লিষ্ট সূত্র বলেছে, জিজ্ঞাসাবাদে ওই চারজন ডিবিকে বলেছেন, এটিএম কার্ড ও ডেবিট কার্ড জালিয়াতির সঙ্গে কয়েকটি ব্যাংকের কার্ড বিভাগের কর্মকর্তা, ট্রাভেল এজেন্সি, আবাসিক হোটেল ব্যবসায়ী, প্রতারক এবং রাজনীতিবিদসহ অনেকে জড়িত। তাঁরা প্রায় ১০০ ব্যক্তির নাম বলেছেন।

প্রাপ্ত তথ্য যাচাই-বাছাই করতে বাংলাদেশ ব্যাংকসহ অন্যান্য ব্যাংকের কার্ড-সংশ্লিষ্ট শাখার কর্মকর্তাদের সহযোগিতা নেওয়া হচ্ছে। জালিয়াত চক্রে আছেন দুই লন্ডনপ্রবাসী, ইতালি, রোমানিয়া, বুলগেরিয়া ও ইউক্রেনের কয়েকজন নাগরিক। ঘটনার আগে লন্ডনপ্রবাসী দুই যুবক ঢাকায় এসেছিলেন। ঘটনা জানাজানির পর তাঁরা দেশ ছেড়েছেন। তাঁদের শনাক্ত করতে সংশ্লিষ্ট দেশের দূতাবাসের সহায়তা নেওয়া হচ্ছে।

এ ছাড়া তাঁদের আইনের আওতায় নিতে পুলিশের আন্তর্জাতিক সংস্থা ইন্টারপোলের সহযোগিতা নেওয়া হবে। এ ছাড়া এই জালিয়াতিতে জড়িত ব্যক্তিরা যাতে দেশ ছেড়ে পালাতে না পারেন, সে জন্য তাঁদের নজরদারি করা হচ্ছে।

বিডিটাইমস৩৬৫ডটকম/আরকে 

উপরে